ভোর ৫:১৫ বৃহস্পতিবার ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

‘শিশু বিক্রির’ জমজমাট ব্যবসা মাদার তেরেসা মিশনারিতে

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুলাই ৫, ২০১৮ , ১১:৫১ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : আন্তর্জাতিক
পোস্টটি শেয়ার করুন

ভারতের ঝাড়খন্ড রাজ্যে মাদার তেরেসা মিশনারিতে কর্মরত এক নারীকে ১৪ দিন বয়সী একটি নবজাতককে বিক্রির অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। খবর বিবিসির।এই মিশনারির আরো দুজনকে আটক করে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে। আর এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে কিনা তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।রাজ্যের শিশু উন্নয়ন কমিটির(সিডব্লিউসি) দায়ের করা একটি অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ এই পদক্ষেপ নিয়েছে। দাতব্য প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে বিবিসি যোগাযোগ করলে এই ব্যাপারে মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

 

 

একজন পুলিশ কর্মকর্তা বিবিসিকে জানা, ‘আমরা তদন্ত করে জানতে পেরেছি আরো বেশ কয়েকটি শিশুকে এই মিশনারি থেকে অবৈধভাবে বিক্রি করা হয়েছে। আমরা বিক্রিকৃত শিশুদের মায়ের নাম সংগ্রহ করেছি এবং এই বিষয়ে অধিকতর তদন্ত করছি।’মাদার তেরেসা মিশনারিটি ঝাড়খন্ডের রাজধানী রাঁচিতে অবস্থিত। সেখান থেকে পুলিশ এক লাখ ৪০ হাজার রুপি উদ্ধার করেছে। নোবেল জয়ী মাদার তেরেসা ১৯৯৭ সালে মৃত্যুবরণ করেন। ১৯৫০ সালের দিকে তিনি এই মিশনারিটি স্থাপন করেন।

 

 

সিডব্লিউসি’র চেয়ারম্যান রুপা কুমারি বিবিসিকে বলেন, ‘আমরা এই মুহূর্তে উত্তর প্রদেশের এক দম্পতির কাছে একটি নবজাতককে এক লাখ ২০ হাজার রুপিতে বিক্রির ঘটনার তদন্ত করছি। ওই দম্পতি এই টাকা হাসপাতালের খরচের জন্য দিয়েছেন বলে দাবি করেছেন।’রুপা কুমারি জানান, ১৯ মার্চ একজন তরুণী এই মিশনারিতে আসেন এবং একটি ছেলে শিশুর জন্ম দেন। ১৪ মে ওই দম্পতির কাছে নবজাতকটিকে বিক্রি করে দেয়া হয়।রুপা কুমারি জানান, গর্ভবতী ওই তরুণীকে হাসপাতালে নেয়ার সময় তাদের জানানো উচিত ছিল।

 

৫০ হাজার থেকে ৭০ হাজার রুপিতে আরো কয়েকটি শিশু বিক্রি হয়েছে বলে তারা জানতে পেরেছেন।এই ঘটনার পর মিশনারিতে থাকা ১৩ জন গর্ভবতী নারীকে স্থানান্তর করেছে সিডব্লিউসি।ভারতে শিশু দত্তক নেয়ার জটিল প্রক্রিয়া ও দীর্ঘ কালক্ষেপণের কারণে অনেক দম্পতি অবৈধ উপায়ে শিশু দত্তক নিয়ে থাকে। ২০১৫-১৬ সালে দত্তক প্রত্যাশী ১২ হাজার দম্পতির মধ্যে মাত্র তিন হাজার ১১টি শিশুকে বৈধভাবে দত্তক নেয়া হয়।

Comments

comments