আন্তর্জাতিক

চীন-যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে সন্দিহান ট্রাম্প

  • 54
    Shares

বিশ্বের শীর্ষ দুই অর্থনীতি যুক্তরাষ্ট্র ও চীন নিজেদের মধ্যে চলমান বাণিজ্যযুদ্ধের দামামা কিছুটা হলেও কমানোর উদ্যোগ নিয়েছিল। বিবদমান দেশ দুটি চলতি বছরের শুরুতে এ জন্য ‘ফেজ ওয়ান’ বাণিজ্য চুক্তিতে স্বাক্ষরও করে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে নতুন করে বিবাদে লিপ্ত হয়েছে তারা। চুক্তির ভবিষ্যৎ নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। খবর ব্লুমবার্গ।

এ যাবৎ মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের সবচেয়ে বড় অর্জন ধরা হচ্ছিল ‘ফেজ ওয়ান’ চুক্তিকে। দীর্ঘদিনের আলোচনার পর গত জানুয়ারিতে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও চীনের উপপ্রধানমন্ত্রী লিউ হি।

এর আগে, একে অন্যের ওপর বাণিজ্য শুল্কের বোঝা চাপিয়ে দেয়ার প্রতিযোগিতায় মেতেছিল যুক্তরাষ্ট্র ও চীন। দুই অর্থনৈতিক পরাশক্তি যেভাবে বাণিজ্যের শীতল যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিল, তা ভাবিয়ে তুলেছিল অন্য দেশগুলোকেও। এমন পরিস্থিতিতে দেশ দুটি প্রাথমিক পর্যায়ের চুক্তিতে উপনীত হওয়ায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিলেন সবাই।

কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে সে স্বস্তি উবে যেতে চলেছে। শুক্রবার টেলিফোনে ফক্স নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প জানান, করোনা ভাইরাস ইস্যু নিয়ে চীনের সঙ্গে তার মতবিরোধ তৈরি হয়েছে। তিনি বলেন, ‘দেখুন, চীনের সঙ্গে আমার সময়টা ভালো যাচ্ছে না। কয়েক মাস আগে আমি একটি গুরুত্বপূর্ণ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিলাম। সে সময় পরিস্থিতি এমন ছিল না। চুক্তিটির বাস্তাবায়ন শুরু হলো। এরপর করোনা ভাইরাসের প্রকোপও দেখা দিল। এটি চুক্তিটির সাফল্যে বড় একটি প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

ট্রাম্পের এ সাক্ষাৎকারের মাত্র একদিন আগেই যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে টেলিফোনে আলোচনা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য প্রতিনিধি রবার্ট লাইটহাইজার ও অর্থমন্ত্রী স্টিভেন মানিউচিন এবং চীনের উপপ্রধানমন্ত্রী লিউ হি ফোনালাপে নিজ নিজ দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। এ সময় তারা দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি এবং অর্থনীতি ও জনস্বাস্থ্যে একে অন্যকে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।

রবার্ট লাইটহাইজারের দপ্তর থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘উভয় পক্ষই স্বীকার করছে যে চুক্তিটির সফল বাস্তবায়নের জন্য সরকারি পর্যায়ে জরুরি বিষয়গুলোয় ভালো অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। বিশ্বজুড়ে চলমান জনস্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থার মধ্যেও উভয় দেশই চুক্তির শর্তগুলো পুরোপুরি মেনে চলার বিষয়ে আশাবাদী।’

অর্থাৎ উভয় দেশের প্রতিনিধিদের মধ্যকার ফোনালাপে যে আশা তৈরি হয়েছিল, একদিন পর ট্রাম্প তাতে পানি ঢেলে দিলেন। করোনা ভাইরাস মহামারী আকার ধারণ করার জন্য তিনি চীনকেই দায়ী করে চলেছেন। তার দাবি, উহানের একটি গবেষণাগার থেকেই ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে। আর চীন এর সংক্রমণ প্রতিরোধে যথেষ্ট পদক্ষেপ না নেয়ায় এবং প্রকৃত তথ্য প্রকাশ না করায় ভাইরাসটি খুব দ্রুত সারা বিশ্বে বিস্তার লাভ করেছে।

চীনের ওপর ট্রাম্পের ক্ষোভ বেশি হওয়ার কারণ হলো, কভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রেই। জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় এ ব্যর্থতার কারণে আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রাক্কালে বেশ বিপাকে রয়েছেন ট্রাম্প। সম্প্রতি তিনি এমনটাও বলেছেন যে চীন তাকে দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হতে দিতে চায় না। এ কারণে ট্রাম্প হয়তো সিদ্ধান্তই নিয়ে ফেলেছেন, যে করেই হোক তিনি চীনকে শায়েস্তা করবেন।

এ শায়েস্তা চীনের ওপর নতুন করে শুল্ক আরোপের মাধ্যমে করা হবে কিনা, তা জানতে চাওয়া হয়েছিল সাক্ষাৎকারে। এর জবাবে ট্রাম্প বলেছেন, ‘আমি ছাড়া আর কেউ কখনো চীনের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি করতে পারেনি। কারণ চীন এমনটি হতে দিতে চায় না। তারা যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে কেবল ফায়দা লুটতে চায়। প্রতি বছর ৫০ হাজার কোটি ডলার হারাচ্ছিলাম আমরা। এখন আমি চুক্তির ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তায় রয়েছি। তবে যদি সত্যি জানতে চান, আমি এখনো এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিইনি।


  • 54
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button