করোনা সঙ্কট

করোনার প্রাদূর্ভাবে জনদুর্ভোগে জাতি; আঁছড়ে পড়ছে দুঃখ ও নিরব হাহাকার


নাজিম উদ্দীন জনিঃ ভয়াবহ করোনার প্রভাবে অভাব ও দারিদ্র্যতার কশাঘাতে আজকের জনজীবনে দুঃখ ও হাহাকারে পূর্ণ হয়েছে।

লকডাউনে মানুষের ওপর চেপে বসেছে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির ঘোটক। জীবনধারণের উপযোগী প্রতিটি জিনিসের অগ্নিমূল্যে দিশেহারা হয়ে পড়ছে মানুষ।

চাল, ডাল, মাছ, মাংস, তেল, তরিতরকারি, ফলমূল, চিনি, লবণ, গম, আটা, রুটি, বিস্কুট ইত্যাদি দ্রব্যের মূল্য আগের তুলনায় কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

ফলে সাধারণ মানুষ, বিশেষ করে খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষের মাঝে এক প্রকার চাপা নাভিশ্বাস উঠেছে।

করোনার প্রভাবে অর্থহীন হয়ে পড়া মানুষ গুলোর কাঁচাবাজারের লাগামহীন মূল্যে জীবন এখন বিপর্যস্ত।

সবজি কেনা এখন দুরূহ ব্যাপার হয় উঠছে। ডাল আর ডিমের ওপরই ভরসা করলেও খেটে খাওয়া পরিবারগুলোর মাথার উপর সেখানেও মূল্য বৃদ্ধির চাপ।

বাজার মূল্য কিছুটা কমই চলছিলো কিন্তু সম্প্রতি করোনার ভয়াবহতা ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়ায় লকডাউন পালন করছে রাজধানী ঢাকা সহ বিভিন্ন জেলা উপজেলা। তার কারনেই সবজির বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেতে শুরু করে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গত দুই সপ্তাহ ধরে সবজির দাম লাগামহীন হয়ে পড়েছে। বর্তমানে প্রতিটি সবজি কেজিপ্রতি দুই থেকে চার গুণ দামে কিনতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।

জটিল সংকটের মধ্যে দিয়ে দিন দিন বেড়েই চলেছে করোনা মহামারির প্রকোপ। সংকটের একদিকে ভাইরাসের সংক্রমণ বিস্তারে ঝুঁকি, অন্যদিকে সেই ঝুঁকি এড়ানোর লক্ষ্যে পুরো জাতি আজ উদ্ভূত জনদুর্ভোগে।

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারে যেমন আগুন। আর সেই আগুনে পুড়ছে সাধারণ মানুষ। অন্যদিকে পকেট উজাড় করে ফেলা ক্রেতারা পড়েছেন মহাসংকটে। বাধ্য হয়ে বাড়তি দামেই বাজার সেরে ঘরে ফিরছেন বড় এক দীর্ঘশ্বাস নিয়ে।

করোনা ভাইরাসের প্রকোপে যখন মানুষ কোনোরকমে বেঁচে থাকার চেষ্টা করছে, ঠিক তখন চাল, তেল, সবজি, পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ছে।

একের পর জিনিসের দাম বেড়েই চলেছে। কিন্তু আয় বাড়েনি। এখন পরিস্থিতি এমন হয়েছে, নিম্ন আয়ের মানুষের টিকে থাকাই কঠিন হয়ে পড়েছে।

অন্যদিকে বিক্রেতাদের করোনার নানা অজুহাত। ব্যবসায়ীরা বলছেন, শ্রমিক ও পরিবহনসংকটে পণ্যের সরবরাহ ঘাটতিতে দাম বাড়ছে। তবে ভোক্তাদের অভিযোগ, অনেক ব্যবসায়ী কারসাজি করে দাম বাড়িয়ে থাকেন।

খুঁচরা পর্যায়ের ব্যবসায়ীদের দাবি, করোনার কারণে পণ্য পরিবহনে সংকটের জন্যই দাম বেড়েছে। এ ছাড়া পাইকারি পর্যায়ে পণ্য কিনতে হচ্ছে বেশি দামে। আবার দফায় দফায় লকডাউনের কারণে বেড়েছে সবজির দামও।

সব মিলিয়ে বাজারে পণ্যের সরবরাহে ঘাটতি রয়েছে। এ কারণেই দাম বাড়ছে। দামের এই লাগাম টানতে হলে উৎপাদন ও পাইকারি পর্যায়ে সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে। আমদানির ব্যবস্থা করতে হবে। পাশাপাশি বাড়াতে হবে তদারকিও।

সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে, দেশে পর্যাপ্ত খাদ্যপণ্যের মজুত রয়েছে। কিন্তু বাজারে নিত্যপণ্যের দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে।

করোনা ভাইরাসের ভয়াবহ তান্ডব, গোটা দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলা লকডাউন, কর্মহীন ও অর্থহীন হয়ে পড়া মানুষের নিরব দীর্ঘশ্বাস, বাজারে নিত্যপণ্যের দামে অস্থিরতা। অত্যান্ত বেদনাবিধুর চর্তুরমূখী মহা ক্রান্তিকাল সময় পার করছে পৃথিবী। এর থেকে উত্তরণ কিভাবে ঘটবে জানা নেই কারো।

এরপরও আছে সমিতির কিস্তি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর লকডাউনে কাজকর্ম বন্ধ হয়ে গেছে নিম্ন আয়ের মানুষের। এখন সমিতি বা এনজিও কর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে কিস্তির জন্য ধরনা দিচ্ছেন এবং চাপ সৃষ্টি করছেন বলে অভিযোগ ঋণগ্রহীতাদের।

ঋণগ্রহীতারা অভিযোগ করে বলেন, এ সময় আমাদের খাবার যোগাড় করা কঠিন। তারপর এনজিও কর্মীরা নানান রকম মামলা-হামলার ভয় দেখিয়ে কিস্তি আদায় করছেন। সব মিলিয়ে সার্বিক পরিস্থিতির দিকে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নজর দিবেন এবং সমাধান দিবেন একটু আশার বাণি শুনিয়ে। এমনটাই প্রত্যাশা সকলের।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন