রাত ৪:০০ বৃহস্পতিবার ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

চোরাই মোটরসাইকেল, সিএনজি অটোরিকশা চোর চক্রের ৬ সদস্য আটক

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : মে ২৩, ২০১৮ , ১১:৪৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : ঢাকা
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস,এম,মনির হোসেন জীবন ॥ ঈদকে সামনে রেখে রাজধানী ও তার আশ পাশে মোটরসাইকেল ও সিএনজি অটোরিকশা চোরদের একটি সংঘবদ্ধ দলের ছয় সদস্যকে আটক করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা (উত্তর) বিভাগের গাড়ি চুরি প্রতিরোধ টিম। আটক ব্যক্তিরা হলো- রফিক, মো. মানিক, আব্দুল আলীম, হাসান মৃধা, মোহাম্মদ আলী ও চান মিয়া। এসময় তাদের কাছ থেকে ১১টি চোরাই মোটরসাইকেল, দুটি সিএনজি, একসেট পাঞ্চ মেশিন, পুলিশের পাঁচ সেট পোশাক, একটি হ্যান্ডকাপ, ২০টি চেতনা নাশক ট্যাবলেট, দুটি সিরিঞ্জ ও তিন প্যাকেট প্রাণ জুস উদ্ধার করা হয়।
মঙ্গলবার রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের আটক করা হয়।ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা ডিবি উত্তর বিভাগের এডিসি নিশাত রহমান মিথুন আজ বাসসকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মঙ্গলবার রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মোটরসাইকেল ও সিএনজি অটোরিকশা চোরদের একটি সংঘবদ্ধ দলের ছয় সদস্যকে অভিযান চালিয়ে ১১টি চোরাই মোটরসাইকেল, দুটি সিএনজি আটক করা হয়। এই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে মোটরসাইকেল ও সিএনজি চুরি করে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রয় করে। আটক রফিক ও মানিক মোটরসাইকেল চুরির পর আসামি আব্দুল আলীমের কাছে বিক্রি করে। পরবর্তীতে আব্দুল আলীম তার সহযোগী হাসান মৃধার মাধ্যমে মোটরসাইকেলের চেসিস ও ইঞ্জিন নম্বর পরিবর্তন করে বিক্রি করে।

ডিবি পুলিশের এডিসি নিশাত রহমান জানান, আটক ব্যক্তিদের মধ্যে মোহাম্মদ আলী ও চান মিয়া পুলিশ সেজে সিএনজি ছিনতাই করতো বলে জানান । আটক দুই আসামির বরাত দিয়ে তিনি বলেন, এরা পুলিশ সেজে তাদের একজন সিভিল সহযোগীকে আসামি হিসেবে গ্রেফতার করে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে সিএনজিতে ওঠে। কিছু দূর যাওয়ার পর তাদের অন্যান্য সহযোগীদের সঙ্গে পরিকল্পনা অনুযায়ী পূর্ব নির্ধারিত স্থানে সিএনজি থামায়। সেখানে নেমে তারা চা-জুস-সিদ্ধ ডিম জাতীয় খাবার খায়। আর তখনই কৌশলে সিএনজি চালকের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপন করে। এরপর পুলিশের পোশাক পরে বিশ্বস্ততা অর্জন করে এবং তাদের সঙ্গে চালকেও খাবার খেতে আমন্ত্রণ জানায়। সিএনজিচালক রাজি হলে ট্যাবলেট মেশানো খাবার খাইয়ে তাকে অজ্ঞান করে সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে যায়। আর সুবিধাজনক স্থানে ফেলে যায় চালককে। আইট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

উদ্ধার করা চোরাই মোটরসাইকেল ও সিএনজির নাম, ইঞ্জিন নাম্বারগুলো হলো- একটি পুরনো -১৫৫সিসি মোটরসাইকেল, ঢাকা মেট্রো-ল-২৬-৮৭৪৬ একটি সাদা রংয়ের -১০০ সিসি মোটরসাইকেল, রেজিস্ট্রেশনবিহীন, একটি কালো রংয়ের -১০০ সিসি মোটরসাইকেল, রেজিস্ট্রেশন বিহীন, একটি লাল-কালো রংয়ের চটখঝঅজ-১৫০ সিসি মোটরসাইকেল, রেজিস্ট্রেশন বিহীন, একটি রংয়ের ১৫৫ সিসি মোটরসাইকেল, রেজিস্ট্রেশন বিহীন, একটি টিয়া কালারের ১৫০ সিসি মোটরসাইকেল, রেজিস্ট্রেশন বিহীন, একটি -১০০ সিসি মোটরসাইকেল, রেজিস্ট্রেশন নম্বর- ঢাকা মেট্রো-হ-২৯-১০১২, একটি কালো রংয়ের ১৫০ সিসি মোটরসাইকেল, যাহার রেজিস্ট্রেশন নম্বর- ঢাকা মেট্রো-ল-১৯-১৯৯৯,একটি রংয়ের ১৫০সিসি মোটরসাইকেল, যাহা রেজি. বিহীন, একটি মেট কালারের -১৫০ সিসি মোটরসাইকেল, যাহা রেজিস্ট্রেশন বিহীন, ,একটি লাল কালারের -১৫০ সিসি মোটরসাইকেল, যাহা রেজিস্ট্রেশন বিহীন, ,একটি সবুজ রংয়ের পুরনো সিএনজি অটোরিকশা, রেজিস্ট্রেশন নম্বর- ঢাকা-থ-১১-৫৩৪৫। ডিবি পুলিশের জিঞ্জাসাবাদে আটককৃতরা চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনার কথা স্বীকার করেছে। তাদের বিরুদ্বে প্রয়োজনীয় আইননানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

Comments

comments