করোনায় আর্থিক বিপর্যয়ে ভোলার লঞ্চ ব্যবসায়ীরা

0
13

ইয়ামিন হোসেন: কোভিড-১৯ করোনাভাইরাস এর কারনে যাত্রী না থাকায় আর্থিক সংকটে পড়েছে ভোলার লঞ্চ ব্যবসায়ীরা। করোনাভাইরাস হওয়ার শুরু থেকে লঞ্চ চললে ও মাঝখানে সরকারী নির্দেশনা অনুযারী আবার বন্ধ হয়ে যায় লঞ্চ, পরিস্থিতি বিবেচনা করে স্বাস্থ্যবিধি অনুযারী বর্তমানে আবার লঞ্চ চললেও যাত্রী শূন্য থাকায় কর্মকতা কর্মচারীদের বেতনসহ নানাবিধ খরচ পোষাতে হিমশিম খাচ্ছে ভোলার লঞ্চ ব্যবসায়ীরা।

ভোলার অনেক লঞ্চ স্টাফদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ভোলার লঞ্চের কখনো এমন করুন অবস্থা হয়নি, এবারের করোনায় কর্মকতা কর্মচারীদের বেতন দিতেই হিমশিম খাচ্ছে মালিক পক্ষের।

ভোলার এক আইনজীবী বলেন, রুটেশন প্রথা নিয়ে মানববন্ধন হলো, মামলা হলো, ডিসি বরাবর স্বারকলিপি দিয়েছে কিন্তু সেই প্রথা অবশেষে এক করোনায় সমাধান করে দিচ্ছে আজ।

যাত্রী শূন্যতায় আজ ভোলা খেয়াঘাটে গিয়ে দেখা যায়,ঘাট কর্তৃপক্ষ এবং লঞ্চের স্টাফদের মধ্যে কোন আমেজ নেই, কর্ণফুলী ৭ টায়, এমভি ভোলা ৮ টায় ক্রিস্টাল ক্রুজ আগে ছাড়বে, আগে উঠুন, আগে যাবে, ৪ টায় ঢাকায় এমন নানান স্লোগানে যাত্রীদের আর্কষন করতেন বিভিন্ন লঞ্চের স্টাফরা কিন্তু করোনার কারনে আজ আর সেই স্লোগান নেই, আমেজ নেই ভোলার লঞ্চঘাটগুলোতে।

কর্ণফুলী লঞ্চের ভোলা অফিসের বুকিং ম্যানেজার মোঃ লিটন মিয়া বলেন, ভাই লঞ্চ ব্যবসায়ীদের দিন খারাপ অবস্থায় যাচ্ছে এই করোনার মধ্যে, আজকে কর্ণফুলী লঞ্চে ঢাকা থেকে মাত্র ৮৪টি ডেক টিকেট ও ১৬ সিট কেবিনের সিট বুকিং হয়েছে মাত্র।

এমভি ভোলা, এমভি সম্পদ ও ক্রিস্টাল ক্রুজ লঞ্চের ম্যানেজার মান্নান মিয়া বলেন, আমরা লঞ্চ স্টাফরা বড় কষ্টে দিন কাটাচ্ছি, যাত্রী না হলে মালিকপক্ষ কি ভাবে বেতন দিবে আমাদের? তিনি বলেন ক্রিস্টাল ক্রুজে ৩৫, এম ভি ভোলা ২০ ও সম্পদে ১৫/১৬ জন স্টাফ রয়েছে কিন্তু করোনায় যাত্রী শূন্যতায় আজ বেতন দেওয়ায়ই কষ্টকর।

ভোলার সচেতন নাগরিক পরিষদের সাধারন সম্পাদক সফিকুল ইসলাম সফি বলেন, ভোলা দ্বীপ জেলা, এই জেলার মানুষের যোগাযোগের এক মাত্র ব্যবস্থা নৌপথ, তাই সরকারের নির্দেশনা অনুযারী ভোলা ঢাকা নৌ পথে নিয়মিত লঞ্চ চলাচলের অনুরোধ করছি , যাতে জরুরী রোগীসহ ব্যবসায়ীদের মালামাল ভোলায় আসতে পারে, বিষয়টি জেলা প্রশাসকের নজর রাখার দাবী জানান ভোলার এই প্রতিবাদী মানুষ সফিকুল ইসলাম।