মহামারীতে র‌্যাপিড টেস্ট কতটা কার্যকর?

0
46

সাশ্রয়ী খরচে মানুষ যদি ফার্মেসি, কর্মক্ষেত্র অথবা এমনকি ঘরে বসে কভিড-১৯ টেস্ট করতে পারে, তবে সেটি হবে দারুণ ব্যাপার, যা কিনা লাখো মানুষকে কাজে এবং স্কুলে ফিরে যাওয়ার সুযোগ করে দেবে। গত সপ্তাহে হোয়াইট হাউজের করোনাভাইরাস রেসপন্স কো-অর্ডিনেটর ডেবোরাহ ব্রিক্স বলেন, র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট হলো ‘যুগান্তকারী উদ্ভাবন’, যার মাধ্যমে প্রতিদিন লাখো মানুষকে পরীক্ষা করা সম্ভব। এটি তার অতীতের একটি মন্তব্যের প্রতিধ্বনি যে অ্যান্টিজেন টেস্ট ব্যবহূত হতে পারে অনেক বেশি মানুষকে পরীক্ষা করে দেখার জন্য।

এই প্রযুক্তি হবে অনেকটা ঘরে বসে গর্ভাবস্থা পরীক্ষা করে দেখার মতো। যেখানে এ পরীক্ষায় অ্যান্টিবডি যেকোনো একটি স্পাইক প্রোটিনের (অ্যান্টিজেনের) সঙ্গে আবদ্ধ হতে পারে। যা কিনা ভাইরাসের পৃষ্ঠতলকে আচ্ছাদিত করে। এটি খুবই সস্তা এবং ব্যবহারও খুব সহজ। পাশাপাশি এটি কয়েক মিনিটের মাঝে ফলও দিতে পারে।

এছাড়া লক্ষ্য হচ্ছে টেস্টটি এমনভাবে করা হবে যেন বর্তমান মানদণ্ড অনুযায়ী তা সঠিক হয়। এ পরীক্ষা পলিমারাইজ চেইন রিঅ্যাকশন (পিসিআর) ব্যবহার করে ভাইরাসের জিনগত উপাদান প্রক্রিয়াজাত করে এবং শনাক্তকরণের পথ প্রশস্ত করে। কিন্তু প্রকৃত প্রযুক্তিগত বাধা তার পরও বিদ্যমান। পরীক্ষাটিকে আরো বেশি যথার্থ করতে এবং পিসিআরভিত্তিক টেস্টের

চেয়ে সহজ করার জন্য কী প্রয়োজন? যদিও এটা করা সহজ নয় বলে মনে করেন বেটিনা ফ্রেইস। যিনি স্টোনি ব্রুক মেডিসিনের সংক্রামক রোগ বিভাগের প্রধান। তিনি বলেন, সাধারণত পিসিআরভিত্তিক টেস্ট অনেক বেশি সংবেদনশীল ও কার্যকর হয়ে থাকে।

জরুরি ভিত্তিতে বিস্তৃতভাবে পরীক্ষা করার অর্থ হচ্ছে এর জন্য সম্ভাব্য সব প্রযুক্তিকে বিবেচনায় নেয়া। ওরাসিউর টেকনোলজিস নামে বেথলেহেমের একটি মেডিকেল ডিভাইস কোম্পানি গত মাসে ৭১০৩১০ মার্কিন ডলারের একটি ফেডারেল চুক্তি করেছে। এই চুক্তিটি তারা পেয়েছে মূলত ঘরে বসে লালার অ্যান্টিজেন থেকে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণের জন্য।যার ফলে মাত্র ২০ মিনিটে করোনা শনাক্ত করা যাবে।

কোম্পানির সিইও স্টিফেন টাং বলেছেন, এ ধরনের অ্যান্টিজেন টেস্টে একদিনে লাখো মানুষকে পরীক্ষা করা সম্ভব হবে। আপনি ল্যাবরেটরির উপাদান, মেডিকেল ও ল্যাব প্রফেশনালদের ওপর নির্ভর করে থাকতে পারেন না। যা কিনা পিসিআর টেস্টের বিস্তৃত আকার দেয়ার ক্ষেত্রে অনেক বেশি প্রয়োজন। কারণ পিসিআর টেস্ট তার টার্গেট আরএনএর হাজারটা কপি করতে পারে,

এটি অনেক কম ঘনত্বের ভেতর ভাইরাস শনাক্ত করতে পারে, যা অ্যান্টিজেন টেস্ট করতে পারে না। বিপরীতে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টের সংবেদনশীলতা মিশ্র। ২০১৬ সালে এ রকম ১১৬টি টেস্ট করা হয় সেসব ব্যাকটেরিয়ার যা কিনা গলার স্ট্রেপের জন্য দায়ী। যেখানে তারা গড়ে ৮৬ শতাংশের মাঝে সংবেদনশীলতা খুঁজে পেয়েছে। এছাড়া অন্য ১৪ শতাংশের ফল ফলস নেগেটিভ আসে।

