ভোর ৫:২৯ শনিবার ১৬ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ‘গায়েবি’ মামলা, ভাবমূর্তি রক্ষায় সতর্ক পুলিশ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৮ , ৯:৩৬ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

 

 

জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলার খড়গ নেমে এসেছে। পুলিশের কাজে বাধা দেয়া, হত্যাচেষ্টা, বিস্ফোরক বহন- প্রভৃতি অভিযোগ এনে মামলা দিয়ে নেতাকর্মীদের আসামি করা হচ্ছে।এসব মামলায় মৃত ব্যক্তি, গুরুতর অসুস্থ নেতা, এমনকি প্রবাসে অবস্থানকারীদেরও আসামি করা হচ্ছে। এভাবে মামলা দেয়ায় পুলিশের ভাবমূর্তি দারুণভাবে ক্ষুণœ হচ্ছে।তাই ভবিষ্যতে মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে মাঠপর্যায়ের পুলিশ সদস্যরা যেন আরও সতর্ক হন, সে ব্যাপারে সদর দফতর থেকে কড়া বার্তা দেয়া হয়েছে। আইজিপি ড. জাবেদ পাটোয়ারী মামলা করার ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনাও দিয়েছেন।

 

 

বিষয়টি স্বীকার করে পুলিশ সদর দফতরের ডিআইজি এসএম রুহুল আমিন বলেন, ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয় সেজন্য পুলিশ সদর দফতর সচেষ্ট আছে।আইজিপির নির্দেশনার বরাত দিয়ে পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, এফআইআরের কপি দেখে মামলার গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিলে সংশ্লিষ্ট পুলিশ সদস্যদের শাস্তির আওতায় আনা হবে।

 

 

বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট মেট্রোপলিটন কমিশনার. রেঞ্জ ডিআইজি, এসপি এবং উপ-কমিশনারদের সার্বক্ষণিক তদারকি করতে বলা হয়েছে। মামলার বিবরণে অহেতুক কোনো বিষয় উঠে এলে সঙ্গে সঙ্গে সংশোধন করে নিতে বলা হয়েছে।তিনি বলেন, সামনের নির্বাচন সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্ন করতে পুলিশের পক্ষ থেকে সারা দেশে মাদক, অবৈধ অস্ত্র ও বিস্ফোরক উদ্ধারে সাঁড়াশি অভিযান চলছে। কোনো রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতারে এই অভিযান নয়। যাদের কাছে মাদক, অস্ত্র ও বিস্ফোরক পাওয়া যাচ্ছে বা যারা সুনির্দিষ্ট মামলার আসামি তাদেরই কেবল গ্রেফতার করা হচ্ছে।

 

 

এক প্রশ্নের জবাবে এএসপি সোহেল রানা বলেন, কয়েকটি মামলার ঘটনা ও আসামিদের নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বিষয়টি পুলিশ সদর দফতরের নজরে আসার পরই এ বিষয়ে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, চলতি মাসের শুরু থেকে এ পর্যন্ত বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে রাজধানীর ৫০টি থানাতেই কম-বেশি মামলা হয়েছে। একেকটি থানায় কম পক্ষে পাঁচটি ও সর্বোচ্চ ১০টি মামলা হয়েছে।

 

 

এসব মামলায় সর্বনিু ৫০ জনের নাম এবং সর্বোচ্চ ৩০০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ব্যক্তিদেরও আসামি করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত যেসব মামলা হয়েছে তাতে কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে তরিকুল ইসলাম (গুরুতর অসুস্থ), মির্জা আব্বাস, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল এবং সানাউল্লাহ মিয়াসহ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতাকে আসামি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে সোহেল এবং সানাউল্লাহ মিয়ার নামেই বেশি মামলা দেয়া হয়েছে।

 

 

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী মামলাগুলোকে ‘গায়েবি’ আখ্যা দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, মামলার ছড়াছড়িতে সারা দেশে আতঙ্কের পরিবেশ বিরাজ করছে। সেপ্টেম্বর মাসে সারা দেশে বিএনপির নেতাকর্মীদের নামে তিন হাজারের বেশি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় তিন লাখ ২৫ হাজার নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে।

 

 

