আজ অনলাইন আলোচনায় বসছে কোয়াব

0
43

গত মাসে ক্রিকেটার, সংগঠক ও সুহ্রদ-শুভানুধ্যায়ীদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে করোনার সময় ক্ষতিগ্রস্থ অসচ্ছল ক্রিকেটার, আম্পায়ার, স্কোরার, মাঠকর্মী, টিমবয়সহ ক্রিকেট সংশ্লিষ্টদের মধ্যে অর্থকষ্টে থাকাদের পাশে দাঁড়ানোর লক্ষ্যেই তহবিল গঠনের উদ্যোগ নিয়েছিল ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েন অব বাংলাদেশ (কোয়াব) কোয়াব।

যতদূর জানা গেছে, এরই মধ্যে প্রায় লাখ বিশেক টাকা তারা সংগ্রহও করেছেন। কমিটির সদস্য সচিব দেবব্রত পালের আশা তারা ২২ থেকে ২৫ লাখ টাকার তহবিল তৈরি করতে সক্ষম হবেন। এই তহবিল কীভাবে খরচ করা হবে?

বর্তমান-সাবেক ক্রিকেটার, ক্রিকেট সংগঠক ও সুহ্রদ-শুভানুধ্যায়ীদের দেয়া অর্থ দিয়ে কীভাবে এবং কাদের পাশে দাঁড়াবে কোয়াব? সাহায্য-সহযোগিতার ধরনটাই বা কী হবে?- তা ঠিক করতেই আজ (শনিবার) বিকেলে এক অনলাইন সভা ডেকেছে কোয়াব। সংগঠনের সদস্য সচিব দেবব্রত পাল আজ সকালে জাগো নিউজকে এ তথ্য দিয়েছেন।

দেবব্রত পাল জানান, ‘যেহেতু এখন সামাজিক দূরত্ব রেখে চলতে হচ্ছে এবং সরকার থেকে শুরু করে সবাই ঘরে থাকার কথা বলছেন। তাই নিজেরা বাসা থেকে বেরিয়ে না এসে আমরা অনলাইনে মিটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আজ বেলা ৩টায় শুরু হবে আমাদের সেই অনলাইন সভা।’

তিনি আরও জানান, কোয়াবের সভাপতি নাইমুর রহমান দুর্জয়, সহ সভাপতি খালেদ মাহমুদ সুজন, বোর্ড পরিচালক আকরাম খান, জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু, হাবিবুল বাশার সুমন, ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল, টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক, তুষার ইমরান, শাহরিয়ার নাফীস, নুরুল হাসান সোহান প্রমুখ এ অনলাইনে মিটিংয়ে অংশ নেবেন।

কোয়াব সদস্য সচিবের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, তারা এই করোনার সময় যে তহবিল গঠন করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন তাতে ইতিমধ্যে ১৮ লাখ টাকার (১৮ লাখ ৭ হাজার ১৯১ টাকা ৯৫ পয়সা) ওপরে জমা পড়েছে। যার প্রায় সাড়ে ১০ লাখ টাকার জোগান দিয়েছেন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটার ও বিশ্বজয়ী যুব দলের ক্রিকেটাররা।

আগেই জানা, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটাররা তাদের মাসিক বেতনের অর্ধেক টাকা তুলে জমা দিয়েছেন। আর আকবর আলীর বাহিনী ও টিম ম্যানেজমেন্ট মিলে তুলে দিয়েছেন ২ লাখ ৩০ হাজার টাকা। এছাড়া সাবেক ক্রিকেটার, সংগঠকরা মিলে আরও প্রায় ৮ লাখ টাকা তুলেছেন।

কিন্তু করোনা আক্রান্ত, ক্ষতিগ্রস্ত ও দুঃস্থ-অসহায় মানুষের জন্য ২৭ জাতীয় ক্রিকেটার যে তাদের মাসিক বেতনের অর্ধেক দান করে ৩০ লাখ টাকা তুলেছেন, সে টাকাটা কোয়াবের তহবিলে জমা পড়েনি?

কোয়াব সদস্য সচিব দেবব্রত পালের জবাব, ‘নাহ! সেটা আমাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে না থাকলেও ক্রিকেটারদের কাছে আছে। সেটা নিজেরা বসে ঠিক করা যাবে, কীভাবে কী করা যায়?’

জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে কোয়াবের চিন্তা ও লক্ষ্য ছিল করোনার সময় ক্ষতিগ্রস্থ অসচ্ছল ক্রিকেটার, আম্পায়ার, স্কোরার, মাঠকর্মী, টিমবয়সহ ক্রিকেট সংশ্লিষ্টদের মধ্যে অর্থকষ্টে থাকাদের সাহায্য করা। পাশাপাশি অর্থকষ্টে ভোগা সাধারণ মানুষকে সাহায্য করার পরিকল্পনাও ছিল। সেটাই বহাল থাকবে? নাকি নতুন চিন্তার উন্মেষ ঘটবে, আজকের অনলাইন মিটিংয়ে সেটাই চূড়ান্ত হবে।

তবে পাশাপাশি আজ কোয়াবের সভায় প্রিমিয়ার লিগ নিয়েও আলোচনা হবে। কোয়াব সদস সচিব জানিয়েছেন, ‘আমাদের সভার আলোচ্য সূচিতে প্রিমিয়ার লিগের ভবিষ্যত নিয়েও আলাপ আলোচনা হবে।’