দেশজুড়ে

পদ্মার ভাঙনে হুমকীর মুখে কুষ্টিয়ার রবীন্দ্র কুঠিবাড়িসহ কয়েকটি গ্রাম

  • 15
    Shares

কুষ্টিয়া প্রতিনিধিঃ কুষ্টিয়ার কুমারখালীর শিলাইদহ ইউনিয়নের কোমরকান্দি এলাকায় পদ্মা নদীতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। আর এই নদী ভাঙনে চরম ঝুঁকিতে রয়েছে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজড়িত কুঠিবাড়ীসহ কয়েকটি গ্রাম। রবীন্দ্র কুঠিবাড়ী ও পার্শ্ববর্তী এলাকা সংরক্ষণের লক্ষ্যে ‘পদ্মা নদীর ডান তীর সংরক্ষণ প্রকল্প’ নামে প্রায় দুইশো কোটি টাকা ব্যয়ে চার কিলোমিটার এলাকায় প্রতিরক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। এরপরও রবীন্দ্র কুঠিবাড়ী ভাঙন ঝুঁকিতেই রয়ে গেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, পদ্মা নদীর ভাঙনে কুমারখালী উপজেলার শিলাইদহ ইউনিয়নের কোমরকান্দি এলাকায় প্রায় দেড় কিলোমিটার অংশ ফাঁকা রেখে নির্মাণ করা হয়েছে প্রতিরক্ষা বাঁধ। এবার বর্ষার শুরুতেই পদ্মা নদীর পানি বাড়তে শুরু করায় ওই প্রায় দেড় কিলোমিটার এলাকাজুড়েই দেখা দিয়েছে ভাঙন। কোমরকান্দি গ্রামের গ্রামের জালাল সর্দারের বাড়ি থেকে জলা প্রামাণিকের বাড়ি পর্যন্ত বাঁধ নদীতে ধ্বসে পড়ছে। একরণে ভাঙন আতঙ্কে দিন পার করছে এলাকাবাসী। কোমরকান্দি গ্রামের প্রবীণ বাসিন্দা তজিমদ্দিন (৮০) জানান, পদ্মা নদীর ভাঙনের কারণে এই জীবনে বেশ কয়েকবার বসতবাড়ি স্থানান্তর করেছি। কিন্তু জীবনের এই শেষ সময়ে এসে নদী ভাঙন নিয়ে খুবই আশঙ্কায় আছি। জরুরী ভিত্তিতে ভাঙন প্রতিরোধ ও বাঁধ নির্মাণ করা না হলে সাধারণ মানুষের বড়িঘর সহ ফসলি জমি ও এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও নদীতে চলে যাবে।

স্থানীয় কলেজ শিক্ষক মো. আরিফুজ্জামান বলেন, শুধু বর্ষা মৌসুম এলেই নদী ভাঙন নিয়ে দৌড়াদৌড়ি না করে সংশি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষের উচিত শুষ্ক মৌসুমে এ বিষয়ে পরিকল্পনা সহ প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেওয়া। তিনি আরো বলেন, এখানে রবীন্দ্র কুঠিবাড়ি সুরক্ষায় বৃহৎ একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হলেও কুঠিবাড়িটি অরক্ষিত রয়েই গেছে। আর এ বিষয়ে সংশ্লীষ্ট কর্তৃপক্ষের কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।

শিলাইদহ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সালাহ্উদ্দিন খান তারেক জানান, নদী ভাঙন প্রতিরোধে জরুরীভিত্তিতে পদক্ষেপ নেয়া না হলে অচিরেই শিলাইদহের কয়েকটি গ্রামের বসতবাড়িসহ ফসলি জমি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নদী গর্ভে বিলিনের আশংকা সৃষ্টি হয়েছে। সেই সঙ্গে রবীন্দ্র কুঠিবাড়ীও ঝুঁকিতে পড়তে যাচ্ছে। ইউপি চেয়ারম্যান আরো জানান, রবীন্দ্র কুঠিবাড়ি রক্ষা ও পার্শ্ববর্তী এলাকা রক্ষায় পদ্মা নদীর ডান তীর সংরক্ষণে বিপুল অংকের টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হলেও শিলাইদহের কোমরকান্দি এলাকার দেড় কিলোমিটার অংশে বাঁঁধ নির্মাণ করা হয়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীবুল ইসলাম খান জানান, পদ্মার ভাঙন এলাকা পরিদর্শন সহ ভাঙন রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে সমন্বয়ের পাশাপাশি ঝুঁকিপূর্ণ পরিবারগুলোকে প্রয়োজনে অন্যত্র সরিয়ে নিতে ইউনিয়ন পরিষদকে বলা হয়েছে। এদিকে, কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পীযূষ কৃষ্ণ কুন্ডু জানান, শিলাইদহের কোমরকান্দি এলাকা নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছি। সেই সাথে ভাঙন প্রতিরোধে নেয়া হচ্ছে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা। পদ্মার ভাঙন প্রতিরোধে শিগগিরই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী করেছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ এলাকাবাসী।


  • 15
    Shares

Related Articles