দেশজুড়ে

কেশরহাটে ড্রেন নির্মাণের ঠিকাদার লাপাত্তা, জনদূর্ভোগ চরমে

  • 61
    Shares

রাজশাহী ব্যুরো:  রাজশাহী জেলার মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট-ভবানীগঞ্জ সড়কের হরিদাগাছি মহল্লায় ড্রেনেজ নির্মাণের নামে মাটি কেটে রেখে লাপাত্তা ঠিকাদার। এর ফলে ধসে পড়ছে মানুষের বসত বাড়িঘর। ব্যস্ততম পাকা রাস্তার উপর অবহেলিত ভাবে মাটি ফেলে রাখার কারণে পিচ্ছিল কাঁদায় জনদূর্ভোগ পড়েছেন এলাকাবাসি ও পথচারীরা । প্রতিনিয়ত ঘটছে নানা রকম মারাত্মক দুর্ঘটনা।

ভুক্তভুগিদের অভিযোগ ঠিকাদারের উদাসিনতার দায় এড়িয়ে চলছেন স্থানীয় প্রশাসন। এতে জন সাধারনের মধ্যে হতাশা নেমে আসছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহীর কেশরহাট পৌরসভার হরিদাগাছি মহল্লার খন্দকার পাড়ার পানির নিস্কাসনের জন্য অগ্রণী ব্যাংক সংলগ্ন হতে শিবনদীর পাড়ে সিরাজুলের বাড়ি পর্যন্ত একটি ড্রেন নির্মীত কাজ শিবনদীর পাড়ে সিরাজুলের বাড়ি পর্যন্ত। এ কাজ পেয়েছেন হাসমত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। কাজটি দীর্ঘদিন পুর্বে টেন্ডার হলেও কালবিলম্ব শেষে বর্ষা মৌসুমের গত সপ্তাহে শুরু করে ঠিকাদারী ওই প্রতিষ্ঠানটি। মেশিন দিয়ে গভীর গর্ত করার পর আর কাজে লাগেনি শ্রমিকরা। এদিকে বৃষ্টির কারণে ধসে পড়তে শুরু করেছে বাড়িঘরের আধাপাকাসহ মাটির দেয়াল। রাস্তা উপর মাটি ফেলে রাখায় যান চলাচল বিগ্নিত হচ্ছে। এমনকি চলতে পারছে না পথচারিরাও।

নিরুদের্শ হয়ে গেছে। এখন ধসে পড়ছে আমাদের বাড়ির দেয়াল। ক্ষতির বিষয়টি পৌর মেয়র ও প্যানেল মেয়রকে জানিয়েছি। ঠিকারদারকে বার বার ফোন করা হলেও ফোন ধরেনি। ছোট ছেলেমেয়েসহ পরিবারের লোকজন নিয়ে ঘর ভেঙ্গে পড়ার ভয়ে রাতে উঠানে ঘুমাতে হচ্ছে। কিন্তু বিষয়টি কেউ গুরুত্ব দিয়ে দেখছে না। এজন্য প্রশাসনের উপর মহলের সুদৃস্টি কামনা করেন তিনি।

এবিষয়ে জানতে চাইলে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র রুস্তম আলী বলেন, মানুষের উন্নয়নের জন্য ড্রেন নির্মাণ করা হচ্ছে। কিন্তু ঠিকাদারের লোকজনকে আর কাজে লাগতে দেখা যাচ্ছেনা। এদিকে মানুষের বাড়িঘর ধসে পড়তে শুরু হয়েছে। দ্রুত কাজ করার তাগিদ দিতে আমি নিজেই ঠিকাদার হাসনাতকে অন্তত্ব ২০ বার ফোন দিয়েছি কিন্তু ফোন তিনি ধরেননি।

এছাড়াও জানা যায়, কেশরহাট পৌরসভার প্রায় ঠিকাদারি কাজ পৌর মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ ও সহকারী প্রকৌশলী সরদার জাহাঙ্গীর আলমের যোগ সাজসে নামে বে নামে হাসমতকেই দেওয়া হয় । যার কারনে তিনি নিজ গতিতে পৌর এলাকার সকল নির্মাণ কাজ পরিচালনা করে থাকেন। বিগত দিনে তিনি যেসকল কাজ করেছেন সেসকল কাজ করার পরেই নষ্ট হয়ে গেছে। আর পৌর মেয়র শহিদ তার ক্ষমতার দাপটে প্রসাশন ও এলাবাসীদের থামিয়ে রাখছেন। তিনি নিজের স্বার্থের জন্যে পৌর জনগনের দুংখ দুর্দোশা কথা চিন্তার প্রয়োজন বোধ করেননা। কেশরহাট পৌর এলাকা ঘুরলে চোঁখে পড়ে। অনেক জায়গায় পানি নিস্কাশনের ড্রেন নাই। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে সহ রাস্তায় জমে থাকে কাদাসহ পানি। এমন অবহেলিত মেয়রকে বারবার বলে কাজ না হওয়ায় অনেকে নিজেরা অর্থের বিনিময়ে চলাচলের জন্যে রাস্তা তৈরী করেছেন। এমন দৃষ্টান্তে অতিষ্ঠ হয়ে সাধারন মানুষ কষ্টের সামান্য অবসান ঘটিয়ে কেশরহাট যাত্রি ছাউনির পিছনের রাস্তা ও পৌর এলাকার শেষ সিমানায় রক্ষিতপাড়া যাওয়ার রাস্তার সাধারন মানুষের টাকায় করা হয়।

এতে পৌর মেয়র সন্তুষ্ট না হয়ে উল্টো হুমকি প্রদান করেছেন। তার বিরুদ্ধে কথা বল্লে হুমকিতে জীবন যাপন করতে হয় অনেক কে। ঠিকাদার হাসমত আলী সাথে ০১৭২৪-৩৩৮৮৫১ নম্বরে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিচিভ করেননি। ড্রেনের কাজ বন্ধ বিষয়ে জানতে চাইলে কেশরহাট পৌর সভার সহকারী প্রকৌশলী সরদার জাহাঙ্গীর আলমের সাথে মুঠো ফোন০১৭১৫-৪০৮৮২২ যোগাযোগ করা হলে তিনি মোবাইল তথ্য জানাতে অপরগতা প্রকাশ করেন । কেশরহাট পৌর মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ সাথে ০১৭১২-৫৩৭৯৮৮ নম্বরে একাধিকবার যোগযোগ করার চেষ্ঠা করলে তিনি মোবাইল ফোন রিচির্ভ করেননি।


  • 61
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button