দেশজুড়ে

‘স্বেচ্ছা অবসরে’ পাঠানো হচ্ছে ২৫ হাজার পাটকল শ্রমিককে

  • 71
    Shares

করোনাকালীন সময়ে সরকারের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রায়াত্ত ২৫ টি পাটকল বন্ধ ও কর্মরত ২৪,৮৮৬ জন শ্রমিককে গোল্ডেন হ্যান্ডশেক এর মাধ্যমে অবসর প্রদানের ঘোষণায় শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরাম-এসএনএফ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। দীর্ঘ দিন যাবত এসব পাটকলে কর্মরত শ্রমিকরা পাটকল আধুনিকায়ন করার জন্য দাবী তুলে আসলেও কর্তৃপক্ষ পাটকলের আধুনিকায়ন করতে সক্ষম হয়নি। উপরন্তু এই করোনাকালীন সময়ে পাটকল বন্ধ করে শ্রমিকদের অবসরে পাঠানোর ঘোষণা অত্যন্ত মর্মান্তিক।

বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা যায়, বছরের পর বছর ধরে লোকসান গোনায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোর প্রায় ২৫ হাজার স্থায়ী শ্রমিককে স্বেচ্ছা অবসরে (গোল্ডেন হ্যান্ডশেক) পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন (বিজেএমসি)। তবে বিষয়টি সহজভাবে নিচ্ছেন না পাটকল শ্রমিকেরা। গোল্ডেন হ্যান্ডশেক এর মাধ্যমে অবসরে পাঠানোর সরকারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে শ্রমিকরা এক হয়ে রাষ্ট্রায়াত্ত পাটকল রক্ষা শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ গঠন করে আন্দোলনে নেমেছেন। ইতোমধ্যে পাটকল শ্রমিকরা তাদের সন্তানদের নিয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন। অন্যদিকে, এই কর্মসূচির পরই সরকারের শ্রম প্রতিমন্ত্রীর সাথে পাটকল শ্রমিক নেতাদের বৈঠক কোন ফলাফল ছাড়াই শেষ হওয়ার পর শ্রমিকরা আমরণ অনশন করার ঘোষণা দিয়েছেন।

প্রকাশিত সংবাদে আরো জানা যায় যে, বিজেএমসির অধীন ২৬টি পাটকলের মধ্যে বর্তমানে চালু আছে ২৫টি। এর মধ্যে ২২টি পাটকল ও ৩টি ননজুট কারখানা। ঢাকা অঞ্চলে ৭টি, চট্টগ্রামে ১০টি ও খুলনা অঞ্চলে ৯টি পাটকল রয়েছে। পাটকলগুলোতে বর্তমানে স্থায়ী শ্রমিক আছেন ২৪ হাজার ৮৮৬ জন। এ ছাড়া তালিকাভুক্ত বদলি ও দৈনিকভিত্তিক শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ২৬ হাজার। তবে গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের আওতায় থাকবেন কেবল স্থায়ী শ্রমিকেরা।

শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরাম এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের পাট শিল্পের ভবিষ্যৎ ও এ শিল্পের সাথে স¤পৃক্ত সকল শ্রমিকের জীবিকার নিরাপত্তা বিষয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। দ্রুততার সাথে যথাযথ গবেষণা, অনুসন্ধান ও উন্নয়ন পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশের পাট শিল্পকে টিকিয়ে রাখার এবং পাটকল শ্রমিকদের অধিকার নিশ্চিত করার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছে শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরাম।


  • 71
    Shares

Related Articles