সন্ধ্যা ৭:২৪ বুধবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

যশোরের বাগআঁচড়া ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মতবিনিময় | কাঠালিয়ায় মাদকদ্রব্য উদ্ধারে সহায়তা করায় গ্রাম পুলিশকে পুরুস্কৃত করলেন ওসি | পলাশবাড়ীতে ৬৫ বোতল ফেন্সিডিল সহ এক মহিলা আটক | বীরগঞ্জে সাপের কামড়ে কিশোরের মৃত্যু | মির্জাপুরে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু | বীরগঞ্জে ছিনতাইকারী ডলার চক্রের প্রতারক ওসি পরিচয়দানকারী গ্রেফতার | পরিচ্ছন্নকর্মীর জন্য গাবতলী সিটি পল্লীতে আবাসনের ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে: মেয়র আতিকুল | বাজারে এলো ৫ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারিযুক্ত ‘অপো এ৯ ২০২০’ | ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিন উদ্বোধন করলো ইসলামী ব্যাংক | প্রিমিয়ার ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর |

৪ জনকে হত্যা ও ৪ জন ছাত্রী ধর্ষণ’ এর গুজবটি ছড়ায় যারা

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ৪, ২০১৮ , ১১:২৫ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : দেশজুড়ে
পোস্টটি শেয়ার করুন

রাজধানীর জিগাতলায় দিনভর যে তুলকালাম তার পেছনে রয়েছেন অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদসহ বেশ কয়েকজন নারী এবং একজন তরুণ। ইতমধ্যে অভিনেত্রী নওশাবা গ্রেফতার হয়েছেন।এদের মধ্যে ফেসবুক লাইভে এসে তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে দুই জনকে হত্যা এবং একজনের চোখ তুলে নেয়ার কথা জানান নওশাবা। আর গায়ে কাপড় না থাকা একটি ছেলে ছড়ায় চারজনকে ধর্ষণের গুজব।

 

 

মুখ ঢাকা তিনজন মেয়ে ছড়ায় চারজনকে হত্যা এবং চার জনকে ধর্ষণের কথা। সবার বক্তব্য মোটামুকি একই রকম। সব মেয়েই বলেছে, আওয়ামী লীগের ধানমন্ডির কার্যালয়ের ভেতরের কথা। কিন্তু বাইরে থেকে সেখানে কী হয়েছে, বা সংখ্যাটি কীভাবে জানলেন, সেটি জানা যায়নি। আবার একজন তরুণের বর্ণনা হাস্যকর। বলেন, ‘হামলা করে ডাইরেক্ট রেপ।’ তার মানে ঘটেছে রাস্তাতেই।

 

 

আর এই খবরে রাজধানীর জিগাতলা এলাকায় এসব ঘটনার খবরে উত্তেজিত হয়ে সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে নিরাপদ সড়কের দাবিতে অবস্থান নেয়া শিক্ষার্থীরা হামলা করে ধানমন্ডি ৩/এ তে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে। আর পাল্টা হামলা-ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় দিনভর হয় তুলকালাম।পরে অবশ্য সন্ধ্যায় ছাত্রদের দুটি প্রতিনিধি দল কার্যালয় ঘুরে এসে বলেন, সেসব গুজব ছিল।

 

 

সবচেয়ে বেশি আলোচিত অভিনেত্রী নওশাবা

যারা গুজব ছড়িয়েছে তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচিত ‘ঢাকা অ্যাটাক’ চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদ ফেসবুক লাইভের বিষয়টি। কারণ, অন্য যে মেয়েরা এই লাইভে এসে এই গুজব ছড়িয়েছে তারা সবার মুখ ঢেকে কথা বলেছে। একজন ছিল বোরকা পরা এবং বাকি দুই জন কলেজের পোশাক পরা। কিন্তু মুখ ঢাকা।অভিনেত্রী নওশাবা হাঁপাতে হাঁপাতে কান্নামুখর হয়ে বলছেন জিগাতলায় একজনের চোখ তুলে ফেলা ও দুই জনকে মেরে ফেলা হয়েছে।

 

 

‘আমি কাজী নওশাবা আহমেদ, আপনাদের জানাতে চাই। একটু আগে ঝিগাতলায় আমাদেরই ছোট ভাইদের একজনের চোখ তুলে ফেলা হয়েছে এবং দুইজনকে মেরে ফেলা হয়েছে। আপনারা সবাই একসাথে হোন প্লিজ। ওদেরকে প্রোটেকশন দেন, বাচ্চাগুলো আনসেভ অবস্থায় আছে, প্লিজ। আপনারা রাস্তায় নামেন, প্লিজ রাস্তায় নামেন, প্লিজ রাস্তায় নামেন এবং ওদেরকে প্রোটেকশন দেন।’

 

 

‘সরকার প্রোটেকশন দিতে না পারলে আপনারা মা-বাবা, ভাই-বোন হয়ে বাচ্চাগুলোকে প্রোটেকশন দেন, এটা আমার রিক্যুয়েস্ট। এদেশের মানুষ-নাগরিক হিসেবে আপনাদের কাছে রিক্যুয়েস্ট করছি যে, ঝিগাতলায় একটি স্কুলে একটি ছাত্রের চোখ তুলে ফেলা হয়েছে এবং দুইজনকে মেরে ফেলা হয়েছে এবং ওদের অ্যাটাক করা হয়েছে। ছাত্রলীগের ছেলেরা সেটা করেছে। প্লিজ ওদের বাঁচান প্লিজ। তারা ঝিগাতলায় আছে।’

