মুক্তমত ও সম্পাদকীয়

বৈশ্বিক মহামারী ও বিশ্বভ্রাতৃত্ব: আমাদের করণীয় কী?

  • 150
    Shares

২০১৯ সালের নভেম্বর মাস। পুরো পৃথিবীতে শিল্পায়নের জয়জয়কার। পুঁজিপতিরা নিজেদের উদ্বৃত্ত পুঁজির কসরত দেখাতে ব্যস্ত। তারা ছুটে চলেছেন দিক থেকে দিগন্তে; দেশ থেকে দেশান্তরে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে উন্নত রাষ্ট্রসমূহের মাথায় শুধু একটাই চিন্তাঃ তা হচ্ছে কিভাবে আরও উন্নততর জীবনযাপন করা যায়?

আর এই উন্নততর জীবনের অংশ হিসেবে তারা বেছে নিয়েছে সশস্ত্র যুদ্ধকে। উন্নত রাষ্ট্রসমূহ প্রতিনিয়ত ব্যস্ত তাদের সামরিক খাতকে উন্নততর করতে। এরই ধারাবাহিকতায় তারা ব্যস্ত উন্নত মারণাস্ত্র তৈরীতে। যার নেতিবাচক প্রভাবে প্রতিনিয়ত ধ্বংস হচ্ছে মানবসভ্যতা। উন্নত মারণাস্ত্র তৈরীর পর তা নিক্ষেপ করা হচ্ছে তুলনামূলক দূর্বল রাষ্ট্রসমূহের উপর। উদ্দেশ্য শুধু একটাইঃ তা হল তুলনামূলকভাবে দূর্বল রাষ্ট্রসমূহের দ্বারা উপনিবেশবাদ গঠনপূর্বক সেসকল দূর্বল রাষ্ট্রসমূহ থেকে প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণপূর্বক পুঁজিবাদের গতিধারায় আরো কয়েকধাপ অগ্রসর হওয়া। ফিলিস্তিনি শিশুদের আর্তনাদ, সিরিয়ান ছোট্ট শিশুর চাহনি, ভূমধ্যসাগরে আয়লান কুর্দির নিথর দেহটি এই কথাই জানান দেয়। বিশ্বের একপ্রান্তে যখন উন্নতরাষ্ট্রগুলো তাদের তৈরী নতুন ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণে ব্যস্ত, ঠিক তখনই একই দ্রাঘিমায় অবস্থান করে পৃথিবীর অপর প্রান্তে সিরিয়ান ছোট বোন নিজের মুখে অক্সিজেন মাস্ক না দিয়ে তার ছোট্ট ফেরেশতাতুল্য ভাইয়ের মুখে দিয়ে বলে: “তোমরা আমাদের সাথে এমন করলে কেন? আমি আল্লাহকে গিয়ে সব বলে দেব।”

সর্বশক্তিমান প্রভু হয়তোবা তার কথা শুনেছেন। আর এর উপর প্রদত্ত শাস্তি হিসেবে চীনের উহান প্রদেশের বন্য ও সামুদ্রিক প্রাণীর বাজারে পাঠিয়ে দেন এক আগন্তুককে। সময়ের ক্রান্তিধারায় একবার সেই আগন্তুকের সাথে দেখা হয় আজকের দূষিত পর্যুদস্ত মানব সভ্যতার। কিন্তু সেই আগন্তুক এক নীরব ঘাতক হয়ে আসে মানব সভ্যের জীবনে। যা সপ্তাহ খানেক দেহে সুপ্ত অবস্থায় বিরাজ করে অবশেষে নিজের ভয়াল রূপের আত্নপ্রকাশ ঘটায়। হ্যাঁ, এটিই সেই আতঙ্ক যার নাম কোভিড-১৯ (Covid-19) বা নোভেল করোনাভাইরাস। যা সাম্প্রতিক বিশ্বের নিকট আতঙ্ক। বৈশ্বিক মহামারী’র সঃজ্ঞায়নে বলা হয়েছে, যখন কোনো রোগের, দেশের ভৌগোলিক সীমানা পেরিয়ে আশেপাশের বিভিন্ন দেশ; এমনকি আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে এক মহাদেশ থেকে অন্য মহাদেশে বিস্তার ঘটে, তখন তাকে বৈশ্বিক মহামারী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। গত ১১ই মার্চ বিশ্বব্যাপী করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা(World Health Organization) বা WHO রোগটিকে “বৈশ্বিক মহামারী” হিসেবে ঘোষণা দেয়। করোনা ভাইরাসের বৈশ্বিক প্রভাব ও এর ভয়াবহ পরিণতি স্মরণে রেখে দেশে দেশে কলকারখানা বন্ধ হয়েছে, বন্ধ হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। মন্থর হচ্ছে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, নিম্ন প্রবৃদ্ধির অর্থনৈতিক কাঠামোতে এর মান হচ্ছে ঋণাত্নক। দেশ থেকে দেশান্তরে মানুষ চার দেয়ালের বন্দি কোটরে আশ্রয় নিয়েছে। সামাজিক ভাবে যার নামঃ হোম কোয়ারেন্টাইন। আর ঘরে ঘরে নাগরিকদের এই হোম কোয়ারেন্টাইনে অবস্থানের সম্মিলিত রূপই হচ্ছে লকডাউন। যা আজ বিশ্বসৃষ্টির সেরা জীবটিকেও বন্দি করে রেখেছে।

