দেশজুড়ে

শরীয়তপুরে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ হয়ে এক যুবকের মৃত্যু

  • 13
    Shares

মোঃ ওমর ফারুক, শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুরের জাজিরায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে রিয়াজ মাদবর (১৮) নামে একজন গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও ৭ জন গুলিবিদ্ধসহ ২০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন জায়গায় ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেনেরচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইসমাইল হোসেন মোল্লা। শনিবার সন্ধ্যায় জাজিরা উপজেলার সেনেরচর ইউনিয়নের চর ধীপুর সাকিমালী মাদবরকান্দি (বালিয়াকান্দি) গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জাজিরা থানার ওসি আজাহারুল ইসলাম ও স্থানীয়সূত্রে জানাগেছে, জাজিরা উপজেলার সেনের চর ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের সমর্থক মন্টু বেপারী ও আওয়ামী লীগের সমর্থক এমদাদ মাদবর ও করিম মাস্টার গ্রুপের মধ্যে দীঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। শনিবার আওয়ামী লীগের সমর্থক মন্টু বেপারীর লোকজন ও আওয়ামী লীগের সমর্থক করিম মাদবর ও এমদাদ মাদবরের লোকজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হলে বাড়ি থেকে লাইন্সেস করা শটগান নিয়ে মন্টু বেপারী, হারুন বেপারী এলোপাথাড়ি গুলি ছুঁড়েন।

এতে রিয়াজ মাদবর ঘটনাস্থলেই মারা যান। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। এ সময় আরও ৭ জন গুলিবিদ্ধ হন। এরা হলেন- আবুল বাশার বেপারী (২০), ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার রাজ্জাক মাদবর (২৮), সিমা আক্তার (২৫), তানজিল মাদবর (২৮), দেলোয়ার মাদবর (২৬), আশা মাদবর (৩৮), ইয়ার হোসেনসহ ২০ জন আহত হন।

এদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় আবুল বাশার বেপারী, তানজিল মাদবর ও দেলোয়ার মাদবরকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকি আহতদের জাজিরা উপজেলাসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

জাজিরা থানার ওসি আজাহারুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষ হয়। এতে করিম মাস্টার গ্রুপের একজন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। আরও ৭-৮ জন গুলিবিদ্ধ হন।


  • 13
    Shares

Related Articles