দেশজুড়ে

লঞ্চ দুর্ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত শুরু

  • 7
    Shares

সাড়ে ২৬ ঘণ্টা পর উদ্ধার হলো বুড়িগঙ্গায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ মর্নিং বার্ড। আরো একজনের লাশ উদ্ধার হওয়ায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩৩-এ। এদিকে, উদ্ধার কাজের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘোষণা করেছে বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান।

সাড়ে ২৬ ঘণ্টার বেশি শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান। অবশেষে বুড়িগঙ্গার পানিতে মাথা তুললো মঙ্গলবার (৩০ জুন) শ্যামনগরে ডুবে যাওয়া লঞ্চ মর্নিং বার্ড ২। নদীর মাঝখানে প্রায় ৪০ ফুট গভীরে থাকা লঞ্চটির সাথে এয়ার লিফ্টিং ব্যাগ বেঁধে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ভাসিয়ে তোলা হয় উপরে।

ফায়ার সার্ভিস কর্মী একজন বলেন, এয়ার লিফ্টিং ব্যাগ লঞ্চের সাথে বেঁধে হাওয়া দেয়া হচ্ছিল। ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে লঞ্চটিকে ভাসিয়ে তোলা হয় উপরে।

ডোবার সময় উল্টে যাওয়া লঞ্চটির ভেতরে চলছিলো তল্লাশি। দুপুর ১২টার দিকে আরেকটি লাশের খোঁজ মেলে।

একজন ডুবুরি বলেন, ইঞ্জিনরুমটাতে সন্দেহ হয় আমার। ইঞ্জিন রুমটা আটকানো ছিল। আমি খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে ভাঙ্গি সেটাকে। একটু ফাঁকা হয়, সেখানে ছেলেটিকে পাই।

তদন্ত কমিটি যথাযথভাবে কাজ করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে বলে জানানো হয়।

লঞ্চ দুর্ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান রফিবুল ইসলাম খান বলেন, লঞ্চ দুর্ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করে দেখা হয়েছে। বিকেল ৩ টা থেকে ৫ টা ও কাল সকাল ১১ টা থেকে দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। নির্ধারিত সময়েই দেয়া হবে তদন্ত রিপোর্ট।

সোমবার সকালে সামনে থাকা মর্নিং বার্ড ২ লঞ্চটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয় চাঁদপুরগামী ময়ূর-২। ঠিক ৯টা ১৩ মিনিটে লঞ্চটি ডুবে যায়।


  • 7
    Shares

Related Articles