কিন্তু, বিশ্বরাজনীতি কি থেমে আছে? উত্তর হচ্ছেঃ না। বরং, বিষয়টি রাজনৈতিক আলোচনার অন্যতম কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। চীনের উহান প্রদেশের যে স্থান থেকে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা গিয়েছে, ঠিক তার পাশেই অবস্থিত উহান ইনস্টিউট অব ভাইরোলজি। এই সূত্র ধরেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, নোবেলজয়ী ফরাসি চিকিৎসাবিজ্ঞানী লুক মোঁতানিয়ে সহ আরও অনেকপক্ষই শুরু থেকেই এই প্রাণঘাতি ভাইরাসটিকে চীনের জৈব মারণাস্ত্র হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। চীনের অভিযোগ একই হলেও অভিযোগের তীর ঠিক বিপরীত দিকে। চীন করোনায় আক্রান্ত হওয়ার কিছু দিনের মধ্যেই ইতালি ও ইরানে এর সংক্রমণ ব্যাপক ভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে। তখন ইরানও এই ভাইরাসটিকে মার্কিন জৈব মারণাস্ত্র হিসেবে প্রচার করে। ইরান ও চীন যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছে, ঠিক তখনই ব্রিটিশ কিছু গণমাধ্যম তাদের সন্দেহের তীর ছুঁড়ছে রাশিয়ার দিকে। রাশিয়া প্রত্যুত্তরে নীরব থেকেছে।

বিজ্ঞানী ও রোগতত্ত্ববিদগণ দাবি করছেন, অনিয়ন্ত্রিত ও অস্বাস্থ্যকর বন্যপ্রাণী খাদ্যাভাস এ রোগের জন্য প্রধানতম দায়ী। এ সকল বন্যপ্রাণী বনে চলাচলকালে নানা ধরণের ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া বা জীবাণু’র সংস্পর্শে আসতে পারে। চীনের উহান প্রদেশের “হুনওয়ান” নামক এক সামুদ্রিক প্রাণীর বাজারে এ ধরণের প্রাণী কেনাবেচা করা হতো, যেখানের এক সামুদ্রিক মাছ বিক্রেতার শরীরে প্রথমবারের মতো এই ভাইরাসটির সন্ধান পাওয়া যায়। প্রকৃত অর্থে, অণুজীববিজ্ঞানীগণ এখনো এই ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল আবিষ্কার করতে পারেন নি। তবে, “হর্সশু” নামক এক প্রজাতির বাদুড় ও প্যাঙ্গোলিন-এর শরীরে এর সদৃশ ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেলেও তাদের দেহ থেকে প্রাপ্ত ভাইরাসের নমুনা, করোনাভাইরাসের সকল বৈশিষ্ট্যকে সমর্থন করে না। অপরদিকে, রোগতত্ত্ববিদগণ এভাবে অনিয়ন্ত্রিত শিকারকৃত প্রাণী স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী প্রক্রিয়াজাতকরণ ও রান্না না করে খাওয়াকে করোনাসহ অন্যান্য সংক্রমণের জন্য বিশেষভাবে দায়ী করেছেন।