অ্যান্টিজেন টেস্ট করা হয় মূলত ফ্লুর মতো সংক্রামক ভাইরাসকে শনাক্ত করতে। ভাইরাস উপস্থিত থাকার পরও প্রায় নেগেটিভ ফল দেয়। এ টেস্টে ফলস পজিটিভ প্রায়ই অনেক বেশি হয়ে থাকে। ৫ শতাংশ মানুষ যারা কিনা আক্রান্ত না হয়েও পজিটিভ ফল আসতে পারে।

ব্রিক্স বলেছেন, অ্যান্টিজেন টেস্ট মূলত প্রথম পর্যায়ে স্ক্রিনিংয়ের জন্য ব্যবহূত হতে পারে। যা কিনা পিসিআর টেস্ট দ্বারা নিশ্চিত করা হবে। ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার সংক্রামক রোগ গবেষক ওটো ইয়াং বলেন, এই লক্ষ্য অর্জন সম্ভব কিনা তা অনিশ্চিত। সাধারণত যখন আপনি এ প্রক্রিয়ায় এগোবেন তখন স্ক্রিনিং টেস্টে আপনার লক্ষ্য থাকবে উচ্চসংবেদনশীলতা অর্জন। এটা তখনই অর্থবহ হবে যখন আপনি অর্থ অথবা টেস্টের রাসায়নিক উপাদান বাঁচানোর চেষ্টা করবেন। পাশাপাশি আপনার যখন পিসিআর টেস্ট করানোর মতো সামর্থ্য থাকবে না। এর একমাত্র সম্ভাব্য সুবিধা হচ্ছে অর্থ বাঁচানো। কিন্তু সংবেদনশীলতা বা কার্যকারিতা হ্রাস পাওয়া একটি বড় সমস্যা।

ইয়াং বলেন, এটি তখনই যৌক্তিক হবে যখন তা পিসিআর টেস্টের মতোই সংবেদনশীল হবে, সস্তা হওয়ার পাশাপাশি।তার এই মত অ্যান্টিজেন টেস্টের যৌক্তিকতাকে কোনো না কোনোভাবে বিতর্কের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। মাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির মাইক্রোবায়োলজিস্ট লি গেহরকে বলেন, এ ধরনের টেস্ট ঠিকঠাকভাবে সেট করা দরকার। এটি বারবার করে দেখতে হবে। আমার বিশ্বাস যদি বারবার টেস্ট করা হয়, তবে এটি ভাইরাসকে শনাক্ত করতে পারবে।

গেহরকে বলেন, আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে ভাইরাল প্রোটিন প্রথম কয়েকদিন নিচের লেভেলে থাকে। কিন্তু সংক্রমণ বাড়তে থাকলে লেভেলও বাড়তে থাকে। এই সম্ভাবনা আছে যে শুরুতে যখন এটি নিচের লেভেলে থাকে তখন র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট এটা শনাক্ত করতে পারে না, যা কিনা পিসিআর টেস্ট করতে পারে। তবে এর লক্ষ্য যদি মানুষকে কাজে ফেরত নেয়া হয়, তবে কম সঠিক টেস্ট মানা যায়, সেক্ষেত্রে এটি হতে হবে সস্তা।

বিপরীতে ইয়াং বলেন, এই অ্যান্টিজেন টেস্ট ডায়াগনস্টিক টুল হিসেবে জায়গা করে নিতে পারে, যদিও এর ফল এখনো প্রাথমিক অবস্থায় প্রয়োজনীয় সতর্কবার্তা পাঠাতে সক্ষম নয়। তার মতে, যদি আপনার লক্ষ্য হয় যে কারো মাঝে ভাইরাস রয়েছে, যা কিনা আরো বেশি সংক্রামক হতে পারে, সেটা নির্ণয় করা তাহলে এটা কিছুটা অর্থবহ হয়। কিন্তু যদি আপনার লক্ষ্য হয় প্রাথমিক অবস্থায় সংক্রমণ শনাক্ত করা, তাহলে এটি কার্যকর হবে না।

তবে এ ধরনের পরীক্ষার প্রয়োজন আছে, যাতে করে এ ধরনের গবেষণার গতি বজায় থাকে। জনস হপকিন্স সেন্টার ফর হেলথ সিকিউরিটির ইমিউনোলজিস্ট গিগি গ্রনভাল বলেন, র‌্যাপিড টেস্ট অসুস্থ লোক চিহ্নিত করতে ভুল করতে পারে, তবে তার পরও এটি অনেক মূল্যবান। কারণ এটি কাউকে পরীক্ষা করতে মাত্র কয়েক মিনিট সময় নিচ্ছে। পিসিআর হয়তো আপনাকে অনেক বেশি সঠিক ও কার্যকর ফল দিচ্ছে। কিন্তু এ ধরনের র‌্যাপিড টেস্টও প্রয়োজনীয়।

তবে সব মিলিয়ে এ বিতর্ককে আমাদের আগামী কয়েক বছরের জন্য বিরতি দিতে হবে। কারণ এমন মহামারীকালে যত বেশি বিস্তৃতভাবে সম্ভব টেস্ট করতে হবে। এছাড়া সবার যা দরকার তা হলো ভ্যাকসিন। সায়েন্টিফিক আমেরিকান