দেশজুড়ে

খালেদাকে দেখতে খাবার,ফুল ও পোশাক নিয়ে কারাগারে স্বজনরা

পবিত্র ঈদ উল-ফিতর উপলক্ষে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে কারাগারে দেখা করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। আজ শনিবার দুপুর সোয়া দুইটার দিকে খাবার, ফুল ও ঈদের জন্য নতুন পোশাক নিয়ে রাজধানীর নাজিম উদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরাতন কারাগারে তার সঙ্গে দেখা করেন ভাই শামীম ইস্কান্দারসহ পরিবারের ২০ সদস্য। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় চার মাস ধরে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। বিএনপি নানা ধরণের কর্মসূচি গ্রহণ করলেও কোনো উপায় করতে পারেননি নেতারা।

 

তবে তারা মনে করেছিলেন,ঈদের আগেই মুক্তি পাবেন দলের চেয়ারপারসন। কিন্তু সেটা সম্ভব হয়নি। পাঁচ বছরের সাজার বোঝা মাথায় নিয়েই কারাগারেই ঈদ পালন করতে হচ্ছে খালেদাকে।আজ সকালে ঘুম থেকে উঠে স্বাভাবিক দিনের মতোই ছিলেন খালেদা জিয়া। সকালের নাস্তাতে অল্প মিষ্টি দিয়ে সেমাই ও পায়েস খেয়েছেন বলে জানায় কারাসূত্র। দুপুরে সোয়া ২টার দিকে খালেদা জিয়ার প্রয়াত ভাই সাঈদ এস্কান্দরের স্ত্রী নাসরিন এস্কান্দার ও তার ছেলে শামস এস্কান্দার, শাফিন এস্কান্দার, ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার, তার স্ত্রী কানিজ ফাতেমা, ছেলে অভিক এস্কান্দার, এরিক এস্কান্দার, ভাগ্নি অরনি এস্কান্দার, অনন্যা এস্কান্দার, শাফিয়া ইসলাম, ভাগিনা সাজিদ ইসলাম, মো. মেহরাব ও মো. আল মামুন প্রথমে জেলগেটে আসেন।

 

পরে আসেন খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমানের বড় বোন শাহিনা খান জামান বিন্দু এবং তার স্বামী শফিউজ্জামান। তাদের সঙ্গে আসেন বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এবিএম আবদুস সাত্তার এবং গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা’র গৃহকর্মী ও গাড়ি চালকও। মোট ২০ জন সদস্য কারা ফটক দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করেন। এ সময় তারা খালেদা জিয়ার জন্য খাবার, ফুল ও ঈদের নতুন পোশাক নিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেন।

 

বেরিয়ে আসেন বিকেল ৪টা ৪০ মিনিটে। কারা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, দুপুরে খালেদা জিয়ার খাবারের তালিকায় থাকবে পোলাও, রুই মাছ এবং মাংস। তবে খালেদা জিয়া দুপুরে আত্মীয়-স্বজনের আনা ঈদের খাবার খেয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে কারাগারে সদস্যদের প্রবেশের আগে ওইসব খাবার ভেতরে নিয়ে কারা কর্তৃপক্ষ পরীক্ষা করার পর সদস্যদের কারাগারে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়। স্বজনরা জানান, সাধারণত খালেদা জিয়া খাবার খান দুপুর দেড়টার মধ্যে। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষ স্বজনদের সাক্ষাতের সময় নির্ধারণ করে বেলা ২টায়। ফলে খালেদা জিয়া অপেক্ষায় ছিলেন কখন আসবেন স্বজনরা।

 

স্বজনদের অপেক্ষায় দুপুর পর্যন্ত না খেয়েই ছিলেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। খালেদা জিয়ার জন্য বেগুনি সাদা অর্কিডের একটি ফুলের তোড়া নিয়ে আসেন স্বজনরা। এটি দিয়ে খালেদাকে শুভেচ্ছা জানান। পরিবারের সদস্যরা জানান, খালেদা জিয়া স্বজনদের বুকে জড়িয়ে নিয়ে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। স্বজনরা জানান, ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দারসহ তাদের সন্তানেরা খালেদা জিয়াকে পায়ে ধরে সালাম করেন। এ সময়ে অনেকে আবেগপ্রবণ হলেও খালেদা জিয়া তাদেরকে আল্লাহর ওপর ভরসা রেখে ধৈর্য্যধারণ করতে বলেন। তিনি স্বজনদের নাম ধরে সকলের খোঁজ-খবর নিয়েছেন এবং বিশেষ করে শিশুরা কেমন আছে তা জানতে চান। স্বজনরা আরও জানান, নিজের কক্ষ থেকে অসুস্থ শরীর নিয়ে খালেদা জিয়া তাদের সঙ্গে দেখা করতে আসেন।

 

 

তাকে দুই পাশ থেকে দুজন ধরে নিয়ে আসেন স্বজনদের জন্য নির্ধারিত কক্ষে। খালেদা জিয়া সবার সাথে ঈদের ‍শুভেচ্ছা বিনিময় করেন বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা। ঈদের দিন সকাল ১০টা থেকে কেন্দ্রীয় কারাগারের বাইরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। বিএনপির নেতাকর্মীরা কারাগারের সামনে আসবেন- এমন কর্মসূচির পরিপ্রেক্ষিতে নিরাপত্তা জোরদারের অংশ হিসেবে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয় বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানান। দীর্ঘ ৩৬ বছরের রাজনৈতিক জীবনে খালেদা জিয়া কারা অন্তরীন অবস্থায় তিনবার ঈদ উদযাপন করেছেন। তবে রাজনৈতিক সরকারের সময়ে কারাগারে তার এটি প্রথম ঈদ। এর আগে ১/১১ সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে ২০০৭ সালে ৩ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়া গ্রেপ্তারের পর সংসদ ভবনে স্থাপিত সাবজেলে বন্দি রাখা হয়েছিল। ওই সময়ে দুটি ঈদ সেই সাবজেলে তিনি উদযাপন করেছেন। ওই সাবজেলে আরেকটি বাসায় অন্তরীন ছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.