বিএনপি সূত্র জানায়, গত ৫ সেপ্টেম্বর রাজধানীর চকবাজার মডেল থানার এসআই কামাল উদ্দিনের দায়ের করা মামলায় আসামি করা হয়েছে চকবাজার থানা বিএনপির আহ্বায়ক আবদুল আজিজুল্লাহকে। অথচ আবদুল আজিজুল্লাহ মারা গেছেন ২০১৬ সালের মে মাসে। বিএনপির প্রয়াত এই নেতার বিরুদ্ধে মামলায় অভিযোগ করা হয়- ৫ সেপ্টেম্বর রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগার এলাকায় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ও ককটেল ছুড়েছেন আবদুল আজিজুল্লাহ।

 

এসআই কামাল উদ্দিনের দায়ের করা মামলায় বিএনপির সমর্থক আবদুল মান্নাফ ওরফে চাঁন মিয়াকেও আসামি করা হয়েছে। অথচ এজাহারে উল্লেখ করা ঘটনার কয়েক দিন আগেই তিনি হজ করতে সৌদি আরবে যান। ঘটনার সময় তিনি দেশেই ছিলেন না। এজাহারে বলা হয়েছে, তিনি হামলা ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটিয়েছেন। এতে দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এর আগে ৩ সেপ্টেম্বর চকবাজার মডেল থানায় একই ধরনের আরেকটি মামলা হয়।কামরাঙ্গীরচর থানা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি নূরুল ইসলাম ৩১ আগস্ট ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুর পাঁচ দিন পর পাঁচ সেপ্টেম্বর কামরাঙ্গীরচর থানায় তার বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা হয়।

 

 

বিএনপির একজন কেন্দ্রীয় নেতা জানান, এসআই জাহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে ১১ সেপ্টেম্বর পল্টন থানায় একটি মামলা করেন। এ মামলায় ২৬ নম্বর আসামি করা হয়েছে মিন্টু কুমার দাস নামে ১১ বছর আগে মারা যাওয়া এক ব্যক্তিকে। তিনি ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে রাজারবাগ ইউনিট বিএনপির সভাপতি ও ২৬ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির প্রচার সম্পাদক ছিলেন। ২০০৭ সালের ২৩ জুলাই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কিডনি রোগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

 

 

তবে পল্টন থানা পুলিশের দায়ের করা মামলার এজাহারে বলা হয়েছে- ১১ সেপ্টেম্বর রাত ৮টা ১৫ মিনিটে বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটে স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে সড়ক অবরোধ করছিলেন মিন্টু কুমার দাস। এ মামলায় তার ভাই পিন্টু দাসও আসামি। দীর্ঘদিন ধরে গুরুতর অসুস্থ বিএনপি নেতা তরিকুল ইসলামকেও পাল্টন থানার একটি মামলায় আসামি করা হয়েছে।

 

 

৩ সেপ্টেম্বর ওয়ারী থানায় দায়ের করা এক মামলার এজাহারে বলা হয়, বাংলাদেশ বয়েজ ক্লাব মাঠে বিএনপিসহ অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা জমায়েত হয়ে ষড়যন্ত্র করছিলেন। এ মামলায় ৯৬ জনের নামে মামলা করে ওয়ারী থানা পুলিশ। এতে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ও কিডনি জটিলতায় আক্রান্ত ৮২ বছর বয়স্ক লুৎফুল কবিরকে ৫১ নম্বর আসামি করা হয়।

 

 

অথচ লুৎফুল অন্য কারো সাহায্য ছাড়া চলাফেরা করতে পারেন না। ৫ সেপ্টেম্বর হুইল চেয়ারে করে তাকে হাইকোর্টে হাজির করলে চার্জশিট দাখিল না হওয়া পর্যন্ত আদালত তার জামিন দেন। ওই মামলায় ১৩ নম্বর আসামি করা হয়েছে বিএনপির ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতা সাব্বির আহমেদ আরিফকে। তবে যে ঘটনায় মামলাটি হয়েছে তিনি সে সময় দেশেই ছিলেন না। ভারতে অবস্থান করেছেন।

 

 

বিএনপি সূত্র জানায়, কেবল রাজধানী নয়, গাজীপুর এবং হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পুলিশের পক্ষ থেকে আজগুবি ঘটনায় মামলা করা হচ্ছে। এসব মামলায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এবং বিদেশে অবস্থানরত নেতাকর্মী এমনকি মৃত ব্যক্তিদের আসামি করা হচ্ছে।এভাবে রজধানীর বিভিন্ন থানায় দায়ের করা মামলার বিষয়ে জানতে সংশ্লিষ্ট অপরাধ বিভাগের ডিসিদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারের ডিসির সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন। রোববার বিকালে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে গিয়ে ডিসির বক্তব্য চাইলে তিনি এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।যুগান্তর

Comments

comments