দেশজুড়ে

কালিহাতীতে চায়না জাল দিয়ে অবাধে মাছ নিধন

  • 222
    Shares

জাহাঙ্গীর আলম, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে চায়না জাল দিয়ে প্রতিনিয়ত চলছে ছোট ছোট রুই, কাতলা, বাঘাইড়, আইড়, চিতল সহ অন্যান্য মাছ নিধন। উপজেলা বিভিন্ন নদ-নদী বা ডুবাতে প্রতিনিয়তই ব্যবহার করা হচ্ছে চায়না জাল নামের বিশেষ এক ধরনের ফাঁদ। যে ফাঁদে নির্বিচারে মারা পড়ছে পোনাসহ সব ধরনের মাছ। যার ফলে ভবিষ্যতে কালিহাতীতে বড় মাছের সংকটে পড়ার আশংকা করছেন স্থানীয়রা।

উপজেলার পাইকড়া ইউনিয়নের হাসড়া গ্রামের মাছ শিকারী আশরাফুল এবং আব্দুল কাদের জানান, তাঁরা এ বর্ষায়ই প্রথম চায়না জাল দিয়ে মাছ শিকার করছেন। একেকটি জাল দাম পড়ে ৮ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা। সহজে মাছ ধরা পড়ে বলে এতে আয় বেশি, অন্য দিকে পরিশ্রমও কম। গত এক বছর আগেও এই ‘চায়না জালে’ প্রথম বছরে অনেক মাছ পাইছি।

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার কোকডহরা ইউনিয়নের ফুলবাড়ি গ্রামে লাঙ্গুলিয়া নদীতে চায়না জাল থেকে মাছ ধরছেন বাদশা মিঞা। জালের এক মাথায় (প্রান্তে) পাঁড় ঘেঁষে বাশের খুটিতে পুরাতন কাপড় বেধে লম্বা-লম্বি বাঁধ দিয়ে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা হয়েছে মাছ যেনো জালে না ঢুকে পার হয়ে যেতে না পারে। কি কি মাছ ধরেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এহন নদীতে পানি নাই বৃষ্টির পানি, ছোট পুটি, সিলভারের পোনা, ছোট টেংরা, শিং মাছ এগুলা ধরা পড়তাছে, কাঁকড়া, পানি আওয়া শুরু হইলে ছোট-বড় সকল মাছই এই জালে আটকে।

চায়না সুতায় দেশীয় ভাবে তৈরী এ জাল দেড় থেকে আড়াই ফুট এক প্রান্তে ৭ ফুট গোলাকার, বাকিটা চার কোণা, জাল ভাঁজ করে গুটিয়ে রাখা ও সহজে বহন করা যায়। চিকন এক ধরণের লোহার শলাকা গোল করে তিন-চার ফুট পরপর বসিয়ে বাহিরের দিক থেকে জাল লাগিয়ে ভিতরেও একটি জাল বিশেষ কায়দায় লাগানে যা ধীরে ধীরে শেষ প্রান্তে সংকুচিত, পুরো ফাঁকা করে দুই মুখ খোলা করে তৈরী। জাল পাঁতার সময় যে দিকে মাছের চলাফেরা বেশি সেদিকটা খোলা রেখে অপর মুখ (প্রান্ত) রশ্মি দিয়ে বেধে আটকে দেয়া হয়। জালের ভিতরে মাছ চলাচল করতে পারার কারণে তাজা থাকে। আকার ভেদে ত্রিশ ফুট মাপের জাল আড়াই হাজার টাকা, পঞ্চাশ ফুট মাপের জাল সাড়ে তিন হাজার টাকা ও আশি ফুট মাপের জাল দশ হাজার টাকায় খুচরা কিনতে পাওয়া যায়। দেশীয় কারেন্ট জালে মাছ আটকে কাটা পড়ে মারা যায়, দামও কম পাওয়া যায়, জাল থেকেও মাছ ছাড়ানো কষ্টকর ও সময়সাধ্য। চীনের তৈরী এ বিশেষ ‘চায়না জালে’ ছোট-বড় সকল প্রকার মাছই আটকা পড়ে। মাছ বের করে আনাও সহজ এবং তাজা থাকে, দামও বেশি পাওয়া যায়। আষাঢ় মাস থেকে আশ্বিন পর্যন্ত এই চার মাস নদী-নালা, খাল-বিল, নামা জায়গাতে প্রচুর মাছ ধরা পড়ে। এ ছাড়া পানি বেশি হলে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হওয়ায় নদীনালা, বিল-ঝিল, খানাখন্দরে প্রচুর মাছ ধরা পড়ে।

উপজেলার বালিয়াটা বাজারে একটি চায়ের দোকানে স্থানীয় আলতাফ, সাত্তার, সামায়ন, আব্দুল লতিফ ও শওকত সহ কয়েকজন একে অপরের সাথে বলাবলি করছে নতুন চায়না জালেতো মাছ তাজা থাকে, এজন্য স্বাদও লাগে বেশি, চাহিদাও বেশি কিন্তুু পোনাও আটকে যায়। তাইলে সামনের দিনে মাছ কম পাওয়া যাইবো। ঝিনুক, শামুক সবই উঠে, হাঁসের জন্য শামুক পামু কেমনে।

জানা যায়, সোমবার ও বৃহস্পতিবার উপজেলার পৌজান, হামিদপুর (কালিহাতী ও ঘাটাইল উপজেলার সীমান্তবর্তী), শনিবার বল্লা, বুধবার এলেঙ্গা, রবিবার সয়া হাটে এসকল অবৈধ জাল অবাধে বিক্রি হয়। চারান গ্রামের ডিলার মজনু, শহিদ ও বকুল, হামিদপুরের পিন্টু, রুবেল ও হাফেজ এ জাল পাইকারি এবং চারানের আবেদ আলী, শের আলী ও হারুন, কালা মিয়া কমিশনে বিভিন্ন হাটে খুচরা বিক্রি করে থাকেন। বিক্রেতাদের কেউই মুঠোফোনে বা সরাসরি এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমান তানজিন অন্তরা এ বিষয়ে বলেন, দেশীয় প্রজাতির মাছের বংশ বিস্তার ও সংরক্ষণে হুমকি চায়না ও কারেন্ট জালের বিরুদ্ধে আমরা খুব তাড়াতাড়ি সকল আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।

কালিহাতী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা (UFO) মো. আইয়ুব আলী বলেন, এই ‘চায়না জাল’ ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষেধ। এটা মাটির সাথে আটকে থাকে যার ফলে ছোট বড় সব মাছ আটকে যায়। এই জালের ব্যবহার থেকে সকলকে বিরত থাকার অনুরোধ জানানো হলো। যদি কেউ না মানে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


  • 222
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন