দেশজুড়ে

প্রতিবেশীর শত্রুতায় ঝিকরগাছার পল্লীতে পানিবন্ধি একটি পরিবার


নাজিম উদ্দীন জনি, শার্শা (বেনাপোল) প্রতিনিধিঃ পূর্ব শত্রুতার জেরে ঝিকরগাছা পল্লীতে একটি পরিবারকে পানি বন্ধি করে রেখেছে এলাকার পরিচিত মুখ মাওলানা আঃ জব্বারের শশুর ইসলাম নামে এক প্রতিবেশি ।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কুমরী গ্রামে।ঘরের চারিপাশ পনিতে ডুবে থাকায় ঘর থেকে বের না হতে পেরে ছেলে মেয়ে নিয়ে চরম দুর্ভোগের মধ্যে মানবতার জীবন যাবন করছে পরিবারটি।

জানা যায়, ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের কুমরী পূর্ব পাড়ায় ইয়াছিন নামের এক ব্যক্তি দীর্ঘ দিন যাবত পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছে। সম্প্রতি টানা কয়েক দিন বৃষ্টি হওয়ায় ইসাছিনের উঠানে এখন হাটু সমান পানি জমে ঘরের ভিতর ছুই ছুই। এর ফলে রান্না খাওয়া থেকে শুরু করে ঘর থেকে বের হওয়ারও উপায় নেই তাদের।

বর্তমানে ঘরবন্ধি হয়ে অসহায় হয়ে আছেন তারা। আর তাদের পানি বের হওয়ার জন্য বাড়ীর পাশের অন্য জমির মালিক মাওলানা আঃ জব্বারের শশুর ইসলাম তার মালিকানা জমির উপর দিয়ে পূর্ব শত্রুতার জেরে পানি আসতে না দেওয়ায় এই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসি।

পানি বন্ধি ইয়াছিনের স্ত্রী শরিফা খাতুন জানান, বর্ষা মৌসুম আসলেই আমাদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়। পাশের জমির মালিক তার জমির উপর দিয়ে পানি যেতে না দেওয়ার ফলে এই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টির পানি জমে টয়লেট, টিউবওয়েল পানির নিচে তলিয়ে একাকার হয়ে যাচ্ছে। এতে নানা পানিবাহিত রোগের আশঙ্কা করছেন তিনি। এ ব্যাপারে স্থানীয় মেম্বারের কোন সহযোগীতা পেয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, তার কাছে বার বার ধন্যা দেওয়ার পর তিনি দু’শ টাকা দেওয়ার কথা বলে নিজ উদ্যোগে পানি নিস্কাশন করে নেওয়ার কথা বলেন।

এ ব্যাপারে ১০ নং শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নিছার উদ্দিন জানান, পানিবন্ধি পরিবারের কথা শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারি মাওলানা জব্বারের শশুর ইসলামের জমির উপর দিয়ে পানি যেতে না যাওয়ার ফলে জলাবদ্ধতা।যার কারনে পানি বন্ধি হয়ে পড়েছে অসহায় ইয়াছিনের পরিবার।এসময় পাশের জমির মালিক ইসলামের ছেলে রুহুলামিনের সাথে কথা বললে তিনি জমির নিচ দিয়ে পাইপ লাগিয়ে পানি নিস্কাসনের ব্যাবস্হা করতে বলেন। সেই মোতাবেক কাজ করার প্রস্তুতি নেওয়ার একদিন পরে রুহল আমিন ও মাওলানা জব্বার, যুক্তি এটে তাদের জমির উপর দিয়ে পানি যেতে দেবেনা বলে সাফ জানিয়ে দেয়।

এদিকে এই পরিবারের চরম দুর্ভোগের বিষয়টি স্থানীয় মেম্বার ও গ্রাম্য মাতব্বরদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে কোন সুরাহ না হওয়ায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছে পরিবারটি।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button