বিবিধ

প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

  • 74
    Shares

গত ২৭ জুন-২০২০ ইং তারিখে বিভিন্ন জাতীয়, আঞ্চলিক, অনলাইন পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে “অনৈতিক কর্মকান্ডঃ শাহজাদপুরে স্থানীয়দের হাতে নারীসহ আটক ছাত্রলীগ নেতা” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সাংবাদিককে মিথ্যা তথ্য দিয়ে উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে ঘটনার বিষয়ে মিথ্যা, অসত্য ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করায় আমি তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমি একটি রাজনৈতিক দলের কর্মী। কয়রা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক পদে আমি ন্যায়, নিষ্ঠা ও সততার সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছি। আমার ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তায় ঈর্ষাম্বিত হয়ে আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ একটি নোংরা খেলায় মেতে উঠেছে। আমি রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের শিকার।

সেদিন যা ঘটেছিল- উল্লাপাড়া উপজেলার কয়ড়া বাজারে আমার একটি ঔষধের দোকান রয়েছে। সেখানে আমি নিয়মিত ব্যবসা পরিচালনা করি। দোকানের ক্রেতা হিসেবে রত্না খাতুন আমার পরিচিত। সে আমার পাশ্ববর্তী কয়রা সড়াতৈল গ্রামের বাসিন্দা। পুর্ব থেকেই সে প্রতারক চক্র দলের সদস্য ও অসৎ চরিত্রের আমার জানা ছিল না। ক্রয়সুত্রে আমার একটি হোন্ডা মটর সাইকেল রয়েছে। যাহা শাহজাদপুরের অডিসি হোন্ডা শো রুম থেকে কিস্তিতে ক্রয় করা। ঘটনার আগের দিন রত্না খাতুন আমার দোকানে ঔষধ ক্রয়ের জন্য আসে। সেই মুহুর্তে হোন্ডা শো রুমের মালিকের সাথে আমার বাকী কিস্তি প্রদানের বিষয় আলোচনা হয়। আমি কোন সময় শাহজাদপুরে গাড়ীর কিস্তি প্রদানের জন্য যাব আমার ফোনালাপের মাধ্যমে রত্না সে বিষয়ে জেনে যায়। ঘটনার দিন ১২ টার দিকে আমার প্রতিপক্ষের উস্কানিতে আমি শাহজাদপুরের হোন্ডা শো রুমে পৌছার আগমুহুর্তেই প্রতারক রত্না খাতুন আমার মোবাইল ফোনে কল দিয়ে বলে ভাইয়া আপনি কোথায় ? জবাবে বলি আমি শাহজাদপুরে। রত্না খাতুন তখন কান্না জড়িত কন্ঠে বলে ওঠে আমিও শাহজাদপুর কোট চত্বর এলাকায় বিপদের মধ্যে আছি আমাকে উদ্ধার করুন। এলাকার মানুষ হিসেবে আমি সেখানে যাই। তখন রত্না বলে আমার বেশকিছু টাকা পাশের বাড়ীর একটি লোক ছিনিয়ে নিয়েছে। রত্না আমাকে সেই বাড়ীতে নিয়ে গেলে প্রতারক চক্রের সদস্যরা আমাকে ঘিরে ধরে এবং আমি বুঝতে না বুঝতেই আমাকে ঘরে আটকিয়ে আমার কাছে থাকা ৭০ হাজার টাকা দামের মোবাইল ও নগদ ২২ হাজার টাকা প্রতারক চক্র ছিনিয়ে নেয়। ঘরে আটকিয়ে আমাকে মারপিট শুরু করে তখন বুঝতে পারি রত্না প্রতারক চক্র দলের সদস্য। পরবর্তীতে আমার মোবাইল দি্েয়ই আমার বাড়ীতে ফোন দিয়ে ৪ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে প্রতারক চক্র। তখন আমার বাড়ীর লোকজন শাহজাদপুর থানায় যোগাযোগ করলে পুলিশ আমাকে উদ্ধার করে এবং প্রতারক চক্রের ৬ সদস্যকে আটক করে। এটাই প্রকৃত ঘটনা। প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করে মিডিয়াতে অসত্য, মিথ্যা ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আমি ওই মিথ্যা, অসত্য ও ভিত্তিহীন সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

প্রতিবাদকারী
ফিরোজ মাহমুদ
সাং- কয়রা খামারপাড়া
উল্লাপাড়া, সিরাজগঞ্জ।


  • 74
    Shares

Related Articles