রাত ৪:২৩ শনিবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

সরকার আসলে কী চায়?

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ৪, ২০১৮ , ১১:৩৫ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

আমরা ভীষণ বিভ্রমে আছি। সরকার আসলে কী চায়, সেটি বুঝতে পারছি না। সরকারের মন্ত্রীরা কয়েক দিন ধরেই বলে যাচ্ছেন, ছাত্রদের নিরাপদ সড়ক আন্দোলন যৌক্তিক। দেশের মানুষকে তারা নৈতিক সাহস জুগিয়েছে। আবার কেউ কেউ অনুপ্রবেশের ধুয়া তুলে ছাত্রদের হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন। কিন্তু দাবি পূরণের বিষয়ে সরকার এখনো পর্যন্ত কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি।

 

 

সকালে রাজধানীর পরিবেশটি বেশ শান্ত ও সুস্থির ছিল। কোথাও কোনো গোলযোগ নেই। উত্তেজনা নেই। ঢাকার বাইরেও শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। তারা সড়কের মোড়ে মোড়ে অবস্থান নিয়ে গাড়ির কাগজপত্র পরীক্ষা করছিল। এ কাজে পুলিশও তাদের সহায়তা করেছে। একটি উদাহরণ দিই। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে হলুদ নম্বরপ্লেটের একটি প্রাইভেট কার শাহবাগ মোড়ে আসে। দ্রুতগতির ওই গাড়িটি থামিয়ে শিক্ষার্থীরা লাইসেন্স দেখতে চাইলে চালক দ্রুতগতিতে মোড় পার হয়ে যাওয়ার সময় এক শিক্ষার্থীকে ধাক্কা দেন। তখন শিক্ষার্থীরা দৌড়ে গাড়িটির পিছু নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও জাতীয় জাদুঘরের মাঝে থাকা পদচারী-সেতুর নিচে আটকে দেয়। কিছুক্ষণ পর শাহবাগ থানার পুলিশ এসে গাড়িটিকে থানায় নিয়ে যায়।

 

রাজশাহীর ঘটনাটি আরও চমকপ্রদ। সকাল ১০টা থেকে নগরের বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা সাহেববাজার এলাকায় বড় মসজিদের সামনে জড়ো হতে থাকে। এ সময় পুলিশের সদস্যরা তাদের চারপাশ থেকে ঘিরে রেখে নিরাপত্তা দেয়। বেলা সাড়ে ১১টার পর নগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমান উল্লাহ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমাদেরও সন্তান আছে। তাদের ভালোবাসি। তাই আমরাও তোমাদের দাবির সঙ্গে একমত। তোমরা নিরাপত্তা চেয়েছ, আমরা দিয়েছি। তোমাদের কর্মসূচি সবাই দেখেছে, জেনেছে। এখন তোমরা ঘরে ফিরে যাও। পড়ার টেবিলে বসো।’ শিক্ষার্থীরা তখন ওসির কাছে আরও ১৫ মিনিট সময় চায়। ওসি রাজি হন। এরপর দুপুর ১২টার দিকে শিক্ষার্থীরা কর্মসূচি শেষ করে ঘরে ফিরে যায়।

 

 

এর আগে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে সহযোগিতা করায় শিক্ষার্থীরা দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের ফুল উপহার দেয়। বিনিময়ে পুলিশ কর্মকর্তারা তাদের হাতে চকলেট তুলে দেন। শিক্ষার্থী ও পুলিশের মধ্য এ রকম সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক কমই দেখা যায়। শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ছিল শান্তপূর্ণ ও সুশৃঙ্খল। তারা আইন নিজের হাতে না নিয়ে পুলিশকেই দায়িত্ব দিয়েছে মামলা করার। আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার।

 

 

কিন্তু লেখাটির যখন শেষ করে এনেছি তখনই খবর পেলাম পিলখানা-ঝিগাতলার দিকে ছাত্রছাত্রীদের শান্তিপূর্ণ সমাবেশ ও অবস্থানে কিছু যুবক হামলা চালিয়েছে। তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন পুলিশ বাহিনীর সদস্যরাও। গত বৃহস্পতিবার মিরপুরেও আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছিল। তখন ভেবেছিলাম, সেটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা। এখন দেখা যাচ্ছে, বিচ্ছিন্ন নয়, পরিকল্পিত। দুদিন ধরে বলপ্রয়োগ করে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন দমন করা হবে বলে যে গুঞ্জন চলছিল, সেটাই তাহলে সত্যি হলো? এ ঘটনার পর থেকেই অভিভাবকেরা দুশ্চিন্তায় আছেন। দেশের ভেতর থেকে তো বটেই, বাইরে থেকেও টেলিফোন করে অনেকে ছাত্রদের খবর জানতে চেয়েছেন। জিজ্ঞেস করেছেন, কতজন আহত হয়েছে? আহত শিক্ষার্থীরা কোথায় আছে?

