আন্তর্জাতিক

যেভাবে ভারতের সেনাদের হত্যা করলো চীন, ভবিষ্যত আরও ‘ভয়াবহ’!

  • 23
    Shares

মঙ্গলবার দুপুরের দিকে হঠাৎ করেই গণমাধ্যমে খবর আসতে শুরু করে, বিরোধপূর্ণ কাশ্মির অঞ্চলের লাদাখ সীমান্তে চীনের সৈন্যদের সঙ্গে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ৩ ভারতীয় সেনা নিহত হয়। প্রথমে ভারতের পক্ষ থেকে দেয়া বিবৃতিতে গোলাগুলির বিষয়টি স্বীকার করা হয়নি।

কিন্তু মঙ্গলবার দিনের শেষভাগে ভারতীয় কর্মকর্তারা সবাইকে চমকে দিয়ে জানান, দুই দেশের সেনাদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন ভারতীয় সেনা নিহত হয়েছে।

ভারতের স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর খবরে জানানো হয়, ভারতীয় সেনাদের পিটিয়ে হত্যা করেছে চীনের সেনারা। যদিও ভারতের সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে এখনও এমন কোনো তথ্য নিশ্চিত করা হয়নি।

তবে চীন ও ভারত উভয় দেশের সেনারাই এটুকু নিশ্চিত করেছে যে, সংঘর্ষে কোনও আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করা হয়নি। সময় গড়ালে সেটার সত্যতাও হয়তো নতুন করে মুখ তুলতে পারে।

মূলত চীন ও ভারতের মধ্যে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা অর্থাৎ লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল বা এলএসি খুবই দুর্বল। আর সেটি দুর্বল হওয়ার বড় কারণ হচ্ছে, দুদেশের মধ্যে বেশ কয়েকটি নদী, হ্রদ ও শৈলপ্রবাহ প্রবাহিত হচ্ছে। যাতে করে অনেক সময়ই সীমানা বদলে যায়। আর নদী, হ্রদ ও শৈলপ্রবাহের কারণে হুটহাট সীমানা বদলে যাওয়া দেশ দুটির মধ্যে ভবিষ্যতেও এভাবেই সংঘর্ষ উস্কে দিতে পারে বলে মনে করা হয়।

সম্প্রতি ভারত লাদাখের একেবারে প্রত্যন্ত এলাকায় একটি নতুন রাস্তা নির্মাণ করেছে। যাতে করে সীমান্তে কোনও সংঘর্ষ হলে দিল্লি খুব সহজেই সেখানে সৈন্য ও প্রয়োজনীয় মালামাল পাঠাতে পারবে। ওই এলাকার অবকাঠামো ভারত নতুন করে ঢেলে সাজাতে চাওয়াতেই চীন ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

১৯৭৫ সালের পর এবারই দুই দেশের মধ্যে সামরিক সংঘাতে প্রাণহানি দেখছে বিশ্ব। ওইসময় অরুণাচল প্রদেশে ভারত-চীন সীমান্তের খুব কাছে চীনা বাহিনীর চালানো এক হামলায় ভারতের আসাম রাইফেলসের ৪ জওয়ান নিহত হয়েছিল।চীন-ভারতের মধ্যে একমাত্র যুদ্ধটি হয়েছিল ১৯৬২ সালে। সেবার চীনের কাছে পরাজিত হয়েছিল ভারত।

ভারত বরাবরই অভিযোগ করে আসছে, চীন তাদের ৩৮ হাজার বর্গকিলোমিটার ভূখণ্ড দখল করে রেখেছে। গত তিন দশকে বিরোধপূর্ণ ভূখণ্ড ও সীমান্ত সংকট নিয়ে বেশ কয়েক দফা আলোচনাও হয়েছে।

সম্প্রতি সীমান্ত বিরোধ নিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে চীনের কঠোর অবস্থান স্পষ্ট হচ্ছিল। সমঝোতা বৈঠকের পর পিছু না হটে বরং সীমান্তে সেনা ও সামরিক সরঞ্জাম মোতায়েন কয়েকগুণ বাড়িয়েছিল চীন। পাল্টা জবাবে ভারতও সীমানে সেনা মোতায়েন জোরদার করেছিল। এতে করে অরুণাচল প্রদেশ, সিকিম, হিমাচল প্রদেশ ও উত্তরাখণ্ডে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) বরাবর যুদ্ধংদেহি পরিস্থিতি বিরাজ করছিল কিছুদিন ধরে।

গেল ৫ মে লাদাখের প্যাংগং লেক এলাকায় চীন ও ভারতের সেনাদের সংঘাত শুরু হয়। হাতাহাতি ও পাথর ছোড়ার ঘটনাও ঘটে। এরপরই দুদেশের সামরিক পর্যায়ে দু’দফা বৈঠকের পর লাদাখের ৩টি জায়গার মুখোমুখি অবস্থান থেকে পিছু হটে দু’দেশের সেনারা। কিন্তু শেষ পযন্ত সমঝোতা হালে পানি পেলো না।

এদিকে ভারতের ২০ সেনা নিহতের ব্যাপারে চীনের পক্ষ থেকে এখনও কোনও তথ্য দেয়া হয়নি। তবে ভারতের আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ১৭ জন ভারতীয় সেনা প্রচণ্ড ঠান্ডার মধ্যে ঘটনা ওই সংঘর্ষে গুরুত্বর আহত হয়ে মৃত্যুবরণ করে।

এদিকে ভারতের বার্তা সংস্থা এএনআই বলছে, ভারতীয়দের পাওয়া তথ্যে চীনের দিকে অন্তত ৪৩ জন হতাহত হওয়ার খবর জানা গেছে। ভারতের প্রথম বিবৃতিতেও সেটি দাবি করা হয়েছিল। তবে চীন এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে তেমন কিছু নিশ্চিত করেনি। সংঘর্ষে হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা প্রকাশ করছে এএনআই।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিযোগ করেছে, গালওয়ান উপত্যকায় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) মেনে চলার জন্য গত সপ্তাহে দুই পক্ষের মধ্যে যে ঐক্যমত্য হয়েছিল চীন তা ভঙ্গ করেছে।

অপরদিকে চীন তাদের দিক থেকে কেউ হতাহত হওয়ার কথা না বললেও ভারতের বিরুদ্ধে সীমান্ত পার হয়ে চীনা অংশে প্রবেশের অভিযোগ তুলে।

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বলেছেন, ‘ভারত সোমবার দু’দফায় সীমান্ত লংঘন করে উস্কানি দিয়েছে এবং চীনের সৈন্যদের ওপর আক্রমণ করে। এর ফলশ্রুতিতেই দুদেশের সীমান্তরক্ষীদের মধ্যে হাতাহাতি হয়।’

এর আগে ২০১৭ সালে বিতর্কিত মালভূমিতে চীন তার সীমান্ত সড়ক তৈরি করতে চাইলে দুদেশের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সামরিক শক্তিতে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ এ দেশ দুটির মধ্যে এর আগেও বেশ কয়েকবার সীমান্তে সংঘর্ষ হয়।


  • 23
    Shares

Related Articles