মুদ্রার এ পিঠে বাড়ছে লাশের মিছিল। প্রতিদিনই কোনো না কোনো প্রাণ কালে-অকালে ঝরে পড়ছে সূক্ষ্ণ শত্রুর আক্রমণে। বাংলাদেশও পিছিয়ে নেই এই কালযাত্রায়। প্রতিনিয়তই কেউ না কেউ হচ্ছে শবযাত্রী। বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাস ধরা পড়ে গত ৮ই মার্চ। সেই থেকে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা অনেক কম ছিল । কিন্তু, পর্যাপ্ত টেস্টিং কীট হাতে আসার পর পরীক্ষার সংখ্যা যখন বৃদ্ধি পাওয়া শুরু করে তখন, তথা এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহে রোগাক্রান্তের সংখ্যা গুণোত্তর হারে বাড়তে থাকে। একইসাথে ঊর্ধ্বমুখী হারে অবস্থান করে মৃত্যুর হার। গত ৪ঠা মে, ২০২০ইং বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা দশ হাজারের ঘরটিকে অতিক্রম করে। এরপর, মাত্র ১১২ দিনের ব্যবধানে আজ সে সংখ্যা ১,৩৭,৭৮৭ এ গিয়ে দাঁড়িয়েছে; যেখানে মৃতের সংখ্যা ১,৭৩৮। অর্থাৎ, মৃতের হার প্রায় ১.২৬%। একই সাথে পাল্লা দিয়ে সমানুপাতিক হারে বেড়ে চলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান, অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্সের মতো উন্নত দেশগুলোর আক্রান্ত ও মৃতের হার। করোনা আক্রান্তের শীর্ষের অবস্থানেই রয়েছে পাশ্চাত্যের প্রভু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গত ২৯শে জুন পর্যন্ত সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ২,৬৩৭,০৭৭; যেখানে মৃতের সংখ্যা ১,২৮,৪৩৭। সেখানে মৃতের শতকরা হার ৪.৮৭% প্রায়। এর পরেই অবস্থান করছে ব্রাজিল ও রাশিয়া। করোনা আক্রান্তের দিক দিয়ে এশিয়া মহাদেশের শীর্ষ স্থান দখল করেছে ভারত। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৪৯,১৯৭। এবং মৃতের সংখ্যা ১৬,৪৮৭। সেখানে মৃতের হার প্রায় ৩.০০%। দক্ষিণ এশিয়ায় ভারতের পরেই পাকিস্তানের অবস্থান। সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২,০৬,৫২১; যেখানে মৃতের সংখ্যা ৪,১৬৭। অর্থাৎ, মৃতের শতকরা হার ২.০১% প্রায়। তারপরের জায়গাটি দখল করেছে বাংলাদেশ। বৈশ্বিকভাবে করোনা আক্রান্তের দিক দিয়ে ভারতের অবস্থান ৪র্থ, পাকিস্তানের অবস্থান ১২তম ও বাংলাদেশের অবস্থান ১৮তম। বিশ্বব্যাপী করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ১০,২৫১,১৭৩ ও মোট মৃতের সংখ্যা ৫,০৪,৫২০ এবং তন্মধ্যে সুস্থ হবার সংখ্যা ৫,৫৫৮,২৫৪।(সূত্রঃ জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটি ও ওয়ার্ল্ডোমিটারস)

করোনা দূর্যোগের এই প্রভাবে বিশ্ব অর্থনীতিও আজ হুমকির মুখে। এমনই এক সংকটকালীন সময়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্তৃক কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকান্ড ঘটে। আর, এ হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে মার্কিনিরা সামাজিক দূরত্ব উপেক্ষা করে রাস্তায় নামে শুধুমাত্র আগামী দিনের অপমৃত্যু থেকে একটুখানি বাঁচার আশায়। তারা হোয়াইট হাউস ঘেরাও করে আন্দোলন করে শুধুমাত্র জীবনের নিরাপত্তার আশায়। জীবনের এ শঙ্কার কাছে করোনা আতঙ্ক যেন খুবই সামান্য। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাধারণ জনগণ যখন নিজেদের জীবন বাঁচাতে ব্যস্ত, ঠিক তখনি দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় লাদাখ সীমান্তে চীন-ভারত সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। উন্নত বিশ্বের এ রাষ্ট্রসমূহ কতটা জনবান্ধব, কতটা মানবতাপ্রেমী, তা এসকল উদাহরণ থেকে খুব ভালো ধারণা পাওয়া যায়। যেখানে, করোনা একটি বৈশ্বিক মহামারী হিসেবে আত্নপ্রকাশ করেছে, তা মোকাবেলায় বিশ্বনেতাদের মাঝে ঐক্য ও সম্প্রীতির সন্ধান করতে চেয়েছিলো সাধারণ মানুষ। কিন্তু, সেই আশা আজ মানুষের হতাশায় রূপ নিয়েছে।

