গাজীপুরের শ্রীপুরে এবছর রসালু লিচুর বাম্পার ফলন

0
3

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর সন্নিকটে গাজীপুরের শ্রীপুরে এ বছর রসালু ফল লিচুর বাম্পার ফলন হয়েছে। দেশে করোনাভাইরাসের কারণে ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে পাইকারও মৌসুমি ব্যবসায়ীরা লিচু কিনতে না আসার কারণে বিক্রি নিয়ে শঙ্কায় আছেন বাগান মালিকরা।

এদিকে, গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এস এম মুয়ীদুল হাসান গনমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, এবছর শ্রীপুর উপজেলায় ৭২৫ হেক্টর জমিতে লিচুর আবাদ হয়েছে। গত বছর এ উপজেলায় উৎপাদন হয়েছিল প্রায় চার হাজার মেট্রিক টন। গত দুই বছর ধরে লিচুর ফলন বৃদ্ধি পেয়েছে।

আজ গাজীপুরের শ্রীপুরের কেওয়া পাড়া ও টেপিরবাড়ি সহ বিভিন্ন বাগানে পরিদর্শনও বাগান মালিকদের সাথে আলাপকালে তারা গনমাধ্যমকে জানান, প্রতি বছর লিচুর ফুল ফোটার পর দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে বেপারিরা এসে লিচু বাগান দেখে ক্রয় করতেন।পরবর্তীতে তারাই বাগান পরিচর্যা সহ ফলমূল বিক্রি করতেন। এবছর করোনাভাইরাসের কারণে লিচু বেপারীরা না আসায় বাগান মালিকরা লিচু ঢাকার বিভিন্ন আড়তে বিক্রির ব্যবস্থা করতে হবে। এ নিয়ে আর্থিক ও শ্রমিক সংকটে আছেন বাগান মালিকরা।

শ্রীপুরের কেওয়া পশ্চিম পাড়া গ্রামের বাগান মালিক আলমাছ উদ্দিন গনমাধ্যমকে বলেন, তার বাগানে ১৫০টি লিচু গাছ রয়েছে। এবছর তিনি সাড়ে সাত লাখ টাকায় বাগান বিক্রি করেছেন। গত দুই মাস আগে বিক্রির বায়না পেয়েছেন মাত্র ৬০ হাজার টাকা। করোনা পরিস্থিতি শুরুর পর বেপারিরা সময় মতো টাকা দিতে পারেননি। এবছর লিচুর বাম্পার ফলন হয়েছে এবং লিচুর দামও ভালো পাওয়া যেতো।

লিচু বাগান মালিক আফাজ উদ্দিন বলেন, ফুল ফোটার পরই নারায়ণগঞ্জের বেপারিদের কাছে লিচু বাগান বিক্রি করে দিয়েছি। সে সময় দেশে করোনাভাইরাস ছিল না। এ বছর করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ও লকডাউনের কারণে বাইরের বেপারিরা এলাকায় আসছেন না। নিজেরাই বাগান পরিচর্যা করছি। খরচ তুলতে পারবো কিনা শঙ্কায় আছি।

এদিকে লিচু বাগান মালিক নূরুল আলম সাথে কথা হলে তিনি গনমাধ্যম বলেন, লিচুর ফুল ফোটার শুরুতে এলাকায় মধুর বক্স নিয়ে মৌচাষিরা আসতেন। তারা ফুল থাকাকালীন প্রায় ১৫ দিনের মতো মধু সংগ্রহ করতেন। এবার করোনা পরিস্থিতির কারণে লিচুর মধু সংগ্রহের প্রক্রিয়াটিও বাদ পড়েছে। এখন আর কেউ আসছেন না।
লিচু বাগানের শ্রমিক ফারুক হোসেন বলেন, ‘লিচু ফলনের চার মাস একটি গ্রামের বাগানগুলোতে কমপক্ষে ৩শ থেকে ৪শ শ্রমিকের কর্মসংস্থান হয়। এবছর করোনা পরিস্থিতিতে সেটি হচেছনা। বাগান মালিকেরা লিচুর ন্যায্য দাম না পেলে শ্রমিকের মজুরি দিতে তারা হিমশিম খাবেন।

শ্রীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এস এম মুয়ীদুল হাসান গনমাধ্যমকে বলেন, ‘শ্রীপুরে ৭২৫ হেক্টর জমিতে লিচুর আবাদ হয়েছে। গত বছর এ উপজেলায় উৎপাদন হয়েছিল প্রায় চার হাজার মেট্রিক টন। কৃষি বিভাগ এ ক্ষেত্রে সব প্রকার সহায়তা করছেন।

গাজীপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক মাহবুব আলম গনমাধ্যমকে জানান, গাজীপুর জেলায় প্রায় এক হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে লিচুর আবাদ হয়েছে। গত বছর ফলন হয়েছিল ২৬ হাজার ৮৮০ মেট্রিক টন। তবে, জেলার মধ্যে শ্রীপুর উপজেলায় লিচুর আবাদ সবচেয়ে বেশি।