সন্ধ্যা ৭:২৬ বুধবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

যশোরের বাগআঁচড়া ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মতবিনিময় | কাঠালিয়ায় মাদকদ্রব্য উদ্ধারে সহায়তা করায় গ্রাম পুলিশকে পুরুস্কৃত করলেন ওসি | পলাশবাড়ীতে ৬৫ বোতল ফেন্সিডিল সহ এক মহিলা আটক | বীরগঞ্জে সাপের কামড়ে কিশোরের মৃত্যু | মির্জাপুরে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু | বীরগঞ্জে ছিনতাইকারী ডলার চক্রের প্রতারক ওসি পরিচয়দানকারী গ্রেফতার | পরিচ্ছন্নকর্মীর জন্য গাবতলী সিটি পল্লীতে আবাসনের ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে: মেয়র আতিকুল | বাজারে এলো ৫ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারিযুক্ত ‘অপো এ৯ ২০২০’ | ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিন উদ্বোধন করলো ইসলামী ব্যাংক | প্রিমিয়ার ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর |

ঢাকায় গোপন সফরে মোদির ঘনিষ্ঠ সহকারী: বাংলাদেশ প্রশ্নে সক্রিয় আরএসএস

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ৪, ২০১৮ , ১১:১১ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

২৪ জুলাই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একজন ঘনিষ্ঠ সহকারী দুজন গোয়েন্দা কর্মকর্তাকে সাথে নিয়ে ঢাকা আসেন। ধারণা করা যায়, কোন গোপন সফরেই তারা ঢাকা এসেছিলেন। যদিও তাদের সফরের প্রধান কারণ জানার উপায় নেই, তবে সফরকারীর সাথে মোদি ও রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ বিশেষ করে সংগঠনটির গুজরাট শাখার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ বাংলাদেশে আগামী নির্বাচনের আগের মাসগুলোতে হিন্দুত্ববাদী আরএসএসের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তৈরি করেছে।ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর ওই সহকারীর পরিচয় অবগত হলেও আইনগত কারণে তা প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকছে। ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর ওই সহকারী ঢাকায় দুই দিন ছিলেন। ভারতীয় দূতাবাসের কর্মকর্তারা ছাড়াও বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের কিছু নেতাদের সাথে বৈঠক করেছেন তারা।

 

ভারত ও বাংলাদেশের জ্ঞাত সূত্রগুলো মোদির সহকারীর সফরের ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছেন আরএসএসের সাথে যার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে। এই সংগঠনটি বিগত দুই বছর ধরে ভারত বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী বিভিন্ন রাজ্যে বেশ সক্রিয় হয়ে উঠেছে।একই সময়কালে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় বেশ কিছু ছোট কিন্তু আলাদা হিন্দু সংগঠন গড়ে উঠেছে। বিশেষ করে পশ্চিম বঙ্গ এবং ত্রিপুরার সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে এই সংগঠনগুলো গড়ে উঠেছে। এই সংগঠনগুলোর মধ্যে সবচেয়ে প্রভাবশালী ও শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে জাতীয় হিন্দু মহাজোট। এর নেতৃত্ব দিচ্ছেন গোবিন্দ প্রামানিক। বহু বছর আগে যে পাঁচ ব্যক্তি ঢাকায় এক প্রকাশ্য অনুষ্ঠানে জামায়াতে ইসলামির আমীর গোলাম আজমকে ফুলের মালা দিয়েছিলো, তিনি তাদের একজন।

 

 

বাংলাদেশী ও ভারতীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে যে, অন্যান্য এ ধরণের সংগঠনগুলো – যেমন ঢাকার সুকৃতি কুমার মন্ডলের নেতৃত্বাধীন মাইনরিটি জনতা পার্টি, ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘ (ভোলাগিরি আশ্রম) এবং এমনকি একটি আন্তর্জাতিক হিন্দু সচেতনতা সংগঠন গড়ে উঠেছে বিগত বছর খানিকের মধ্যে, যারা হিন্দুত্ববাদী আদর্শ প্রচার করছে। ভারতীয় কিছু সীমান্তবর্তী রাজ্য যেমন পশ্চিম বঙ্গ ও ত্রিপুরাতে আরএসএস ধীরে হলেও এ ধরনের সংগঠনের মাধ্যমে তাদের শিক্ষা ছড়াচ্ছে এবং রাজনৈতিক শক্তি বাড়াচ্ছে। সাম্প্রতিককালে এ কাজে তারা যথেষ্ঠ সফলও হয়েছে।এই পরিপ্রেক্ষিতে, সূত্র জানিয়েছে যে, আরএসএস ত্রিপুরার একটি সীমান্তবর্তী অঞ্চলে একটি ‘ডিপ কাভার’ এলাকা তৈরি করেছে, যে পথে তারা সংগঠনের কর্মী ও ক্যাডারদের বাংলাদেশে ঠেলে দিচ্ছে যাতে তারা বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে বসবাসরত হিন্দুতের ‘শিক্ষিত’ করতে পারে। অন্যদিকে, বাংলাদেশী হিন্দুরাও এই আরএসএস ইউনিটের সাথে যোগাযোগ রাখছে।

