রাজধানী

রাজধানী মোহাম্মদপুর ৩৪ নং ওয়ার্ড এখন ঘরের ভিতরে ঘর


নিজস্ব প্রতিনিধিঃ কাউন্সিলর এক, আছে লিঙ্গ ভেদাভেদ। মমতার আচল, শাসনের সুর, রাজধানী মোহাম্মদপুর ৩৪ ওয়ার্ড এখন ঘরের ভিতরে ঘর।রাজনীতিকে অর্থনীতি দিয়ে অনেকেই দমননীতি আবিস্কার করেছিল, মোগল থেকে নবাব, বৃটিশ থেকে পাকিস্তান, মোটুরা অর্থের প্রভাবে রাজনীতি কে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করেছে।দেশীয় কিছু দালাল তাদেরকে সহায়তাও করেছে, এখনো চলছে। তবে রাজনীতিকে কখনো অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি, একরোখা আপোষহীন বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম এক নয়াদিগন্ত সৃষ্টি করেছে রাজনীতিতে।আমরা ছিনিয়ে আনতে পারি, পরাধীনতার মুক্ত বাতাস স্বাধীনতা, এনেছি। মনকে শতভাগ মুক্ত করতে পারিনি।

বৃটিশ, পাকিস্তানের দালালদের প্রেআত্না এখনো বহিছে বাংলার আকাশে বাতাসে।এদেরকে চেনা বড় দায়, আপনার আত্নার সাথে মিশে যাবে, রক্তের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলবে, অসহায়ত্ব দুর করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করতে পারলে, বড় হওয়ার বাসনায় পেয়ে বসে। ভিন্নমত, ভিন্নপথ জাতির জন্ক সঠিক নির্দেশক হতে দেখলাম না।

বিএনপি-জামাত থেকে আসা অনেকের চরিত্র বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে অপরিবর্তিত, হিংস্রতা থেকে ওরা কখনো মুক্ত হতে পারেনি। প্রতিশোধের আশায় ঘরের ভিতর ঘর বানাতে দেখেছি, দলের মাঝে দল, মিজান চৌধুরী, রাজ্জাক, ফরিদ গাজী, ডঃ কামাল হোসেনরা পারে নাই। রাজনৈতিক ব্যবসায়ীদের জন্য আওয়ামী লীগ নয়, তারা জানে।

আওয়ামী লীগ ছাড়া জনগণ ভোট দিবে না, তাও জানে। আওয়ামী লীগকে ব্যবহার করে নির্বাচনি বৈতরণী পার হওয়ার পরে লুটেরাদের চরিত্র পরিবর্তনতো আর করতে দেখলাম না। লুটের জন্য একটা দল চাই। মুজিব আদর্শ বিক্রি হয় না, দয়া দাহ্মিনে বিলানো হয়। এই সুযোগ নিয়ে অর্থের পাহাড় গড়তে ফন্দি ফিকির করতে দেখেছি, অর্থের প্রয়োজন মিটাতে দেখেছি, রাজনৈতিক সফলাতা দেখি নাই। আস্তা কুড়ে নিহ্মিপ্ত হতে দেখেছি, মুজিব আদর্শের হতে পারেন নাই, চেষ্টাও করেন নাই, ভালো হয়ে যাওয়ার ভয়ে।

একি কাউন্সিলর লিঙ্গ ভেদাভেদ, একজন দলের আদর্শে গড়া মায়ের আচল দিয়ে জাতি ধর্ম নির্বিশেষে প্রতিটি ঘরে ঘরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য সহায়তা দলের মাধ্যমে পৌছিয়ে দিচ্ছেন নিজ হাতে। আহত, দুস্ত, অসহায়, নিঃস্ব নেতা কর্মীদের পাশে দাড়াচ্ছেন, মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ সাদেক খানের সহায়তা, সহযোগিতা ও সালাম পৌচাচ্ছেন, নিজেকে ছোট রেখে মানুষের মনের মাঝে কত বড় স্থান করে নিচ্ছেন, চোখে না দেখলে বিশ্বাস করতেও কষ্ট হতো।

জাতির জনকের অনুসারীদের একমাত্র ভালোবাসাই সম্বল। হাওলাত করে অনেক নেতা, চেয়ারম্যান মেম্বর কাউন্সিলর এমপি মন্ত্রী আমরা বানিয়েছি, দলের আদর্শের যাথে যুক্ত নয়, মাওলা, রব এমপি, মন্ত্রী। রাজিব-মিজান’সহ অনেক উদাহরণ দেওয়া যাবে। নাম বলতে চাই না এখনো কিছু আপদ বালাই আমাদেরকে বহন করতে হচ্ছে, দলের প্রয়োজন নাই, এমপির নির্দেশে, আদেশ উপদেশ নিয়মনীতি তোয়াক্কা করে না, শাসনের সুর বাজিয়ে চলছে। মোবাইল চোর, বাবা ব্যবসায়ী, খাদ্য সহায়তা আত্নসাদ কারীদের সফর সঙ্গী দেখা যায়, ইচ্ছায় না অনইচ্ছায় বুঝাবড় দায়।

মাদক নির্মুলের নির্বাচনী ওয়াদা হয়তো মনে নেই, সরকারকে বিব্রত হতে হচ্ছে। করোনা ভাইরাস আতঙ্কে চলছে দেশ। চিরকাল কি এমনিতে চলবে দুইচারটা দালাল দিয়ে দলে আদর্শ বিচুক্ত করবেন, মনে করার কোনো কারন নাই। আওয়ামী লীগ আপনার নির্বাচনী অঙ্গিকার আদায় করে নিবে, পুরন করতে হবে এলাকার জন নিরাপত্তা। শেখ হাসিনার বাঙ্গালী প্রেমি মনটা, বাংলা ভাষাকে ভাগ করতে পারবেন না, বৃথা চেষ্টা, বিফল হবেই। যারা দল ভাগ করার ইজারা নিয়ে দলের ভিতরে আগমন করেছেন, তারা বড়যোর ওয়ান টাইমস বলপেন। লেখকঃ বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব ও রাজধানী মোহাম্মদপুর থানার ৩৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামলী লীগের সভাপতি জনাব রবিউল আলম।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button