দেশজুড়ে

শ্রীমঙ্গলে ক্ষমতার প্রভাব খাঁটিয়ে বালু উত্তোলন করছেন মহিলা মেম্বার মিনতী রাণী দে


কে এস এম আরিফুল ইসলাম, ডিভিশনাল চিফ রিপোর্টার: মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার ৩নং সদর ইউনিয়নের সবুজবাগ এলাকার ভুরভুরিয়ার প্রাকৃতিক ছড়া থেকে কর্তৃক ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করছেন ৪, ৫ ও ৬ নং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের মেম্বার মিনতি রাণী দে এর প্রতি অভিযোগ করেছেন এলাকবাসী।

অনুসন্ধানে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন, সদর ইউপির সবুজবাগ সরকারপাড়া থেকে মালাকার পাড়া ভুরভুড়িয়া ব্রীজের পাশের হাওড় মূখী প্রাকৃতিক ছড়া থেকে ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে গত কয়েকদিন যাবত ছড়া থেকে বালু তুলে তার নিজ বাড়িতে মাটি ভরাটের কাজ করছেন মিনতি রাণী দে।

স্থানীয় এলাকার বাসিন্দা পরিতোষ দাশ আমাদের বলেন, বিগত বছর ছড়ার মাটি ভাঙ্গন, আশপাশের বাড়ি ঘর রক্ষা ও হাওরে কৃষি কাজের সুবিধার্থে সরকারী ভাবে ছড়াটির সংস্কার কাজ করা হয়। এলাকার মানুষের যাতায়াতের সুবিধার্থে গত বছর মৌলভীবাজার-৪ আসনের স্থানীয় সংসদ সদস্য ড. মো.আব্দুস শহীদ এমপি এর প্রচেষ্টায় এই ছড়ার উপর একটি ব্রীজ নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে এই ছড়া থেকে বালু তোলার কারণে নব নির্মিত একটি ব্রীজ ও আশে পাশের ঘর বাড়ি ধংসের মুখে পড়েছে। অনেক কৃষি জমি ইতিমধ্যেই মাটি ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে। এখানকার বাসিন্দা পিঙ্কু দাশ নামে আরেক বাসিন্দা জানান, ছড়া থেকে বালু তোলার প্রতিবাদ করলে ওই মেম্বার ও তার ছেলে স্থানীয়দের সাথে খারাপ দূর্ব্যবহার করেন। তিনি বাধা নিষেধ উপেক্ষা করে সরকারী ছড়া থেকে বালু তুলে নিজের কাজে লাগাচ্ছেন। তিনি জানান, মেম্বার মিনতি রানী আজ সকালেও ৪ জন শ্রমিক দিয়ে ছড়ার বালু তুলতে গেলে এলাকবাসী বাঁধা দেয়। এসময় মিনতি রানী দে জানায়, সরকারী জায়গা থেকে বালু তুললে কার কি? তিনি আরো বলেন ৩ নং সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ভানু লাল রায় ও ৪ নং ওয়ার্ড মেম্বার মানিক মিয়ারও বিষয়টি জানা আছে এমন দাবি করে তিনি জোর করেই বালু তুলে তার বাড়ির উঠান ভরাট কাজ করছেন।

আরেক স্থানীয় বাসিন্দা বাবুল মোদক অভিযোগ করেন, এই ছড়া থেকে এভাবে বালু তুললে ২-১ মাসের মধ্যে ছড়ার পাড়ের রাস্তাটি ধ্বসে পড়তে পারে। পাশাপশি সদ্য নির্মিত ব্রীজটিও ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে বলে আশংকা করে তিনি এ ব‍্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

শুক্রবার (৩জুলাই) সকালে সরেজমিনে সেখানে গিয়ে দেখা যায় ৪ জন মাটি শ্রমিক ছড়া থেকে মাটি বালু তুলে মিনতি রাণী দে’র বাড়ির উঠানে ফেলতে। শ্রমিকরা জানায় মেম্বারনি মিনতি রাণী ৪শ’ টাকা রোজ হাজিরা দিয়ে তাদের এ কাজে নিয়োজিত করেছেন।

এ সময় বাসার বারান্দায় দাঁড়িয়ে মাটি ফেলার কাজ তদারকি করতে দেখা যায় মিনতি রাণীকে। প্রাকৃতিক ছড়া থেকে বালু তোলা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মিনতি রাণী দে, বালু তোলার কথা স্বীকার করে বলেছেন তার বাড়ির উঠান ভরাট করতে ছড়া থেকে তিনি কিছু বালু তুলছেন। আর বৃষ্টিতে বাড়ির উঠানে কাঁদা পানি জমে, যে কারণে চেয়ারম্যান ভানুলাল রায় ও মানিক মেম্বারকে জানিয়ে ছড়া থেকে কিছু বালু তুললে উঠানে দিচ্ছি।

৪ নং ওয়ার্ড এর ইউপি সদস্য মানিক মিয়ার কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি আমাদের জানান, মিনতি রানী কর্তৃক বালু তোলার বিষয়ে তাকে জানানোর বিষয়টা মিথ্যা ও বানোয়াট। এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না বা আমাকে তিনি (মিনতি রাণী) কিছুই জানাননি। তাছাড়া ডিসির অনুমতি ছাড়া প্রাকৃতিক ছড়া থেকে বালু তোলা অপরাধ।

এ নিয়ে ৩ নং শ্রীমঙ্গল সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ভানু লাল রায় এর কাছে জানতে চাইলে তিনি আমাদের জানান, ‘আমি অসুস্থ, কয়েকদিন ধরে কোয়ারাইন্টেনে আছি। ছড়া থেকে বালু তোলার বিষয়ে ইউপি সদস্য মিনতি রাণী দে’র সাথে আমার কোন কথা হয়নি। তিনি আমাকে কিছুই জানাননি’।

এবিষয়টি নিয়ে শ্রীমঙ্গল উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহমুদুর রহমান মামুনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আমাদের বলেন, প্রাকৃতিক ছড়া থেকে লীজ ছাড়া বালু তোলা বে-আইনী ও দন্ডনীয় অপরাধ,। অভিযুক্ত যেই হোক না কেন ছড়া থেকে বালু তোলার ঘটনা ঘটে থাকলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button