মুজিব জন্মশতবার্ষিকী আজ করোনা আতঙ্কে, নতুন প্রজন্ম হলো বঞ্চিত

0
24

মোঃ ইব্রাহিম হোসেন, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ– অর্ধশত মানুষের জীবনের ভাবনা, মুজিব জন্মশতবার্ষিকী আজ করোনা আতঙ্কে, নতুন প্রযর্ম্ম হলো বঞ্চিত। মানুষ মনের মাঝে ধারণা করেছিলো, কেমন ছিলো আমাদের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

সেই ছোট থেকে দেখছি, প্রথম দেখা ২৮ ফেব্রুয়ারী ১৯৭০ বিহারী, বাঙালির রনহ্মেত্র, মোহাম্মদপুর থেকে মানুষ কাটতে কাটতে কাটাসুর হয়ে রহিম বেপাড়ী ঘাট পর্যন্ত এসে পড়ে অবাঙালীরা। ইতিমধ্যে তিনটি লাশগার থেকে গলাটা এক রকম বিছিন্ন, ঘাড় থেকে হাতের অংশ পর্যন্ত আলাদা, মায়ের তলপেট থেকে ভুড়ি বেরিয়ে এসেছে, ঠেলাগাড়ী করে কাটাসুর থেকে টেনারীমোড় দিকে যাচ্ছে। এই অমানুষিক দৃশ্য বাঙালীকে উত্তেজিত করে। হাজার হাজার মানুষ, যার কাছে যা আছে, তাই নিয়ে আক্রমনের জন্য রহিম বেপাড়ী ঘাট পর্যন্ত হাজির। সেখান উপস্থিত হন মুজিব প্রেমি রশিদ চাচার বড় ছেলে সাজাহান।

ইতিমধ্যে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী হাজির হয়েছে অবাঙালীদের শেষ করার জন্য। এলোপাতাড়ি গুলিতে অনেক বাঙালী আহত নিহত হলেন। সাজাহানের মাথায় গুলি লেগে, মাথার মগজ বেরিয়ে গেলো। ঢাকা মেডিকেল থেকে পরের দিন লাশ এনে মাটি দেওয়া হয়।

বঙ্গবন্ধু দেখতে আসাতে এই প্রথম স্বচোহ্মে দেখার সুভাগ্য হয়েছিল। তৎকালীন সুলতানগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসিরুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক রমিজ ভাই, গফুর, খোরসেদ আলম, বর্তমান ঢাকা-১৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ সাদেক খান সহ অগনিত মানুষের উপস্থিতি আমাকে অবাগ করেছিলো।

রশিদ চাচার পিঠে হাত দিয়ে অবাগ চোখে তাকিয়ে আছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মানুষের ভিড় এড়ানো যাচ্ছে না একনজর জাতির পিতাকে দেখার জন্য। আমার বয়স মাত্র ১৩ বছর, ছোট হওয়াতে ভিড় এড়িয়ে একে বারে সামনে গিয়ে দাড়ালাম। মুখের ভাষা হারিয়ে গেছে, চোখের পানি কেউ সংবরণ করতে পারছে না। বাঙালী নিধনের ও নির্বাচনী আতঙ্ক ছড়ানো পাকিস্তানী ষড়যন্ত্র এই রায়ের বাজার থেকেই শুরু হয়।

বঙ্গবন্ধু যাওয়ার সময় আমার পিঠে হাত দিয়ে ভিড় এড়ানো চেষ্টা করেন। সেই ছুয়াই আমার জীবন, মন পরিবর্তন লহ্ম করি, আজও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে বুকের মাঝ থেকে আলাদা করতে পারিনি। পরে একবার কোলে চড়ার, একবার বুকে ধারন করেছিলেন মুজিব। সে গল্প বাংলার বানী ও আমাদের অর্থনীতিতে ছাপা হয়েছে।

৩২ নং ছিলো আমার পেশাগত অবস্থান। কত না ছোট ছোট বিষয় আমার দেখার সুভাগ্য হয়েছে মুজিব কেনো বঙ্গবন্ধু, জাতিক জনক হয়ে উঠলেন। মানুষকে কি ভাবে গ্রহন করেছেন। প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি হয়েও ঘন্টার পর ঘন্টা বাড়ীর বেলকনিতে দাড়িয়ে কথা শুনতেন, অনেক বিষয় তাহ্মনিক সমাধান দিয়েছেন। অপ্রয়োজনীয় কষ্ট দিতে দেখিনী। কত আশা, কত না জমানো ব্যথা প্রকাশ করার ইচ্ছে নিয়ে এ জীবনের অর্ধশত বছর মুজিব আদর্শ বুকে ধারন করে আছি। আমাদের মত শেষ সময়ের মানুষ গুলোর জন্য মুজিব জন্মশতবার্ষিকী ছিলো আলোর পথ দেখানো শিখা।

করোনা আতঙ্ক সব কিছু এলোমেলো হলেও মনের আলো কেড়ে নিতে পারেনি। আমাদের নতুন সময় ও নাঈমুল ইসলাম খান আছেন বলেই মুজিব জন্মশতবার্ষিকীর কিছুটা আলো আমরা প্রকাশ করতে পারছি। পারিছি স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, বাঙালী সংস্কৃতি, ভাষা আন্দোলন নিয়ে লেখতে। করোনা আতঙ্কে মাঝেও শত কষ্ট, অভাব অনট নিয়ে চলছে সংবাদ কর্মীদের জীবন। প্রেস ও অনলাইনের অনেক মিডিয়া ইতিমধ্যে বন্দ হয়ে গেছে। সহপাঠি বন্ধুদের করুন অবস্থা জানা নাই। সদয় দৃষ্টি আশা করছি।লেখকঃ বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব ও রাজধানী মোহাম্মদপুর থানার ৩৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামলী লীগের সভাপতি জনাব রবিউল আলম।