সন্ধ্যা ৭:১২ সোমবার ১৪ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং

রাজধানীতে মঙ্গল শোভাযাত্রায় ছিল আইনশৃংখলা বাহিনীর নজিরবিহীন কঠোর নিরাপত্তা

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : এপ্রিল ১৪, ২০১৮ , ২:৪৬ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়,নির্বাচিত
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস. এম. মনির হোসেন জীবন : আজ বর্ষবরণের প্রথম প্রহরে রমনা ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ভোর থেকে দেখা গেছে নজিরবিহীন নিরাপত্তা। সূর্য উঠার সাথে সাথে শিল্পীদের সূরের মূর্ছনায় নববর্ষকে স্বাগত জানিয়ে রমনা বটমূলে ছায়ানটের আয়োজনের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে বের করা মঙ্গল শোভযাত্রাকে ঘিরে আইনশৃংখলা বাহিনীর উদ্যোগে কঠোর নিরাপত্তা বলয় দেখা গেছে। তবে, লাখো মানুষ ‘সোনার মানুষ’ হওয়ার প্রত্যয়ে অংশ নিয়েছে এই আয়োজনে। এবারের মঙ্গল শোভযাত্রায় প্রতিপাদ্য ছিল ফকির লালন সাঁইয়ের বিখ্যাত গানের কলি ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি।’

 

এদিকে, আজকের এই শোভযাত্রার সামনে ছিল কয়েক সারি র‌্যাবের সশস্ত্র দল। তারও আগে ছিল পুলিশ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকা থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রাটি বের হয়ে রূপসী বাংলা হোটেল ঘুরে আবার শোভাযাত্রা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় গিয়ে শেষ হয়। এসময় সড়কে তিল পরিমান জায়গা ফাঁকা ছিল না। সড়কের দুই পাশও পুলিশ ঘিরে রেখেছিল সশস্ত্র পাহারায়। মিছিলে মাঝপথে কাউকে ঢুকতে দেয়া হয়নি, কাউকে বের হতেও দেয়া হয়নি। কেউ মুখোশ পড়ে শোভাযাত্রায় অংশ নিতে পারেনি।

 

অপর দিকে, আজ ভোরে ও সকালে রমনা ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এবং বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় প্রবেশের ক্ষেত্রে একাধিক স্থানে বসানো হয় তল্লাশী চৌকি। নাশকতা ও বিশৃংখলা ঠেকাতে পাঁচ জায়গায় পড়তে হয়েছে তল্লাশিতে। হ্যান্ড মেটাল ডিটেক্টরে তল্লাশির পাশাপাশি আর্চওয়ের সবুজ সংকেতের পরই ঢুকতে পেরেছে মানুষ। ভেতরে ব্যাগ নিতে কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি।

পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকেও শত শত নিরাপত্তকর্মীরা দায়িত্ব পালনে সর্বদা নিয়োজিত ছিল। র‌্যাবের ডগ স্কোয়াড এবং বোমা ডিসপোজাল ইউনিট দায়িত্ব পালন করছে। পুরো এলাকাই সিসি টিভি দ্বারা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। আছে বেশ কিছু ওয়াচ টাওয়ারও। উৎসব এলাকায় প্রবেশ ও বের হওয়ার পথ ছিল আলাদা আলাদা। রমনা, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান বিশ্ববিদ্যালয় ও হাতিরঝিল এলাকায় নারী হয়রানি এবং ধূমপান রোধে কাজ করছে র‌্যাবের একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালত।

 

আজ সকালে রমনা উদ্যানে প্রবেশের সময় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক দফা, মৎস্য ভবন এলাকায় দ্বিতীয় দফা, রমনা উদ্যানে রমনা চায়নিজের আসনে আরেকবার এবং রমনা বটমূলের অনুষ্ঠান স্থলের কাছে আরেক দফা তল্লাশিতে পড়তে হয়েছে। ঢুকতে হয়েছে আর্চওয়ে দিয়ে।

 

পুরোটা সময় অনুষ্ঠান স্থলের ছবি তুলতে দেখা গেছে ড্রোন দিয়ে। পুলিশ ও র‌্যাব কার্যালয় থেকে উড়ন্ত ক্যামেরা দিয়ে নজরদারি করা হয়েছে। হেলিকপ্টার থেকে লিফলেট ফেলে র‌্যাব শুভেচ্ছা জানিয়েছে নববর্ষের। সেই সঙ্গে দেয়া হয়েছে যোগাযোগের মোবাইল নম্বর। কোথাও কোনো তথ্য পেলে সঙ্গে সঙ্গে যোগাযোগের অনুরোধ করা হয়েছে। একইভাবে যারা কারওয়ান বাজার দিয়ে সোনারগাঁও হোটেল হয়ে অনুষ্ঠানস্থলে ঢুকেছেন, তাদেরকে বাংলামোটর, পরিবাগ, শাহবাগ এলাকাতে তল্লাশির মুখে পড়তে হয়েছে। এছাড়া অন্য সব রুটেও ছিল আইনশংখলা বাহিনী নিরাপত্তার একই রকম আয়োজন।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ঢাকা মুহানগর পুলিশের ক্রাইম অ্যন্ড অপস বিভাগের অতিরিক্ত কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় জানান, বর্ষবরণের অনুষ্ঠানকে সুন্দরভাবে পালন করতে সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থাই নিয়েছে পুলিশ।

তিনি জানান, তার মধ্যে রয়েছে আর্চওয়ে, তল্লাশি, সিটি ক্যামেরা, ডগস্কয়াড ও র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত। মানে সুন্দরভাবে পালনের জন্য যা কিছু প্রয়োজন তার সবই করা হয়েছে। সবকিছু সুন্দর মতই হচ্ছে। আশা করছি কোন ধরনের অসুবিধা হবেনা।

 

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিট্রেট সারোয়ার আলম জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে ছিনতাই করার অভিযোগে সোহেল রানা ও রাসেল আহমেদ নামে দুই যুবককে ধরে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন র‌্যাব-৩ এর একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিট্রেট সারোয়ার আলম দুই ছিনতাইকারীকে এ কারাদন্ড প্রদান করেন।

Comments

comments