নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই দেবে গেছে জাতীয় মহাসড়ক

0
11

রাব্বি ইসলাম, স্টাফ রিপোর্টার: নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই দেবে যাচ্ছে ঢাকা-টাঙ্গাইল (পুরাতন) জাতীয় মহাসড়ক। ফলে প্রায় ০৭ কোটি ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে, স্থানীয় এলাকাবাসীদের মধ্যেও ব্যাপক ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। তবে সড়ক ও জনপথ বিভাগ বলছেন, ঠিকাদারের কাছ থেকে মানসম্পন্ন কাজই তারা বেছে নিবেন।

গত ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময় থেকে শুরু হয় শহর সৌন্দয্য বর্ধনে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি মূলক প্রকল্প মির্জাপুর শহর অংশ (এন-৪০৩) জাতীয় মহাসড়ক ফুটপাতসহ প্রশস্থকরণের কাজ। এর মধ্যে লৌহজং সেতুর কাজ সম্পূর্ণ শেষ হয়েছে ও অন্যান্য সকল কাজ চলমান। তবে জাতীয় মহাসড়ক ও ড্রেন ফুটপাত নির্মাণের কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন এলাকাবাসী।

মির্জাপুরে চলমান কাজের ৭ মাসের মধ্যেই জাতীয় মহাসড়কের বিভিন্ন অংশে ফাটল।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, মহাসড়কের দেওহাটা-পৌরসদরের চরপাড়া এলাকা পর্যন্ত ঢাকা-টাঙ্গাইল (পুরাতন) মহাসড়কের নির্মাণ কাজে নিম্নমাণের ইট, বালির পরিবর্তে ভিটিবালি ও মাটি ব্যবহার করে কাজের গুণগতমান ঠিক না থাকায় নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ার পূর্বেই ৭ মাসের মধ্যেই মহাসড়কের বিভিন্ন অংশ দেবে গেছে, দেখা দিয়েছে ফাটল, বিভিন্নস্থানে খানাখন্দকেরও সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে মহাসড়কের পাশেই ড্রেন ফুটপাত নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম চলছিলো। নিম্নমাণের ইট দিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছিল ড্রেন। গত শুক্রবার (১২ই জুন) স্থানীয় এলাকাবাসীরা বিষয়টি লক্ষ্য করলে দায়িত্বে থাকা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্ত্বাধিকারীকে ডাকিয়ে কেনো নিম্নমাণের ইট ব্যবহার করা হচ্ছে এমনটি জানতে চাইলে ঠিকাদার নিম্নমানের নয় উন্নত মানের ইট ব্যবহার করা হচ্ছে জানিয়ে তাড়াতাড়ি ঐ স্থান ত্যাগ করেন! এদিকে তার পরদিন শনিবার দিনব্যাপী নিম্নমানের ইট মিনি ড্রাম-ট্রাকযোগে অন্যস্থানে সরিয়ে নিতেও দেখা গেছে।

কাজ শেষ না হওয়ার আগেই নির্মাণের ৭ মাসের মধ্যেই মহাসড়কের বিভিন্ন অংশ দেবে যাওয়া সহ ফাটল ও খানাখন্দক সৃষ্টি হওয়ায় কাজের মান নিয়ে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন। এমন নিন্মমানের কাজের জন্য সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের গাফিলতিকে দায়ী করছেন এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রোপাইটর মনোজ খন্দকারের কাছে জানতে চাইলে তার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ নাকচ করেন তিনি।

তবে প্রকৌশলীরা বলছেন পিচের কারণে পাথর-বিটুমিনের যে মিশ্রণ তৈরি করা হয় সেটি ঠিকমতো না হলে রাটিং বা সড়ক দেবে যেতে পারে। যানবাহনের অতিরিক্ত ওভারলোড ও জোয়ারের কারণেও এমনটি হতে পারে। তবে, কাজ বুঝে নেয়ার আগে সব ঠিক করে নেয়ার কথা বলছে স্থানীয় সড়ক ও জনপথ বিভাগ। ইতিমধ্যে যেসকল জায়গায় সমস্যা দেখা দিয়েছে সেগুলো দ্রুত সংস্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন টাঙ্গাইল সড়ক বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী ইমরান ফারহান।