অপরাধ ও দুর্নীতি

শাহজালালে মাস্ক চুরিতে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ বেবিচকের


রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রক্ষকই এখন ভক্ষকের ভূমিকা পালন করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি বিমানবন্দরের আমদানি কার্গো এলাকায় একটি কোম্পানির আমদানি করা পণ্যের (এন৯৫ মাস্ক) চালানের কিছু পণ্য চুরির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট সংস্থাকে নির্দেশ দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

জানা গেছে, কেন্দ্রীয় ওষুধাগারের জন্য আমদানি করা ৩ লাখ এন-৯৫ মাস্ক চালানের কিছু মাস্ক চুরির ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে ব্যাপক তোলপার সৃষ্টি হয়। এ বিষয়ে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষকের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয় আমদানিকারক তমা কনস্ট্রাকশন। এর পর বেবিচকের তদন্তে বাংলাদেশ বিমান ও ঢাকা কাস্টম হাউজের অসাধু বেশ কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারি চুরির সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়টি বেরিয়ে আসে।

বেবিচক কর্মকর্তারা বলেন, সম্প্রতি বিমানবন্দরে এন৯৫ মাস্ক চুরির ঘটনায় বেবিচকের চেয়ারম্যান এয়ারভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমানের নির্দেশে একটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এরপর প্রায় এক সপ্তাহ যাবত তদন্ত করে কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করে কমিটি। প্র্রতিবেদনে উঠে আসে বিমানবন্দরে চুরির সঙ্গে জড়িতদের নামের তালিকা।

তদন্ত কমিটির এক কর্মকর্তা বলেন, এন৯৫ মাস্ক চুরির সঙ্গে বাংলাদেশ বিমানের কার্গো শাখা ও ঢাকা কাস্টমস হাউজের অসাধু বেশ কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারি জড়িত রয়েছে।

বেবিচকের চেয়ারম্যান এয়ারভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান সমকালকে বলেন, বিমানবন্দরে তমা কনস্ট্রাকশনের আমদানি করা মাস্ক চুরির সঙ্গে জড়িত বিমান ও ঢাকা কাস্টমস হাউজের বেশ কিছু কর্মকর্তা ও কর্মচারি। এ ঘটনায় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট বিমান ও কাস্টমস সংস্থাকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button