আন্তর্জাতিক

কচুরিপানার দখলে ঐতিহাসিক টাইগ্রিস ও ইউফ্রেটিস নদী

  • 1
    Share

কচুরিপানার দখলে ঐতিহাসিক টাইগ্রিস ও ইউফ্রেটিস নদী। ইরাকের এই দুই নদী এবার অস্তিত্ব সংকটের মুখে। নদী দুটিকে কচুরিপানার হাত থেকে কীভাবে রক্ষা করা যাবে তা বুঝে উঠতে পারছে না ইরাকের প্রশাসন। দিন দিন পানি কমে আসছে নদীতে। একে তো দূষণ এবং যেখানে-সেখানে বাঁধ নির্মাণের জন্য সৃষ্টি হয়েছিল সমস্যা। তার ওপর নতুন করে কচুরিপানার সমস্যা!

বিশ্বের উষ্ণতম দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম ইরাক। প্রত্যেক বছরই খরা সমস্যায় ভোগে তারা। এমনিতেই টাইগ্রিস ও ইউফ্রেটিস নদীর পানির ব্যবহার হয় ব্যাপক হারে। তবে গত কয়েক বছর ধরে এই দুই নদীতে কচুরিপানার পরিমাণ বাড়ছে। একেকটি কচুরিপানা দিনে পাঁচ লিটার পর্যন্ত পানি শোষণ করতে পারে। তাছাড়া কচুরিপানার পাতা সূর্যের আলো নদীর পানিতে পৌঁছতে দেয় না। পানিতে অক্সিজেনের সরবরাহ বাধা পায়। ফলে নদীর বাস্তুতন্ত্রের সমস্যা দেখা দেয়। মাছ মারা যায়। স্থানীয় জেলেদের জীবিকা সংকট দেখা দেয়।

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলের বহু মৎসজীবীর জীবিকা নির্বাহ হয় ইউফ্রেটিস নদীতে মাছ ধরে। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে সেখানে বেড়ে ওঠা কচুরিপানা সমস্যা সৃষ্টি করছে। পূর্ব বাগদাদের বহু মানুষ আবার টাইগ্রিস নদী থেকে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। তারা জানিয়েছেন, গত দুই বছর ধরে তারা মাছ শিকার করতে পারছেন না তেমনভাবে।

ইরাকের চাষবাসের উপর প্রভাব পড়েছে। এমনিতেই এই দুই নদীতে পানি কমে আসায় সমস্যায় বাড়ছিল চাষীদের। এবার নতুন করে দেখা দিয়েছে কচুরিপানার সমস্যা। ফলে ব্যাপক প্রভাব পড়ছে চাষবাসে। পানির স্তর নেমে গিয়েছে অনেক নিচে।

স্থানীয় বাজারে এখন সবজির বিক্রি কমেছে এক-তৃতীয়াংশ। এছাড়া আরও একটি সমস্যা দেখা দিয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন এক হাজার বর্গফুট আয়তনের কচুরিপানা হতে পারে পাঁচ টন পর্যন্ত। এতে নদী দুর্বল পাড়ের উপর মারাত্মক চাপ সৃষ্টি হয়। ফলে সেতু বাঁধ ভেঙে পড়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়। ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলে এমনিতেই পানীয় জলের সংকট রয়েছে। এবার সেখানে পানীয় জলের সমস্যা আরও বেড়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রশাসনের অবহেলা ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবের জন্যই নদীতে কচুরিপানা বেড়ে উঠেছে।

ইরাকের পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মেশিনের মাধ্যমে নদী থেকে কচুরিপানা সরানোর কাজ দ্রুত শুরু হবে।


  • 1
    Share

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button