বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

কোভিড-১৯ টেস্ট: সত্য মিথ্যার যুদ্ধ নাকি তেতুল বিজ্ঞানীর উপাখ্যান?

  • 3
    Shares

সম্প্রতি সময়ে কোভিড ১৯ এর টেস্ট নিয়ে বেশ কিছু ধোঁয়াশা হচ্ছে, আমরা ভানুর কৌতুকের মত এই “বেল” কে “বোমা” বানিয়ে ফেলছি পারলে। এই লেখার উদ্দেশ্য সায়েন্স বোঝানো না, শুধুমাত্র কোভিড ১৯ টেস্ট এর এই “বেল” গুলা নিয়ে একটু শরবত বানানো।

ডায়াগনস্টিক শব্দটার সাথে আমরা সবাই পরিচিত, টুকটাক রক্তের পরীক্ষা, মুত্রের গুষ্ঠি উদ্ধার এগুলা সবারই করা লাগছে। এখানে “গোল্ড স্টান্ডার্ড ” বলে একটা জিনিস আছে সেটা অজানা হয়তো। “গোল্ড স্টান্ডার্ড” বলতে বোঝায় ওই রোগের জন্য সব থেকে ভালো আর নির্ভুল পরীক্ষা পদ্ধতি। যেমন ইউরিন ইনফেকশানের (UTI) জন্য “ইউরিন কালচার” টেস্ট, ডায়াবেটিক্ এর জন্য গ্লাইকোহিমোগ্লোবিন টেস্ট যেটা HbA1c নামেই লেখা থাকে। ঠিক তেমনি মলিকুলার ডায়োগনস্টিকে “PCR” মুলতো গোল্ড স্টান্ডার্ড টেস্ট। কোভিড ১৯ টেস্ট এর জন্য একে “বাইবেল” বলা যায়।

কোভিড ১৯ PCR টেস্ট-এ মুলত একটা ভাইরাসের RNA এর কিছু অংশ ( ধরুন abcxyz) বাছাই করা হয়। তারপর আরও একটা এমন অংশ বানানো হয় (যেমন 123987) যেটা ওই ভাইরাসের বাছাই করা অংশের সাথে জোড়া লাগে। অনেকটা তালা-চাবি বা লোহা-চুম্বকের মত। এখন আমার হাতে যদি “123987” চুম্বকটা থাকে আর আমি ১ মগ পানিতে ওটা চুবাই তাহলে “abcxyz” লোহাটাই বাধবে, বা উঠে আসবে। অন্য কিছু বাধা বা উঠেআসা সম্ভব না। তখন আমি বলতে পারবো ওই পানিতে ঐ ভাইরাস আছে ? নাকি নেই?

এই ভাইরাসের এই প্রায় ২০ টা দাঁতের মত নির্বাচিত করা হয় তালা হিসাবে, মানে আমার চাবির ২০ তা দাঁত একইবারে হুবহু অমন হতে হবে। বাসা বাড়ির ৪/৫ দাতের তালার- চাবি ব্যবহার তো করেছেন সবাই। ডুপ্লিকেট চাবি একটু উল্টাপাল্টা হলে কি তালা খোলে? খোলে না। তাইলে ২০ দাতের চাবির কথা ভাবুন !!! যেখানে ৪ দাতের বিকাশ এর একাউন্ট হ্যাক করতে পারেন না, সেখানে ২০ দাতের সুইস ব্যাংকের একাউন্ট কিভাবে হ্যাক করবেন? আর এখানে কিন্তু ৩ বার চাপার সুযোগ নাই !!!! ১ বারই ফাইনাল।

এখন আসেন কিছু টেস্ট নাকি এক সেন্টারে পজেটিভ আসছে আবার অন্য সেন্টারে নেগেটিভ আসছে…??

আবার বিকাশে যাই…বিকাশের একাউন্ট হ্যাক হয় কিভাবে? কাউকে আপনি বলে দিলেন বা এমন ভাবে রাখলেন কেউ দেখে ফেললো। তার পরেও কিন্তু তাকে ওই দেখে ফেলা সংখ্যাই দিতে হবে না হলে হ্যাক করতে পারবে না। ঠিক তেমনি একটা স্যাম্পলের ভিতরে অন্য একটা স্যাম্পল ভুল করে চলে গেলেই কেবল সেটা পজেটিভ হইতে পারে। মানে ভুল করে হলেও আপনার স্যাম্পলে করনাই যাইতে হবে, এইডস গেলেও হবে না। এখনে একটা কথা বলে রাখা ভালো, ভুল করে সঠিক চাবি দিলেও অনেক সময় তাড়াহুড়াতে তালা খোলে না, কিন্তু ঠিক করে যত্ন নিয়েও আপনি সুটকেসের চাবি দিয়ে কিন্তু মেইনগেটের তালা খুলতে পারেন না। তাই PCR-এ ফলস নেগেটিভ হতে পারে, ফলস পজেটিভ সম্ভব না। একমাত্র যদি ভুল করে অন্যটা মিশে না যায়, যেটা PCR এর দোষ না। নাহিদকে বিকাশের পাসোয়ার্ড দিলে যেমন বিকশের কিছুই করার থাকে না।

এখন আসেন আর কিছু বিষয়ে একটু কড়াকথা বলি…..

