দেশজুড়ে

কুষ্টিয়া ইবি থানা এলাকায় দুই দিনের ব্যবধানে ১০টি গরু চুরি

  • 135
    Shares

কুষ্টিয়া প্রতিনিধিঃ কোরবানির ঈদ আসতে না আসতেই কুষ্টিয়া ইবি থানায় শুরু হয়ে গেছে গরু চুরির হিড়িক। মাত্র দুই দিনের ব্যবধানে চুরি হয়েছে ১০ টি গরু। গত ২৩/০৬/২০২০ ইং তারিখ ভোর রাতে উজান গ্রামের দক্ষিণ পাড়ার লুৎফর সর্দারের (৪০) এর ৩ টি গরু চুরি হয়ে গেছে। প্রতিদিনের মত রাতে তিনি তার গরুকে খাবার দিয়ে ঘুমাতে যান পরে সকালে ঘুম থেকে উঠে গরু খুলতে গিয়ে দেখেন তার গোয়ালে গরু গুলা নাই। পরে তিনি চিৎকার চেঁচামেচি করে এদিক ওদিক খোঁজ করে গরুর পায়ের চিহ্ন দেখে বোঝেন তার গরুকে তার বাড়ির পিছন দিয়ে জিকে ক্যানেল পাড় করে মাঠ পেরিয়ে বিত্তিপাড়া মহাসড়কে নিয়ে গেছেন চোরেরা। পরে সেখান থেকে আর গরুর পায়ের চিহ্ন মেলেনি। তারপরের দিনই ২৪/০৬/২০২০ ইং তারিখ ভোর রাতে
মধুপুর আখসেন্টার ও শান্তিডাঙ্গা পূর্ব আব্দালপুর ভিন্ন ভিন্ন জায়গা থেকে মোট ৭ টি গরু চুরি হয়েছে।

আনুমানিক রাত ১ঃ৩০ মিনিটে এই ঘটনা ঘটে। জানা যায় মধুপুর আখ সেন্টারের প্রধান সড়কের সাথে আলিম নামে এক যুবকের ৩টি গরুসহ শান্তিডাঙ্গার বিভিন্নস্থান থেকে মোট ৭টি গরু চুরি হয়েছে। রাত ২টার সময় আলিম তার গরুকে খাবার দিতে গিয়ে গরু না পেয়ে চোর চোর বলে হইচই করলে স্থানীয়রা সবাই ছুটে আসেন এবং তাৎক্ষণাৎ খোঁজখবর লাগালে লক্ষ্মীপুর ও বৃত্তি পাড়ার নাইটগার্ডের তথ্য অনুযায়ী একটি তিন চাকার কোরিমনে ৩টি গরু ও অন্য একটি গাড়িতে ৪টি গরু বহনরত অবস্থায় বিত্তিপাড়া থেকে উজানগ্রামের দিকে গিয়েছে বলে জানা যায়। ওই গরু গুলোই চুরি যাওয়া গরু বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কে কুষ্টিয়া হাইওয়ে পুলিশের রাতভর ডিউটি, ইবি থানা পুলিশের রাতভর ডিউটি সহ প্রতিটা স্ট্যান্ডে নাইট গার্ডের পাহারা তো আছেই। এতো সর্তকতা স্বত্তেও কিভাবে চুরি হচ্ছে গরিবের স্বপ্ন, ক্ষোভ এলাকাবাসীর। তবুও ভুক্তভোগীদের দাবি তাদের অসতর্কতা ও প্রশাসনের উদাসীনতার জন্যই এমন ঘটনা ঘটছে।

ভুক্তভোগীদের দাবি অনুযায়ী প্রতিটি ঘটনার চুরি যাওয়া গরু মহাসড়ক দিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে । এ বিষয়ে কুষ্টিয়া হাইওয়ে পুলিশ এর সাথে কথা বললে তিনি জানান এ বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট থানা প্রশাসনের দায়িত্ব। এবিষয়ে কোন নির্দেশনা বা পদক্ষেপ তাদের নাই। বিষয়ে কোনো অভিযোগ তাদের কাছে নেই। তবে কোন অভিযোগ বা নির্দেশনা পেলে অবশ্যই তাৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নিবেন কুষ্টিয়া হাইওয়ে পুলিশ। তবে কোরবানির আগে পরে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে সে বিষয়ে সতর্ক রয়েছেন হাইওয়ে পুলিশ।

এ বিষয়ে ইবি থানার ওসি জাহাঙ্গীর আরিফ এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ কেউ দেয়নি, কেউ অভিযোগ দিলে সে বিষয়ে তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইতিমধ্যেই প্রতিটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের সাথে প্রাথমিক বৈঠকে কোরবানির ঈদ পর্যন্ত প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে কঠোর তৎপরতার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

স্থানীয়দের দাবি, কোরবানির আগে আর কারো স্বপ্ন যেন রাতের আধারেই চুরি না হয়ে যায় সে বিষয়ে প্রশাসনসহ সবাইকে এখনই তৎপর হতে হবে।


  • 135
    Shares

Related Articles