আন্তর্জাতিক

চীন-ভারত সংঘর্ষ: সর্বদলীয় সভা ডেকেছেন মোদি

  • 232
    Shares

ভারতের লাদাখের বিরোধপূর্ণ গালওয়ান উপত্যকায় ভারত ও চীনের সামরিক বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সর্বদলীয় বৈঠকের ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শুক্রবার (১৯ জুন) স্থানীয় সময় বিকাল ৫টায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের এক সংবাদ বিবৃতির বরাতে এ খবর জানিয়েছে বার্তাসংস্থা পিটিআই।

পিটিআই জানিয়েছে, সর্বদলীয় বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে কেন্দ্রের শীর্ষ মন্ত্রীদের সঙ্গে এক বৈঠকে মিলিত হন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। ওই বৈঠকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজানাথ সিং, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ্‌, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস. জয়শঙ্কর, অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন এবং সেনাপ্রধান এম.এম. নারাভানে উপস্থিত ছিলেন।

ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস (আইএনসি) নেতা রাহুল গান্ধী লাদাখের পরিস্থিতি নিয়ে টুইটারে ওই ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী নীরব কেন? এ প্রশ্ন তোলেন এবং পাশাপাশি চীন কীভাবে ভারতের ভূ-খন্ডে ঢুকে ভারতীয় সৈন্য হত্যার সাহস পায় তাও জানতে চান।

টুইটারে ওই বার্তা প্রকাশিত হওয়ার পর, ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে গালওয়ান উপত্যকায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক কর্ণেলসহ তিন সদস্যের মৃত্যুর ব্যাপারে বিবৃতি দেওয়া হয়। পরে স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় আরেক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সোমবার রাতের ওই ঘটনায় মোট ২০ জন ভারতীয় সেনাসদস্যের মৃত্যুর ব্যাপারে জানানো হয়। পরে ভারতীয় গণমাধ্যম ওই মরদেহগুলোর ছবি দেখাতেও সক্ষম হয়।

ভারতের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল গালওয়ান উপত্যকার সহিংস সংঘর্ষে চীনেরও ৪৩ সেনাসদস্যের মৃত্যু হয়েছে। তবে চীনের সরকারি কোনো সূত্র ঐ খবর নিশ্চিত করেনি। ভারতীয় কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো মার্কিন গোয়েন্দা রিপোর্ট অনুসারে, গালওয়ান উপত্যকায় চীনের ৩৫ সেনার মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে পিটিআই।

প্রসঙ্গত, ষাটের দশকের পর পরমাণু শক্তিধর চীন ও ভারতের সেনাবাহিনীর মধ্যে আর কোনো যুদ্ধের ইতিহাস নেই। ১৯৭৫ সালে অরুণাচল প্রদেশে চীন-ভারত সেনা সংঘর্ষে চার ভারতীয় সেনা প্রাণ হারায়। ৪৫ বছর পর সোমবার (১৫ জুন) রাতে গালওয়ান উপত্যকায় দুই দেশের এমন এক সংঘর্ষ ঘটলো, যেখানে উভয়পক্ষে অর্ধশতাধিকের বেশি প্রাণহানি হয়েছে বলে দাবি করা হচ্ছে।


  • 232
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button