 

 

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের চেয়ারম্যান রানা দাসগুপ্ত আরএসএসের উপস্থিতি ও তৎপরতার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি এটাও বলেন যে, সঙ্ঘ হিন্দুত্ববাদী শ্লোগান নিয়ে বাংলাদেশের হিন্দু সংখ্যালঘুদের মধ্যে প্রবেশও করতে পেরেছে। বাংলাদেশের জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের অধিকার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন দাসগুপ্ত। তিনি জানান যে, “গত দুই বছরে ইংরেজি, বাংলা ও হিন্দিতে লেখা হিন্দুত্ববাদী পোস্টার ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী গ্রামগুলোতে”।আরএসএস যদিও বাংলাদেশের হিন্দু সংখ্যালঘুদের মধ্যে হিন্দুত্ববাদী আদর্শ প্রচারের জন্য প্রথম ক্ষুদ্র পদক্ষেপ নিয়েছে, অন্যদিকে, আওয়ামী লীগের ছত্রছায়াতেই ইসলামপন্থীদের প্রসার ঘটেছে ব্যাপকভাবে। সম্প্রতি, মিডিয়া রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, শেখ হাসিনার সরকার বাংলাদেশের ৫৬০টি উপজেলায় মসজিদ নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছে। এই মসজিদগুলো নির্মাণের জন্য আনুমানিক ব্যয় হবে ৮,০০০ কোটি টাকা। সৌদি আরব সরকার এই অর্থ সহায়তা দেবে।

 

 

আওয়ামী লীগের সাবেক তথ্য মন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাঈদ খোলামেলা বলেন, তার দল সংখ্যালঘুদের রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে। সাঈদের ভাষায় “মুজিবুর রহমানের মৃত্যুর পর, সরকারের সমস্ত জায়গায়, সমাজে ও রাজনীতিতে পাকিস্তানী সংস্কৃতি এমনভাবে ছড়িয়ে পড়েছে যে সেটা এখন একটা বিষবৃক্ষে রূপ নিয়েছে”। সাঈদের মতে, “এর কারণ হলো যে স্ববিরোধিতা রয়েছে সেখানে – একদিকে সংবিধানে সেক্যুলারিজমের কথা বলা হয়েছে, অন্যদিকে রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে রয়েছে ইসলাম”।সাঈদের মতকে সমর্থন করছে বিভিন্ন জরিপের ফল ও পরিসংখ্যান। দেখা যাচ্ছে আওয়ামী লীগের দুই টার্মের ক্ষমতায় – ১৯৯৬-২০০১ এবং ২০০৮-বর্তমান পর্যন্ত সময়কালে সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতনের হার বহুগুণে বেড়েছে। বহু হিন্দু পরিবার ভারতে পাড়ি জমিয়েছে অথবা নিরবে নির্যাতন সহ্য করে যাচ্ছে।

 

 

মানবাধিকার সংগঠন অধিকারের মতে, ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত সময়কালে জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ১২৪ জন সদস্য নিহত হয়েছে যাদের বেশিরভাগই হিন্দু এবং বিভিন্ন হামলায় আহত হয়েছে ১৬২৫ জন। একই সময়ে, ৫০টি হিন্দু পরিবারকে লুট করা হয়েছে এবং মন্দিরে হামলা ও মূর্তি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে ৮৬৬টি। ৫০টি জমি দলখের ঘটনাও তালিকাবদ্ধ করেছে অধিকার। তবে হিন্দুদের বিরুদ্ধে অত্যাচারের পুরো চিত্র এখানে উঠে আসেনি। বাংলাদেশ মাইনরিটি কাউন্সিল তাদের রিপোর্টে বলেছে যে, “১৯৭১ সালের পর, আর কখনই হিন্দু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে হুমকি এত ব্যাপক মাত্রায় ছিল না, এখন যেমনটা রয়েছে”।

 

 

হিন্দু মহাজোটের সংরক্ষিত তথ্য অনুযায়ী, হিন্দুদের বিরুদ্ধে ১৫,০৫৪টি নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। এগুলোর মধ্যে হত্যা, হত্যাচেষ্টা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, মন্দির ও মূর্তি ভাংচুর, জমি দখল, হয়রানি, জোরপূর্বক ধর্মান্তরিতকরণ, ধর্ষণ, গণধর্ষণ এবং দেশ ছাড়ার জন্য হুমকি দেয়ার মতো ঘটনা রয়েছে। হিন্দু মহাজোটের হিসেবে ২০১৭ সালে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে ৬,৪৭৪টি।নিউ ইয়র্ক টাইমসে নভেম্বর মাসে এক সম্পাদকীয়তে বলা হয়, “আওয়ামী লীগ নিজেদের বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দল হিসেবে দাবি করে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের যে সব রাজনীতিবিদ ধর্মীয় সহিংসতা উসকে দেয়ার সাথে জড়িত, তাদেরকে শুধু বহিষ্কার করাই যথেষ্ট নয়, আরও কঠিন ব্যবস্থা নেয়া উচিত তাদের বিরুদ্ধে। হাসিনার সরকারের গ্রহণযোগ্যতাই এখন প্রশ্নের মুখে দাঁড়িয়েছে”।

