রাত ৩:৪০ মঙ্গলবার ১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

কালীগঞ্জে মাদকদ্রব্য না রাখায় পিটিয়ে জখম; প্রতিবাদে মাদক ব্যবসায়ীদের বাড়ি ভাংচুর

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুন ২৩, ২০১৮ , ১১:২৭ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খুলনা
পোস্টটি শেয়ার করুন

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বাড়িতে মাদকদ্রব্য না রাখায় ক্ষিপ্ত হয়ে রাজু আহম্মেদ নামের এক হ্যান্ডলিং শ্রমিকসহ তার পরিবারের ৫ সদস্যকে পিটিয়ে জখম করেছে এক মাদক ব্যসায়ী। জখম সবাইকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। সারাদেশে মাদক বিরোধী অভিযানের মধ্যে পুলিশের নাকের ডোগায় বসে শুক্রবার বিকালে কালীগঞ্জ পৌরসভাধীন কাশিপুর মাঠ পাড়ার চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান ও তার সঙ্গীরা প্রতিবেশি রাজু আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যদের উপর এ হামলা করে। রাজু পেশায় একজন হ্যান্ডলিং শ্রমিক। এঘটনার পর ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী মাদক ব্যবসায়ী মিজানুর রহমানসহ মাদক ব্যবসায়ীদের ৭ বাড়িঘর ভাংচুর করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রেজাউল করিম রেজা।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আহত শ্রমিক রাজু বলেন, মিজানুর রহমান এলাকার চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী। রাজু, তার ভাই ও মা দীর্ঘদিন ধরে ওই এলাকায় ফেন্সিডিল, ইয়াবা ও গাজার ব্যবসা করে আসছে। তারা বিভিন্ন সময় আমাদের বাড়িতে মাদকদ্রব্য রাখতে চায়। কিন্তু আমরা বাড়িতে এসব মাদক রাখতে না দেওয়ায় গত এক বছর ধরে তারা আমাদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করছে। সম্প্রতি মাদক বিরোধী অভিযান শুরু হলে তখনও তারা আমাদের বাড়িতে এসব মাদকদ্রব্য রাখার জন্য চাপ দেয়।

শুক্রবার একই ঘটনা নিয়ে চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী মিজানুর রহমানসহ তার আত্মীয়-স্বজনরা আমার স্ত্রী মনোয়ার বেগম, শ্বশুর আব্দুল মালেক, শাশুড়ী আম্বিয়া বেগম, শ্যালিকা তহমিনা ও আমাকে লাঠি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে এবং পিটিয়ে আহত করে।

অপরদিকে অভিযুক্ত মাদক ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান ঘটনার পর পালিয়ে যাওয়ায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে থানা পুলিশকে বিষয়টি জানালেও মাদক ব্যবসায়ী মিজানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া ক্ষোভ প্রকাশ করেছে এলকাবাসি। এছাড়া মিজানের বিরুদ্ধে কয়েক দফায় থানায় মামলা দিতে গেলে মামলা নিচ্ছে না বলে জানিয়েছে রাজুর পরিবারের সদস্যরা।

এদিকে সম্প্রতি মাদক বিরোধী অভিযানের নমে কালীগঞ্জ থানার পুলিশ কোন রকম অভিযোগ বা প্রমাণ ছাড়াই সাধারন মানুষকে ধরে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার দিবাগত রাতে পাতবিলা গ্রামের তাসির ও বসির দুই ভাইকে থানায় এসে মোটা অংক্রে টাকা আদায় করে পরের দিন ছেড়ে দেয়। এরমধ্যে তাসির একটি ওষুধ কোম্পানীতে এবং বসির রাস্তায় শ্রমিকের কাজ করেন। একই রাতে একই গ্রাম থেকে জহর আলী নামের এক কৃষককে আটক করে ৫ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয় বলেও জানা গেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কালীগঞ্জ উপজেলার কমলাপুর গ্রামের জাকারুল ইসলাম ও তার ছেলে মেহেদী হাসানকে থানায় ধরে এসে ৪০ হাজার টাকা আদায় করে। জাকারুল মাগুরায় একটি বেসরকারী কোম্পানীতে কাজ করেন এবং আওয়ামীলীগ কর্মী বলে জানা গেছে। তারা ঈদে বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল।

কালীগঞ্জ থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান খান জানান, আমাদের কাছে মাদক ব্যবসায়ী মিজানের বিরুদ্ধে কেউ অভিযোগ করেনি। বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে যারা আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে তারা অভিযোগ দিলে অবশ্যই মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ছাড়াও কাউকে আটক করে টাকা নেওয়ার বিষয়টি তিনি অস্বিকার করেন।

Comments

comments