১।স্যাম্পল কত দিন রাখছেন আপনি? সাথে সাথে টেস্ট না করতে পারলে নরমাল ফ্রিজে এটা ২৪ ঘণ্টা বা ১ দিনের বেশি থাকে না।

২। মাইনাস(-) ২০ ডিগ্রিতে ১০ দিন থাকে। এটা শুনে লাফাবেন না। আপনি যে একবার ফ্রিজে একবার রাস্তায় বয়ে নিয়ে বেরাচ্ছেন, তো এই “ফ্রিজ এন্ড থ্” করাতেই স্যাম্পল নষ্ট হয়ে গেছে , কারন এটা করতে নিষেধ করা আছে কঠোর ভাবে।

৩। আগের টেস্ট কত দিন আগে করেছেন? ৩/৪ দিন পরেই আপনার টা নেগেটিভ আসতে পারে। এতা খুবই স্বাভাবিক। নাকি সুস্থ্য হয়ে খারাপ লাগছে?

৪। নরমাল ট্যাগ বাফার কি “ডুয়েল হটস্টার” বা “ফিউশান” ট্যাগের মত কাজ করার ক্ষেত্রে অনেক সময় নিচ্ছেন ফ্রিজের বাইরে? ৩০ মিনিট? ৪০ মিনিট? তাইলে গেছে…ওইটা পীরের দরগায় ছাগল বলি দিয়েও পজিটিভ আনতে পারবেন না। সুর্যের আলোয় আপনার PCR মিক্সার অনেক আগেই নষ্ট হয়ে গেছে।

৫। তরকারি তে শেষের দিকে লবন দিলে ভালো করে নেড়ে নিতে হয়। স্যাম্পল টেস্টের জন্য নেওয়ার সময় আপনি ভর্টেক্স / সেন্ট্রিফিউজ ১০ মিনিটের টা ২ মিনিট করবেন তো ভাইরাস অমন এক জায়গায় পড়ে থাকবে। দুপুরে ইফতারি করলে যেমন হাফ রোজা বলে কিছু নাই তেমন প্রটোকল হাফ করার সুযোগ নাই। রাস্তায় অর্ধেক পিচ দিলে সেটা চুরি, তা তো খুব বোঝেন? এইটা বোঝেন না যে অর্ধেক প্রটোকল মানলে কাজের কোনো মানই থাকে না?

৬। পিসিআর এর ডাটায় (তথ্যে/রেজাল্টে) অনেক হিসাব নিকাশ আছে noise cancelling, threshold, Ct value, baseline এগুলা প্রসেস ঠিকমত না করলে রেজাল্ট ভুল হবেই।

৭। ন্যাসোফ্যারেঞ্জাল (নাকের থেকে) যে স্যাম্পল নিচ্ছেন, সব ঠিক থাকলেও সেখানে ৩০% রোগির জন্য ভাইরাস নাও আসতে পারে, গলা থেকে নিলে ৬০% ক্ষেত্রে আসে না। স্যাম্পল কালেকশান ভুল হলে কি হবে বা কত জনের টা ঠিকভাবে পাবেন সেটা আপনি নিজেই হিসাব করেন।

৮। পিপেটিং ইরোর আরো মারাত্নক। চামুচ মুখে নিয়ে তার উপর মার্বেল রেখে “মার্বেল দৌড়” খেলেছেন বা দেখেছেন ছোট বেলায়? পিপেটিং টেকনিক এমন একটা জিনিস যেখানে প্রতি স্টেপে এমন ভুল হতে পারে। গ্যাস বাবল চলে যাওয়া, পরিমানে কম/বেশি ওঠা অহরহ হয় এখানে, খুব দক্ষ না হলে।

৯।এইরকম স্যাম্পল কালেকশান, স্টোরেজ, প্রসেস, RNA এক্সাট্রাকশান, রিএজেন্ট প্রিপারেশান, মেশিন সেটাপ, ডাটা এন্যালাইসিস সহ প্রত্যেক ধাপে অনেক যায়গায় ভুল হইতে পারে। ব্যাবহৃত টেস্ট কিটের ক্যাপাসিটিও একটা ফ্যাক্টর এখানে।

পরিশিষ্ট ১
PCR নিয়ে সব থেকে প্রচলিত কথা হল, “PCR না হওয়ার ১০১ টা কারন আছে “। বিকাশ, সুইসব্যাংক হয়ে বাইবেলের কথায় যদি আসেন তো সেগুলা যেমন “গোল্ড স্টান্ডার্ড ” তেমন নাহিদের হাতে বিকাশ বা কাঠমোল্লার হাতে বাইবেল পড়লে কি হয় জানেন তো সবাই। একজন টেকনিশিয়ান আর একজন এক্সপার্টের ভিতরে পার্থক্য হলো টেকনিশিয়ান টেকনিক জানে কিন্তু এক্সপার্ট কারন গুলা জানে। হুট করে ভুল ঠিক মন্ত্যব্য করার আগে আমাদের এটা বিবেচনা করা উচিত।

পরিশিষ্ট ২

পাঠক, আমরা খুলনা হয়ে যাচ্ছি ভোলায়…
-আবুল, ভোলার করনা টেস্ট-এ কি অবস্থা? ভুল পাওয়া গেছে কজন-
– বিলকিস যেমনটা বলছিলাম, ভোলায় তো টেস্ট সেন্টারই খোলে নাই, তবে এখানে টেস্ট(!!!) ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে, ২ দিনের ভিতরে ঢাকা থেকে স্যাম্পল (!!!) আসলে জানা যাবে।
(নাম কাল্পনিক, ঘটনা সত্য, কাকতালিয় নয় তাই দয়া করে গুজব ছড়াবেন না)

বাসায় থাকুন, সুস্থ্য থাকুন।
জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে যাবেন না।

লেখক: জিন প্রকৌশলী ও জীব প্রযুক্তিবিদ
যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
tooha.btech@gmail.com


  • 3
    Shares

Related Articles