 

 

যা বলেছেন নওশাবা

 

 

ঘটনার পরপরই যোগাযোগ করা হয় এই অভিনেত্রীর সঙ্গে। তিনি  বলেন, ‘জিগাতলা শুধু সমস্যা বিশাল সমস্যা। আপনারা মিডিয়া কাভারেজটা ওই দিকে দেন। বাচ্চা বাচ্চা ছাত্রদের গুলি করা হচ্ছে।’কোন সাইটে এই ঘটনা ঘটছে জানতে চাইলে নওশাবা বলেন, ‘এটা জিগাতলার দিকে বিজিবির ওই সাইটে হচ্ছে।’ওটা তো কিছুক্ষণ আগে ছিল এখন তো নিয়ন্ত্রণে এমন প্রশ্নে উত্তরে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আপনার কি মনে হচ্ছে সব নিয়ন্ত্রণে।’

 

 

‘আমার জানা মতে যতটুকু শুনেছি চারজনকে রেপ করা হয়েছে। আপনারা যদি ওখানে কাভারেজটা দেন তাহলে ভালো হয়।’‘আপনারা ছাত্রদের ভালো সময় থাকবেন খারাপ সময় থাকবেন না তা তো হয় না। ওখানে আরো মেয়ে আটকা আছে তাদের হেল্প করেন। অনেককে কোপানো হয়েছে তারা ঢাকামেডিকেলে ভর্তি সেখানে যান খোঁজ নেন। আপনারা যা তথ্য চান দিচ্ছি কীভাবে নেবেন বলেন।’

 

 

বোরকা পরা তরুণীর চিৎকার

 

 

রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে এক তরুণী চিৎকার করে বলতে থাকেন, ‘জিগাতলাতে তাদের পার্টি সেন্টারে অনেক অনেক মেয়েকে রেপ করা হচ্ছে। প্লিজ কিছু করেন।’মেয়েটির মুখ এমনিতেই ঢাকা ছিল। কিন্তু রেকর্ডিংয়ের সময় তার সেই মুখেও ক্যামেরা ধরা হয়নি।চিৎকার করে ওই তরুণী যা যা বলতে থাকেন তার সব বুঝা যায় না। যতটুকু বুঝা যায় সেটুকু হলো, ‘ওরা গুলি করতেছে, ওরা কি ছাত্র? ওরা কি আদৌ কোনো ছাত্র?’

 

 

এটি যখন রেকর্ড করা হচ্ছিল, তখন দুই তরুণকে পেছন থেকে দেখা যায়। তবে তারা ক্যামেরার সামনে আসেনি। ফলে তাদের চেহারা দেখা যায়নি।মেয়েটি বলতে থাকেন, ‘জিগাতলা পার্টি সেন্টারে প্রতিটা ছাত্ররে ঢুকাইয়া ঢুকাইয়া গুলি করতাছে, প্লিজ।’মেয়েটি দাবি করতে থাকে, সেখানে সাধারণ মানুষসহ অনেকের রক্ত ঝরেছে এবং তাতে তিনি নিজেও ছিলেন। তবে কার্যালয়ের ভেতরে আহত হলে তিনি কীভাবে বের হলেন, সেটা বলেননি।’

 

 

পপুলারের ভেতর থেকে ঢাকা আরেক তরুণীর রেকর্ডিং

 

 

এই তরুণী দাবি করতে থাকেন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে মারা হয়েছে সাত জনকে, ধর্ষণ করা হয়েছে চার জনকে।এই তরুণী কথা বলেছেন একটি কাঁচ ঘেরা কক্ষে। পরে তিনি নিজেই জানান ধানমন্ডিতে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে দাঁড়িয়ে কথা বলছেন।এই তরুণী বলতে থাকেন, ‘ছাত্রলীগের কর্মীরা বস্তি থেকে ছেলেদেরকে নিয়ে এসে তাদেরকে স্কুলের পোশাক দিয়েছে, তাদের আইডি কার্ডও দেয়া হয়েছে।’

 

 

‘আবদুর রউফের স্টুডেন্ট ছিলাম’

 

 

আরেকজন তরুণের কথা ফেসবুকে ছড়িয়েছে যিনি একটি সাক্ষাৎকারের মতো দেন। নিজের পরিচয় জানতে চাইলে তিনি নাম বলেননি। বলেন, ‘আমি বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আবদুর রউফ পাবলিক স্কুলের স্টুডেন্ট ছিলাম, এখন পরীক্ষা দিয়ে বাইর হয়ে গেছি।’এই তরুণের বর্ণনা পুরোপুরি অবিশ্বাস্য। বলেন, ‘আমাদের ওপর প্রথমে জিগাতলায় হামলা হয়েছে। চারজন মেয়ে ডাইরেক্ট রেইপড।’‘আমি খবর পাইছি চার জনকে গুলি করা হয়েছে। একজন মারা গেছে।’

 

 

‘আমাদের ভিডিওটা ভাইরাল করেন’

একসঙ্গে দুইজন তরুণী রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে সাক্ষাৎকার দেন। একজন বলেন, ‘চাইরজনকে রেইপড করা হয়েছে।’আরেকজন তরুণী বলেন, ‘মিডিয়া এখানে আসছে না কেন। এই ভিডিওটা ভাইরাল করেন।’

Comments

comments