মুক্তমত ও সম্পাদকীয়

‘বাঁচতে চাই , বাঁচাতে চাই , মুন্সীগঞ্জে পিসিআর ল্যাব চাই’

  • 24
    Shares

‘বাঁচতে চাই , বাঁচাতে চাই , মুন্সীগঞ্জে পিসিআর ল্যাব চাই’ এ স্লোগানকে সামনে রেখে মুন্সীগঞ্জের সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক, সামাজিক সংগঠন ও সাধারণ শ্রেণি পেশার মানুষের পিসিআর ল্যাব স্থাপনের দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জোরদার প্রচারনা চালাচ্ছে। ইতিমধ্যে মুন্সীগনঞ্জ প্রেস কøাব এবং নাগরিক সমন¦য় পরিষদ সংগঠন থেকেও ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের দাবি জানানো হয়েছে। মুন্সীগঞ্জের জনসংখ্যা প্রায় ২১ লাখ। করোনা ঝুকিতে এ জেলা ৫ম। করোনার ৮৫ শতাংশ রোগী ঢাকা এবং নারায়ণগঞ্জে।

মুন্সীগঞ্জ ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের পাশ্ববর্তী জেলা হওয়ার কারনে ঝুঁকি বেড়ে গেছে অনেকগুন। এছাড়াও দেশের দক্ষিনের জেলা গুলোতে প্রবেশ করতে হলে উপযুক্ত এবং নির্ভরশীল পথ হচ্ছে মুন্সীগঞ্জ। বিভিন্ন জেলায় যাতায়াতের পথ হিসেবে মুন্সীগঞ্জ ব্যবহার হওয়ার কারনে এ জেলা করোনা আক্রান্তের রেড জোন হিসেবে বিবেচনা করা যায়। এছাড়াও মুন্সীগঞ্জের মানুষের বিভিন্ন প্রয়োজনে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে অবাধ যাতায়াতের কারনে করোনা আক্রান্তের ঝুঁকির সম্ভবনা বৃদ্ধি পেয়েছে অনেকগুন। যে কারনে জেলায় প্রতিনিয়ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে অত্যাধিক হারে।

এ লেখা পযর্ন্ত জেলায় মোট ৬৭৭৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে আক্রান্তের সংখ্যা ১৫৪৩ জন এবং মৃত ৩৬ জন। ৯ই জুন ১৯২ জন, ১১ই জুন ৭৭ জন, ১২ই জুন ১০৩ জন এবং গত শনিবার ১৩.৬.২০২০ তারিখে আক্রান্তের সংখ্যা ৭৫ জন। এ জেলায় রোগীর সংখ্যা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাওয়ার কারনে মুন্সীগঞ্জের মানুষ সহ দেশের দক্ষিনের জেলা গুলোর ঝুঁকি ও আক্রান্তের হার বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভবনা অনেক। নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষার সংখ্যা বৃদ্ধি করলে রোগীর সংখ্যাও বৃদ্ধি পাবে এতে কোন সন্দেহ নেই। মুন্সীগঞ্জে কোন পিসিআর ল্যাব নেই। নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়। নমুনা সংগ্রহ ও শনাক্ত বিলম্ব হওয়ার কারনে করোনা ছড়ানোর ঝুঁকি বাড়ছে।

সিভিল সার্জন ডা আবুল কালাম আজাদ জানিয়েছেন এখন পর্যন্ত মোট ৬৯১৭ টি সোয়াব পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। জেলায় ১৫৪৩ জনের মধ্যে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় ৬২৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ২১৯ জন নিয়ে সিরাজদিখান দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। এছাড়া লৌহজং, শ্রীনগর, টঙ্গীবাড়ি ও গজারিয়াসহ প্রত্যেক উপজেলায় করোনা আক্রান্ত রোগী রয়েছে। একমাত্র গজারিয়া উপজেলা বাদে সকল উপজেলায় মৃতের সংখ্যা ও আক্রান্তের সংখা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

মুন্সীগঞ্জ প্রেস ক্লাব সভাপতি মীর নাসির উদ্দিন উজ্জল জানান, মুন্সীগঞ্জ রেড জোনের দিকে ধাবিত হচ্ছে। নারায়ণগঞ্জের পাশাপাশি জেলা হওয়ায় প্রথম থেকেই এ জেলায় লোকজনের মধ্যে করোনা ছড়িয়ে পড়ছে এবং প্রতিনিয়ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। জেলার ছয়টি উপজেলার স্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলোতে সোয়াব দেওয়ার জন্য ভীড় বাড়ছে । সংগ্রহ করা সোয়াব ঢাকায় পাঠানোর কারনে ফলাফল জানতে বেশ সময় লাগছে, তাই রোগীদের সময়মত চিকিৎসা, আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টে রাখা সম্ভব হচ্ছে না ।

লৌহজং উপজেলার চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওসমান গনি তালুকদার করোনা পজিটিভ ছিলেন না। ত্রান বিতরন করতে গিয়ে অনেকের সংস্পশে আসেন। তাই তিনি সন্দেহবশত সোয়াব পরীক্ষার জন্য দিয়েছিলেন। গত বুধবার তার করোনা পজিটিভ রিপোট আসে। অথচ তিনি গত মঙ্গলবার ত্রান বিতরন করেছেন। এ সময়ে তিনি জানতেন না করোনা পজিটিভ। এরকম ভাবে অনেক জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের পদস্থ্য কর্মকর্তা , পুলিশ র্কমকর্তা করোনা পজিটিভ নিয়ে জনগনের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

সংশ্লিষ্টরা মনে করেন অনতিবিলম্বে মুন্সীগঞ্জে পিসিআর ল্যাব স্থাপন করলে, দ্রুত করোনা টেষ্ট করাতে পারলে সংক্রমন ঠেকানো সম্ভব হবে। মুন্সীগঞ্জবাসী, সামাজিক সংগঠন ও সংবাদকর্মীদের আকুল আবেদন অতি দ্রুত মুন্সীগঞ্জে করোনা টেষ্ট ল্যাব স্থাপন করার ব্যবস্থা করে মুন্সীগঞ্জ ও দেশের দক্ষিনের জেলা গুলোকে মহামারী করোনার ঝুঁকি ও আক্রান্তের হাত থেকে রক্ষা করুন।
আবু সাঈদ দেওয়ান সৌরভ
মুন্সীগঞ্জ সদর


  • 24
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button