দেশজুড়ে

জঙ্গিবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা- দেশে জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রন আছে : র‌্যাব ডিজি


এস,এম,মনির হোসেন জীবন : র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) মহা-পরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেছেন, জঙ্গিবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা। সারাবিশ্ব জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় কাজ করছে। দেশে জঙ্গিবাদ এখনও পর্যন্ত যথেষ্ট পরিমাণে নিয়ন্ত্রণে আছে।

দেশে জঙ্গিবাদ যথেষ্ট পরিমাণে নিয়ন্ত্রণে আছে উল্লেখ করে ডিজি (র‌্যাব) বলেন, জঙ্গিবাদ দমনের ক্ষেত্রে আমরা যে সফলতা অর্জন করেছি, সেই সফলতা আগামীতে ধরে রাখতে এলিট ফোর্স র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সকল ইউনিট (সমন্বয়) করে এক সাথে কাজ করছে।

আজ বুধবার সকাল ৯টায় রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিসান বেকারিতে নৃশংস হামলার চার বছর পূর্তি পালনে ঘটনাস্থলে এসে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে গনমাধ্যম কর্মীদের সাথে এক প্রেসব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
এসময় র‌্যাবের এডিজি (অপস) তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার, এডিজি (এডমিন) ডিআইজি মো: জামিল আহমেদ, গোয়েন্দা বিভাগের চীফ লেফটেন্ট্যান্ট কর্ণেল সারওয়ার বিন কাশেম, র‌্যাব-১ এর কমান্ডিং অফিসার (অধিনায়ক) লেফটেন্ট্যান্ট কর্ণেল শাফী উল্লাহ বুলবুল,র‌্যাবের মেজর রইসুল আজম মনি, র‌্যাবের মিডিয়া শাখার সিনিয়র সহকারী পরিচালক সুজয় সরকার, এএসপি (মিডিয়া) মোস্তাফিজুর রহমানসহ র‌্যাবের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।
জঙ্গি সংগঠনগুলোর সক্ষমতা কেমন? সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব ডিজি বলেন, জঙ্গিবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা। সারাবিশ্ব জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় কাজ করছে। আমরাও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী চেষ্টা চালিয়ে জঙ্গিবাদ দমন করতে সক্ষম হয়েছি। আমি মনে করি জঙ্গিবিরোধী কার্যক্রম সফলভাবে আমরা বাস্তবায়ন করতে পেরেছি এবং এই সফলতার ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে বলে আমরা আশা করছি।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব ডিজি বলেন, ‘হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার ঘটনার আগ থেকেই র‌্যাব দেশের জঙ্গিবিরোধী বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করেছে। এখন পর্যন্ত আমরা দুই হাজারেরও অধিক জঙ্গি সদস্যদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। এ ঘটনার পর আমরা অভিযান চালিয়ে এক হাজারেরও অধিক জঙ্গি সদস্যদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। বর্তমান পরিস্থিতিতেও বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে জঙ্গি সদস্যদের গ্রেফতার করছে র‌্যাব।
দেশে জঙ্গিবাদ যথেষ্ট পরিমাণে নিয়ন্ত্রণে আছে উল্লেখ করে এলিট ফোর্স র‌্যাব প্রধান বলেন,‘আমি মনে করি, ‘আমরা এক ধাপ এগিয়ে আছি, জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা যখনই কোনো পরিকল্পনা করছে, তখনই আমরা গোয়েন্দা তথ্য পেয়ে কাজ করছি এবং তাদের আটক করতে সক্ষম হচ্ছি। বর্তমানে জঙ্গিবাদ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।
চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন,‘হলি আর্টিজান হামলার ঘটনার পর থেকে র‌্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সব ইউনিট একত্রিত হয়ে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করি। সফলতার সঙ্গে জঙ্গিদের সক্ষমতা ভেঙে দিতে আমরা সফল হয়েছি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা দেশের জঙ্গি নিয়ন্ত্রণে সফলতা পেয়েছি।

তিনি আরও বলেন, হলি আর্টিজান হামলার ঘটনায় নিহত ও পরিকল্পনাকারীসহ জঙ্গি সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। সেটি তদন্ত শেষে চার্জশিট আদালতে জমা দেওয়া হয়েছে বর্তমানে মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে। আমরা আশা করছি, খুব দ্রুতই এর বিচার সম্পন্ন হবে আসামিরা সাজা পাবে।

র‌্যাব ডিজি বলেন, ২০১৬ সালের এ দিনে পাঁচ অস্ত্রধারী জঙ্গি রাজধানীর গুলশানে অবস্থিত হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা করে। সেখানে অবস্থানরত দেশি-বিদেশি ব্যক্তিদের জিম্মি করে। পরে তাদের মধ্যে ২০ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে জঙ্গি সদস্যরা। এদের মধ্যে তিনজন বাংলাদেশি, সাতজন জাপানি, নয়জন ইতালিয়ান এবং একজন ভারতীয় নাগরিক ছিলেন।

জঙ্গিবাদ দমনে দেশের সাধারণ মানুষ ও জনপ্রতিনিধিসহ সব পর্যায়ের মানুষ আমাদের সহযোগিতা করেছে উল্লেখ করে র‌্যাব প্রধান বলেন, এজন্য সবাইকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। ২০১৬ সালের এই দিনে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে মর্মান্তিক ঘটনায় যারা নিহত হয়েছেন তাদের প্রতি গভীর শোক প্রকাশ করছি। নিহতদের স্বজনরা যাতে এই শোক সইতে পারেন সেজন্য তাদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি।


Related Articles