আর এ হতাশা থেকে উত্তরণের পথ হিসেবে বিশ্ব ক্রমান্বয়ে যে এক অস্বাভাবিকতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তা দূরীভূত করার নেপথ্যে গুটিকয়েক প্রশ্ন হাজির করা যেতে পারে। তা হলোঃ আমরা কী আগামী দিনের বাতাসে বুক ভরে নিঃশ্বাস নিতে চাই? আমরা কী চাই ঐ মুক্ত বাতাস; যেখানে সুস্থভাবে বাঁচতে মাস্কের প্রয়োজন হবে না?আমরা কী ঐ অর্থনীতি চাই, যেখানে বিশ্বের প্রতিটি মানুষের তিনবেলার আহার নিশ্চিত হবে?আমরা কী আবার আমাদের আপনজনের সাথে করমর্দন করতে চাই, তার সাথে বসে সরাসরি প্রাণখুলে কথা বলতে চাই?আমরা কী চাই, আমাদের আগামী ভবিষ্যৎকে এক সুন্দর সাম্যের পৃথিবী উপহার দিবো, যেখানে ভেদাভেদ, অন্যায়, হানাহানি থাকবে না?আমরা কী চাই ঐ পৃথিবী; যেখানে সকালে মায়ের ডাকে সাড়া দিয়ে শিশু ঘুম থেকে উঠে নাস্তা খেয়ে দেশ ও মানবসেবার ব্রত নিয়ে স্কুলে যাবে?

এসকল প্রশ্নের উত্তর যদি হ্যাঁ হয়, তাহলে আজ আমাদের এই উঁচু-নীঁচু, ধনী-গরীব, জাতি-বিজাতি র ভেদাভেদ ভুলে ঐক্য ও সম্প্রীতির সাথে নবউদ্যমে কাজ করতে হবে। প্রকৃতির সাথে এতদিন আমরা যা অন্যায় করেছি, তার ক্ষতিপূরণ হিসেবে এই শূন্যপ্রায় প্রকৃতিকে নতুন করে সাজাতে হবে। বনাঞ্চল গড়ে তুলতে হবে, মানবসভ্যতার পাশাপাশি সৃষ্টির সকল জীবকে পৃথিবীর বুকে সুস্থভাবে নিঃশ্বাস নিতে দিতে হবে। তাহলে, প্রকৃতি আর আমাদের প্রতি এ ধরণের বিরূপ প্রতিশোধ নেবে না। তুলনামূলকভাবে দূর্বল অর্থনীতিগুলোকে সচল করতে বিশ্বনেতাদের নিঃস্বার্থভাবে এগিয়ে আসতে হবে। সর্বোপরি, পৃথিবীর সকল মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে এবং সমগ্র সৃষ্টিকূলে বিশ্বভ্রাতৃত্বের জাগরণ ঘটাতে হবে। তবেই, আবার হাসি ফুটবে শিশুটির মুখে, জেগে উঠবে এক নতুন পৃথিবী, যেখানে থাকবে না হিংসা বিদ্বেষ, ক্রোধ আর অস্ত্রের ঝনঝনানি, থাকবে শুধু সুখসাম্যের এক মুক্ত বিহঙ্গের ধ্বনি। আজকের করোনা প্রেক্ষাপটকে সামনে রেখে আগামী দিনের বিশ্ববাসীর প্রতি এই শুভকামনা রইলো।।

প্রচ্ছদঃ লেখক
লেখকঃ মোঃ নাঈম হোসেন চৌধুরী
শিক্ষার্থী, ২য় বর্ষ
ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ
মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
ইমেইলঃ mdnayeemchowdhury279@gmail.com


  • 150
    Shares

Related Articles