দেশজুড়ে

উলিপুরে ২১ হাজার পরিবার পানি বন্দি

  • 13
    Shares

হাফিজুর রহমান সেলিম, উলিপুর (কুড়িগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা: উজানের পাহাড়ি ঢল ও কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিপাতে হু-হু করে বাড়তে শুরু করেছে ব্রহ্মপুত্র ও তিস্তা নদীর পানি। ফলে কুড়িগ্রামের উলিপুরে ৮টি ইউনিয়নের প্রায় ২১ হাজার পরিবারের মানুষজন পানি বন্দি হয়ে পড়েছেন। এতে করে দূর্ভোগে পড়েছে চর-দ্বীপচরসহ নদী তীরবর্তী এলাকাগুলোর মানুষজন। করোনার এই মহা দূর্যোগের সময় হঠাৎ বন্যা দেখা দেয়ায় পানি বন্দি মানুষজন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

জানা গেছে, কয়েকদিনের পানি বৃদ্ধিতে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে হঠাৎ করে বন্যা দেখা দিয়েছে। এতে করে তিস্তা নদী বেষ্টিত থেতরাই, বজরা, দলদলিয়া, গুনাইগাছ ও ব্রহ্মপুত্র নদ বেষ্টিত সাহেবের আলগা, বেগমগঞ্জ, হাতিয়া, বুড়াবুড়ি ইউনিয়নে মানুষজন পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বর্ষার শুরু থেকে নদী ভাঙ্গন তীব্র রুপ ধারন করায় ওই এলাকা গুলোর শত শত বাড়ি-ঘর নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। বজরা ইউনিয়নের চর বজরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ইতিমধ্যে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়া ওই ইউনিয়নের হুমকির মুখে পড়েছে একাধিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দাখিল মাদ্রাসা, রাস্তা-ঘাটসহ মসজিদ ও মন্দির।

থেতরাই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সরকার জানান, তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে গোড়াই পিয়ার, রামনিয়াসা, জুয়ানসাতরা, হোকডাঙ্গা, চর গোড়াই পিয়ার, খারিজা লাঠশালাসহ ইউনিয়নের প্রায় ৪ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। এছাড়া বজরা ইউনিয়নে প্রায় ২ হাজার, গুনাইগাছ ইউনিয়নে প্রায় ২ হাজার ও দলদলিয়া ইউনিয়নে প্রায় ১ হাজার পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে বলে জানিয়ে সংশ্লিষ্ট এলাকার ইউপি চেয়ারম্যানগণ।

সাহেবের আলগা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ইউনিয়নের ৪৯টি চরের মধ্যে কাজিয়ার চর, আইড়মারি, দেলখড়িয়া, উত্তর দই খাওয়া, সুখের বাতির চর, মধ্য দই খাওয়া, চেরাগের আলগা, মেকুরের আলগা,গেন্দার আলগাসহ ৪৪টি চরের প্রায় ৩ হাজার ৬শ পরিবাবের মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের পুরো এলাকায় ৩ হাজার পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছেন। কয়েকদিনের ব্যবধানে ৪শ ঘর-বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বেলাল হোসেন। হাতিয়া ইউনিয়নের ২ হাজার ৫শ পরিবার ও বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের ৩ হাজার পরিবার পানি বন্দি হয়েছে পড়েছেন। করোনার মহা দূর্যোগের সময় হঠাৎ বন্যা দেখা দেয়ায় পানি বন্দি মানুষজন গবাদিপশুসহ আবাসস্থল নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

উপজেলা ত্রান ও প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের পানি বন্দি মানুষের জন্য ৪৮ মেঃ টন চাল, নগদ ৫ লক্ষ টাকা ও ১লাখ ১০ হাজার টাকার শিশু খাদ্যের বরাদ্দ পাওয়া গেছে। যা বিতরনের জন্য প্যাকেটিং এর কাজ চলমান রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আব্দুল কাদের জানান, কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক শনিবার (২৭ জুন) দুপুরে উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের পানি বন্দি এলাকা পরিদর্শন করেছেন। উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির সার্বিক অবস্থা উনি অবগত আছেন। বন্যা মোকাবেলায় সকল ধরনের প্রস্তুতি গ্রহন করা হচ্ছে।


  • 13
    Shares

Related Articles