আন্তর্জাতিক

ভারতে লকডাউন শিথিল হতেই বেপরোয়া তাণ্ডব করোনার


করোনাভাইরাসের মহামারি ঠেকাতে বেশ আগেভাগেই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছিল বিশ্বের দ্বিতীয় জনবহুল দেশ ভারত। গত ২৪ মার্চ রাত থেকে দেশটি ২১ দিনের লকডাউন শুরু করে দেশটি। পরে কয়েক দফায় তা বাড়ানো হয়, যা ১৬ মে পর্যন্ত চলবে। কিন্তু লকডাউনের মেয়াদ বাড়ালেও অর্থনীতির চাপে অস্থির ভারত গত ১৫ এপ্রিল থেকে বিভিন্ন খাতের জন্য তা শিথিল করতে শুরু করে।

তার তাতেই হয়ে গেছে বড় সর্বনাশ। সম্ভাব্য চূড়ান্ত আক্রমণের (Peak) আগে লকডাউন তুলে দেওয়ায় দেশটিতে বেপরোয়া তাণ্ডব শুরু হয়ে গেছে করোনার।সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, এখন পর্যন্ত ভারতে ৫৯ হাজার ৬৯৫ জন মানুষ নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছে। আর মারা গেছে ১ হাজার ৯৮১ জন।গত ২৪ মার্চ লকডাউন ঘোষণার দিনে ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছিল মাত্র ৫৩৬ জন। মোদি সরকার ১৪ এপ্রিল প্রথম দফায় লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর পাশাপাশি কিছু খাতে তা শিথিল করার ঘোষণা দেয়।

সেদিন দেশটিতে রোগীর সংখ্যা ছিল ১১ হাজার ৪৮৭ জন। গত ১ মে সরকার আরও ২ সপ্তাহের জন্য লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়। একই সঙ্গে আরও কিছু খাতকে লকডাউনের বাইরে রাখার ঘোষণা দেওয়া হয়। প্রতিটি রাজ্যের এলাকাগুলোকে লাল, কমলা ও সবুজে ভাগ করে সে অনুসারে লকডাউনের প্রয়োগের এখতিয়ার দেওয়া হয় রাজ্যগুলোকে।

পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, লকডাউন শিথিল করার পর থেকেই করোনার সংক্রমণের গতি বেড়েছে। গত ১৪ এপ্রিল প্রথম লকডাউন শিথিল ঘোষণার দিনে ভারতে রোগী ছিল ১১ হাজার ৪৮৭ জন। দ্বিতীয় দফা শিথিলতা ঘোষণার দিন পর্যন্ত (১ মে) রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১১ হাজার ৪৮৭ জন। এ সময় অর্থাৎ ২১ দিনে দেশটিতে রোগী বাড়ে ১০ হাজার ৯৯১ জন, দৈনিক গড়ে ৫২১ জন করে।

লকডাউন শিথিলের আগে দৈনিক রোগী বেড়েছে ৫২১ জন করে

প্রথম দফা শিথিলের পর গড়ে বেড়েছে ১৬১১ জন করে

দ্বিতীয় দফা শিথিলের পর বেড়েছে ৩২০৫ জন করে

প্রথম দফায় লকডাউন শিথিলের পর থেকে দ্বিতীয় দফা শিথিল পর্যন্ত রোগী বেড়েছে ২৫ হাজার ৭৭০ জন। এই সময়ে দৈনিক গড়ে ১ হাজার ৬১১ জন করো রোগী বেড়েছে।আর সর্বশেষ দফা শিথিলের পর গত ৭ দিনে ভারতে নতুন সংক্রমণ বেড়েছে ২২ হাজার ৪৩৮ জন। দৈনিক গড়ে ৩২০৫ জন করে মানুষ সংক্রমিত হয়েছে।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিবেদন বলা হয়েছিল, মে মাসে দেশটিতে করোনার বিস্তার চূড়ান্ত পর্যায়ে (Peak) পৌঁছাতে পারে। আর তখন পর্যন্ত ২ লাখ মানুষ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হতে পারে। কিন্তু পিক এর আগে লকডাউন শিথিল করে দেওয়ায় পিক এর সময় সীমা পেছাতে পারে, আর আক্রান্ত হতে পারে আরও বেশি সংখ্যক মানুষ-এমনটিই আশংকা দেশটির বিশেষজ্ঞদের।

ভারতে অবস্থার এমন অবনতির মুখেও কয়েকটি রাজ্য করোনা নিয়ন্ত্রণে বেশ সাফল্য দেখিয়েছে। অন্যদিকে কয়েকটি রাজ্যের ব্যর্থতায় সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে।দেশটির রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলোর মধ্যে রাজস্থানের অবস্থা সবচেয়ে নাজুক। দেশে করোনায় মোট আক্রান্তের প্রায় ৩২ শতাংশই এই রাজ্যের। সর্বশেষ তথ্য অনুসারে রাজ্যটিতে ১৯ হাজার ৬৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

রোগীর সংখ্যায় দ্বিতীয় অবস্থানে আছে খোদ প্রধানমন্ত্রী মোদির রাজ্য গুজরাত, যেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৭ হাজার ৪০২ জন।রাজধানী দিল্লির অবস্থাও ভাল নয়। সেখানে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ৩১৮ জন।তামিলনাড়ুতে রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ হাজার ৯ জন।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button