দেশজুড়ে

মুন্সীগঞ্জে ১৮ ঘন্টার মধ্যে হত্যার রহস্য উদঘাটন

  • 16
    Shares

আবু সাঈদ দেওয়ান সৌরভ, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জে মিশুকচালক তুহিন বেপারির (১৪) মরদেহ উদ্ধারের ১৮ ঘন্টার মধ্যে আসামী গ্রেফতার সহ হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশ।

সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, আমলি আদালত ১ এর বিচারক মুক্তা মন্ডলের কাছে আসামী মেহেদী (১৯) ১৬৪ ধারায় লোহমর্ষক হত্যাকান্ডের বর্ণনা দিয়েছে। শনিবার সন্ধায় সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার আশফাকুজ্জামান জানান, শিশুক চালক তুহন নিখোঁজ হলে তুহিনের বাবা অজ্ঞাত আসামি করে সদর থানায় মামলা করে। পুলিশ মিশুকের মালিক রহমান (৭০) ও তার ছেলে মেহেদী (১৯) সহ জনি (২৮), সোহাগ (২১), কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদে তুহিনকে হত্যার বিষয়টি মেহেদী স্বীকার করে।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে প্রধান আসামী মেহেদী জানায়, গত মঙ্গলবার সকালে মেহেদী ও মিশুক চালক তুহিনের সঙ্গে ঝগড়া হয়। একই দিন সন্ধায় ৭টার দিকে তুহিন মিশুক নিয়ে বাসস্টান্ডে যায়। তুহিন যাত্রী নিয়ে খাসকান্দি যাওয়ার সময় মেহেদী গিয়ে তুহিনকে বলে, আমি তোর সঙ্গে যাব। এ সময় মেহেদী ও সঙ্গে যায়। তুহিন খাসকান্দি থেকে যাত্রী নিয়ে বাংলাবাজার যায়, সেখানে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে মিশুক রেখে পদ্মার শাখা নদীর দিকে যায় এবং সেখানে দুজনের মধ্যে আবার ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে মেহেদী কিল-ঘুসি মেরে তুহিনকে দুর্বল করে মুখ হাত বেঁধে পানিতে ফেলে দেয়। পরে মিশুক নিয়ে চলে আসার সময় দেওয়ানকান্দি এলে ব্যাটারির চার্জ শেষ হয়ে গেলে রাস্তার পাশে গাড়ি খাদে ফেলে চলে আসে।

নিখোঁজের তিন দিন পরে শুক্রবার দুপুরে বাংলাবাজার ইউনিয়নের ভূতারচর এলাকা থেকে মিশুক চালক তুহিনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত মিশুক চালক মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার হাটলক্ষীগঞ্জ এলাকার মোঃ মামুন বেপারির ছেলে।


  • 16
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button