৯ মাসের শিশুসহ ১১ জনের কোভিড-১৯ শনাক্ত

0
16

রাব্বি ইসলাম, স্টাফ রিপোর্টার: মা-বাবা আক্রান্তের ১৩ দিন পর ছেলে-মেয়ে ও মাসহ (নানি-নাতি-নাতিন) একই পরিবারের তিনজন ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আক্রান্তের পর তার বড় ছেলের স্ত্রী ২ নাতি (৯ মাসের এক শিশু) ও স্বামীর পর স্ত্রী-মেয়েসহ (মোট ৩ পরিবারের ৮ সদস্য) নতুন করে আরো ১১ জনের দেহে করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্ত হয়েছে। রবিবার (১৪ই জুন) সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাকসুদা খানম।

আক্রান্তরা হলেন, উপজেলার পৌরসদরের বাইমহাটি এলাকার বাসিন্দা একই পরিবারের নানি (৭০), নাতি (১০) ও নাতিন (০৬), গোড়াই ইউনিয়নের নাজিরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা (উপজেলা চেয়ারম্যানের ২ নাতি (০৯ মাস- ১২) ও তার বড় ছেলের স্ত্রী (৩৮), উয়ার্শী ইউনিয়নের খৈলসিন্দুর গ্রামের বাসিন্দা (৪৮), একই ইউনিয়নের নিরাপত্তাকর্মী (৪৭), ফতেপুর ইউনিয়নের কুরণী গ্রামের বাসিন্দা (৫৫), পোষ্টকামুরী গ্রামের বাসিন্দা মা-মেয়ে (৪০) ও (২৪)।

জানা যায় গত ০৬ তারিখে আক্রান্ত হয় বাইমহাটি গ্রামের বাসিন্দা স্বামী-স্ত্রী। আক্রান্ত হওয়ার পরদিন তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য বিভাগ। সংগ্রহের ১ দিন পর (৮ই জুন) পরীক্ষার জন্য আইপিএস ল্যাবে পাঠানো হয়। রবিবার প্রাপ্ত রিপোর্টে মা-ছেলে-মেয়ে (নানি-নাতি-নাতিনের) ৩ জনের করোনা পজিটিভ আসে।

এদিকে গোড়াই নাজিরপাড়া এলাকার বাসিন্দা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের আক্রান্তের ১৩ দিন পর তার বড় ছেলের স্ত্রী ও ২ নাতিরও করোনা পজিটিভ আসে, একইভাবে পোষ্টকামুরী গ্রামের বাসিন্দা স্বামী আক্রান্তের ১৩ দিন পরই স্ত্রী ও তার মেয়ের দেহে এবং চট্টগ্রামের পটিয়া এলাকা ফেরত উয়ার্শী ইউনিয়নের বন্দ্যে-কাউয়ালজানি গ্রামের বাসিন্দাসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে নমুনা দেয়া মোট ২০ জনের মধ্য থেকে রবিবার প্রাপ্ত রিপোর্টে ১১ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়। যা একদিনে সর্বোচ্চ রেকর্ড এ উপজেলায়।

এ নিয়ে উপজেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো ৭৫ জনে। যা সারা জেলার মধ্যে আক্রান্তের শীর্ষে।