 

 

প্রথম আলোর আলোকচিত্রী ছবি তুলতে গেলে আক্রমণকারীরা তাঁর ক্যামেরা কেড়ে নেন। এরপর আলোকচিত্রী ক্যামেরা ফেরত চাইলে তাঁদের একজন বলেন, ধানমন্ডির ৩ নম্বর সড়কে আওয়ামী লীগ অফিস থেকে নিয়ে যেতে। আওয়ামী লীগ অফিসের সঙ্গে আক্রমণকারীদের কী সম্পর্ক? এটি কি আওয়ামী লীগকে অপদস্থ করতে কেউ করেছেন, না সত্যি সত্যি দলের উৎসাহী কর্মীরা নিরীহ শিক্ষার্থীদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছেন?
এই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে একমাত্র আওয়ামী লীগই।

 

 

অনেকে বলেছেন, আন্দোলনের কারণে শহরে যানবাহন কম। সাধারণ মানুষের কষ্ট হয়েছে। কিন্তু এ জন্য ছাত্রদের দোষ দেওয়া যায় না। তারা একটি গাড়িও আটকায়নি। বৈধ কাগজপত্র না পেলে পুলিশের হাতে দিয়ে বলেছে, মামলা করতে। ছাত্রদের একটি আইনানুগ কাজকে নিন্দিত করতে পরিবহনের মালিক–শ্রমিকেরাই সড়কে বাস চালানো বন্ধ রেখেছেন। তাঁরা নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে জনগণের ওপর প্রতিশোধ নিচ্ছেন। সরকারের কোনো কোনো মহলের উৎসাহ ও প্ররোচনা না থাকলে তাঁরা কখনোই এই কাজটি করতে পারতেন না।

 

 

এখন যে প্রশ্নটি সামনে এসেছে তা হলো, সরকার কি চায় শান্তিপূর্ণ উপায়ে সমস্যার সমাধান হোক? সেটি চাইলে শিক্ষার্থীদের ন্যায্য দাবি মেনে নিতে হবে।

 

 

যে শিক্ষার্থীদের শ্রেণিকক্ষে থাকার কথা, তারা কেন রাস্তায় ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ করছে, সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে হবে। তারা কেউ ব্যক্তিগত বা গোষ্ঠীগত স্বার্থের জন্য রাস্তায় নামেনি। তারা চাইছে নিরাপদ সড়ক। বাসা বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে বেরিয়ে যাতে সবাই নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে, সেই নিশ্চয়তাটুকু চায় শিক্ষার্থীরা। তারা হাতে–কলমে দেখিয়ে দিল, এত দিন অনেক চালকই ভুল করেছেন। পরিবহনের মালিকেরা ভুল করেছেন। সরকার ভুল করেছে। এই ভুল ধরিয়ে দেওয়ার পুরস্কার কি লাঠিপেটা?

 

 

দেশের সাধারণ মানুষও চায় দ্রুত এই আন্দোলন শেষ হোক। সরকারও চায় এর অবসান হোক। কিন্তু সেটি তো শিক্ষার্থীদের দাবি পূরণ ছাড়া সম্ভব হবে না। আজ সমাবেশে থাকা একজন শিক্ষার্থী বলেছে, দাবি আদায়ে বিষয়ে তারা আশ্বাসে বিশ্বাসী না। নয় দফার মধ্যে একটি হলো নৌমন্ত্রীর নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা। এসব দাবি না মানা পর্যন্ত তারা রাজপথ ছাড়বে না। সরকার নয় দফা দাবি মেনে নিয়েছে কিন্তু বাস্তবায়ন করেনি। তারা চায় বাস্তবায়ন।সরকার যদি সত্যি সত্যি সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধান চায়, তাহলে শিক্ষার্থীদের দাবির বিষয়ে এখনই বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ নিক। কথিত নিরাপত্তার অজুহাতে পরিবহন মালিক–শ্রমিকেরা যে দেশব্যাপী বাস ধর্মঘট চালাচ্ছেন, তার অবসান ঘটাক।প্রথম আলো

Comments

comments