দেশজুড়ে

খুলনার ডুমুরিয়ায় ইউপি মেম্বরকে পেটালেন চেয়ারম্যান


খুলনা প্রতিনিধি : খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার গুটুদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান এক ইউপি সদস্যকে পিটিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত রবিবার সন্ধ্যায় উপজেলার পঞ্চু গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ইউপি সদস্য খুলনা জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ এবং ডুমুরিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন।

অভিযোগ ও জিডি সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ১৩ নং গুটুদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হাসান গাজীর সাথে ৪নং ওয়ার্ড সদস্য জয় কুমার মন্ডলের মতবিরোধ চলে আসছে। তারই জের ধরে ঘটনার দিন সন্ধ্যায় ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসান তার দলবল নিয়ে ওই ইউপি সদস্য জয়ের বাড়ির সামনে গিয়ে অশ্লীল গালিগালাজ করতে থাকে। এরপর জয়কে ঘর থেকে টেনে হেছড়ে রাস্তার উপরে নিয়ে লাঠিসোটা দিয়ে পিটাতে থাকে। এসময়ে জয়ের বাবা সুভাষ মন্ডল (৬৯) এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা তাকেও মারপিট করে।

একজন ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক একই পরিষদের এক ইউপি সদস্যকে মারপিটের ঘটনার সুষ্ঠ বিচারের দাবি জানিয়ে জেলা প্রশাসকের দ্বারস্থ হয়েছেন ওই ইউপি সদস্য ও তার পরিবার। এদিকে ন্যাক্কার জনক এ হামলার ঘটনায় এলাকাবাসির মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে।

ঘটনা প্রসঙ্গে জয় কুমার মন্ডল বলেন, ‘চেয়ারম্যান সাহেব আমাকে সবসময় তার প্রতিপক্ষ ভাবেন। রাজনৈতিক বিভিন্ন বিষয়কে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যান তার দলবল নিয়ে আমাকে বাড়ি থেকে রাস্তায় টেনে এনে বাঁশের লাঠি দিয়ে আমাকে এবং আমার বাবাকে মারপিট করে। আমরা ভীত সন্ত্রস্ত এবং অসহায় ও সংখ্যালঘু বলে ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে আমাকে ও আমার বাবাকে পিটিয়েছে।

ঘটনার প্রসঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসান গাজী বলেন, ‘মেম্বর জয় মন্ডল সব সময় আমার কাজের বিরোধিতা করে আসছে এবং আমাকে চেয়ারম্যান হিসেবে নুন্যতম সম্মান করে না। এলাকায় আমার ভাবমূর্তি খুন্ন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তার বিরুদ্ধে এলাকায় জমি-দখলের অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। জয় একজন মেম্বর হয়ে সঠিকভাবে জনসেবামুলক কাজ করে না। আমি তার কাছে বিষয়টি জানার জন্য ঘটনার দিন পঞ্চু গ্রামে যেয়ে তাকে ( জয়কে ) গ্রাম পুলিশ দিয়ে ডাকি, কিন্তু জয় সকলের সামনে আমাকে অসম্মান করে। যার কারণে আমি তাকে পিটাতে বাধ্য হয়েছি।’

ডুমুরিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম বিপ্লব বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে থানায় একটি জিডি হয়েছে যার নং-৬৬২। তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ প্রসঙ্গে খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button