 

 

দাসগুপ্তের ভাষায়, “হিন্দু সম্প্রদায়ের যে অতীত অভিজ্ঞতা রয়েছে, তাতে বলা যায় আগামী সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবরে সংখ্যালঘুদের অবস্থার আরও অবনতি হবে”। এ সময়টাতে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রচারণা এবং নির্বাচনী তৎপরতা বেড়ে যাবে। বিএনপি-জামায়াতকে তাদের শাসনামলে সঙ্ঘটিত অপরাধের জন্য দোষারোপ করলেও দাসগুপ্ত বলেন, সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থতার দায় অবশ্যই আওয়ামী লীগকে নিতে হবে, কারণ তারাই এখন ক্ষমতায় রয়েছে।

 

 

 

গত সাত বছরে, হিন্দুদের বিরুদ্ধে সহিংসতা একদিকে বেড়েছে, অন্যদিকে, সংখ্যালঘুদের প্রতিকূল অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে ভারত সরকারের অবস্থান নড়বড়েই রয়ে গেছে। দাসগুপ্ত বলেন, “ভারতীয় মন্ত্রী ও উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা যখন ঢাকা সফর করেছেন, তখন বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দলের ব্যর্থতা নিয়ে তারা কখনই প্রকাশ্যে কিছু বলেননি, যারা হিন্দুদের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে। তবে, গত দুই বছরে সুক্ষ্ম কিছু পার্থক্য দেখা যাচ্ছে। হিন্দুদের উপর যে সব জায়গায় হামলা হচ্ছে, ভারতীয় হাইকমিশনের কর্মকর্তারা সেই সব জায়গা সফর করছেন। হাইকমিশনের কর্মকর্তাদের অন্তত উদ্বিগ্ন মনে হচ্ছে”।

 

 

পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকদের একজন স্বীকার করেন যে, হিন্দুদের বিরুদ্ধে সহিংসতার কারণে গত কয়েক বছরে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকদের অভিবাসনের সংখ্যা ধারাবাহিকভাবে বেড়েছে। অর্থ পাঠানো সহজ হওয়ায় এবং গহনা থাকার কারণে এই অভিবাসন আরও সহজ হয়ে গেছে। এছাড়া ভীতির ব্যাপারও রয়েছে। বিশেষ করে নির্বাচনে আগে হিন্দুদের নিরাপত্তার ব্যাপারে ক্ষমতাসীন দল বা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর কেউই নিশ্চয়তা দেয়নি।

 

 

আওয়ামী লীগের এই নেতা একমত হন যে, হিন্দুদের ভীতির কারণে আরএসএস সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রবেশের সুযোগ পেয়েছে। গত দুই বছরে বাংলাদেশের হিন্দুদের ছোট ছোট গ্রুপকে ত্রিপুরার ক্যাম্পে ‘মোটিভেশনাল’ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। একই সাথে, বাংলাদেশের নিরাপত্তা কর্মকর্তারা এ খবরও পেয়েছেন যে ভারতের ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেটিং এজেন্সির (এনআইএ) একটি শাখা খোলা হয়েছে উত্তর ২৪ পরগনার সীমান্তবর্তী বারাসাতে। এই সংস্থাটি সন্ত্রাসবাদ ও মৌলবাদ নিয়ে তদন্ত করে। সূত্র জানিয়েছে, এনআইএ কর্মকর্তারা বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে অনাকাঙ্ক্ষিত আগ্রহ দেখান।

 

 

যদিও বিএনপি ও আওয়ামী লীগের মধ্যে রাজনৈতিক অচলাবস্থা চলছেই, তবু দুই দলের মধ্যেই এবং এমনকি নিরপেক্ষ পর্যবেক্ষকদের মধ্যেও এক ধরনের অস্থিরতা বিরাজ করছে। সেটা হলো ক্ষমতাসীন দল যদি নির্বাচনে হেরে যায়, বাংলাদেশের মৌলবাদীদের বিশেষ করে গ্রাম পর্যায়ের ক্যাডারদের একটা অন্যতম টার্গেট হবে হিন্দুরা। ঢাকার রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, নির্বাচন-পরবর্তী এই সঙ্ঘাতের আশঙ্কার কারণেই, বাংলাদেশের ব্যাপারে সক্রিয় হয়েছে আরএসএস।সাউথ এশিয়ান মনিটর

Comments

comments