রাজধানী

বাড়িভিত্তিক লকডাউন করতে পারলে ভালো হয়: মেয়র আতিক

  • 18
    Shares

রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে করোনা আক্রান্ত রোগীর হার বিবেচনায় তিনটি জোনে ভাগ করার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। তবে সেই জোন ভিত্তিক লকডাউন বাস্তবায়নে দুই পক্ষের মধ্যে চলছে রশি টানাটানি অবস্থা। যারা বাস্তবায়ন করবেন বিশেষ করে সিটি করপোরেশন তারা বলছেন সুনির্দিষ্ট ম্যাপিং দিলে লকডাউন করবো। এদিকে স্বাস্থ্য অধিদফতর রেড, ইয়েলো এবং গ্রিন জোনের তালিকা পাঠিয়েই খান্ত।

এনিয়ে সিটি করপোরেশন থেকে বার বার সুনির্দিষ্ট তালিকা চাইলেও দিতে পারেনি স্বাস্থ্য অধিদফতর। তাই বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না জোন ভিত্তিক লকডাউন। এবিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেছেন, স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে আমাদের কাছে এখনো সুনির্দিষ্ট তালিকা আসেনি। শুধু জোন ভাগ করে একটা খসড়া পাঠানো হয়েছে। আমরা তাদের বার বার বলছি আপনার সুনির্দিষ্ট ম্যাপিং দেন আমরা বাস্তবায়ন করব।

তিনি বলেন, আমি কাউন্সিলরদের সঙ্গে বৈঠক করে প্রত্যেককে প্রস্তুত থাকতে বলেছি। এরইমধ্যে আমরা পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় লকডাউন করে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। সেখানে বিভিন্ন জনের বিভিন্ন রকম আবদার। অনেকে যেমন পিৎজা চাচ্ছে তেমনি প্রয়োজনীয় ওষুধও চাচ্ছে। এসব অভিজ্ঞতা নিয়ে অন্যান্য জায়গায় কাজ করতে পারব।

তিনি বলেন, প্রথমে কিন্তু রাজাবাজারকে রেড জোন চিহ্নিত করা হলো। পরে আমরা সার্ভে করে দেখলাম সেটা রাজাবাজার না, শুধু পূর্ব রাজাবাজার। তাই আমরা চাই সুনির্দিষ্ট ম্যাপিং। সেক্ষেত্রে যদি বাড়ি চিহ্নিত করে দেওয়া যায় তাহলে আরো ভালো। আমরা বাড়িটি সম্পূর্ণরূপে লকডাউন করতে পারব। মেয়র বলেন, আমরা বার বার বলার পরেও আজ অবদি স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে এ ধরনের কোনো ম্যাপিং পাইনি। আমাদের নগরবাসীর জীবন-জীবিকা দুটোই দেখতে হবে। তাই বলবো যদি সুনির্দিষ্ট চিহ্নিত করে দেওয়া হয় তাহলে আমরা ওই বাড়িটি লকডাউন করে দিতে পারতাম। আমাদের বিশেষজ্ঞ কমিটি, টেকিনিক্যাল কমিটি যেভাবে বলবে সেভাবেই কাজ করব। তারা যত তাড়াতাড়ি সুনির্দিষ্ট তালিকা দিবে আমরা তত তাড়াতাড়ি কাজ করতে পারব।


  • 18
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button